ই-মেইল মার্কেটিং নিয়ে কিছু কথা

কোনো ব্যবসায়ী বা উদ্যোক্তা যখন কোনো পণ্যের কোনো মার্কেটিং বার্তা নির্দিষ্ট গ্রাহকের কাছে ই-মেইলের মাধ্যমে পৌছে দেয়, তখন তাকে ই-মেইল মার্কেটিং বলে। বিভিন্ন শ্রেণি পেশার গ্রাহকদের ই-মেইল অ্যাড্রেস সংগ্রহের পর বিভিন্ন ধরনের কার্যকর ই-মেইল মার্কেটিং সফটওয়্যারের মাধ্যমে ই-মেইল লিস্ট গ্রাহকদের পছন্দ-অপছন্দ ও খরচ অভ্যাসসহ বিভিন্ন ক্যাটাগরির উপর ভিত্তি করে পৃথক পৃথক গ্রাহক লিস্ট তৈরি করা ও বজায় রাখা যায় ; যার ফলে কোনো উদ্যোক্তা অতি সহজেই কোনো সময়ের অপব্যয় ব্যতিরেকেই টার্গেটিং কাস্টমারের কাছে পৌছে যেতে পারেন। এত একজন উদ্যোক্তার যেমন মার্কেটিং খরচ কমে, ঠিক তেমনি তার সাইটেরও প্রসার ঘটে সহজ উপায়ে।

ই-মেইল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে একজন উদ্যোক্তা বা ব্যবসায়ীর যা যা করা অতি প্রয়োজনীয় সেগুলো হলো-
১. পণ্য বা সেবার আওতাধীন অঞ্চলের বিভিন্ন শ্রেণি, পেশা বা বয়সের মানুষের ই-মেইল অ্যাড্রেস জোগাড় করতে হবে।
২. যে পণ্য বা যেসব পণ্যের মার্কেটিং করতে চান বা যে নির্দিষ্ট অফার গ্রাহকের কাছে পৌছে দিতে চান, তা নিয়ে গবেষণা করতে হবে। গ্রাহক সেই পণ্য বা সেই সব পণ্য বা সেবাটি বা অফারটি কতটুকু সানন্দে বা আন্তরিকতার সাথে গ্রহণ করবে, তা বুঝার জন্য যথেষ্ট দূরদর্শী হতে হবে।
৩. ই-মেইলে অতি কম শব্দে চমৎকার ভাবে ক্রেতার সামনে পণ্য বা সেবা বা অফার সম্পর্কে ধারণা তুলে ধরতে হবে।
৪. ক্রেতা যেন অতি সহজেই কাঙ্খিত পণ্যের ঠিকানায় টুঁ মারতে পারে, সেইজন্য ই-মেইলে প্রয়োজনীয় লিংক জুড়ে দিতে হবে।

ই-মেইল মার্কেটিংয়ের জন্য একজন উদ্যোক্তার বা ব্যবসায়ীর ৩টি জিনিস প্রয়োজন-
১. একটি সুন্দর ও গোছানো ওয়েবসাইট ;
২. প্রয়োজনীয় মার্কেটিং টুলস এবং
৩. নির্দিষ্ট পণ্য বা সেবা।

Read More

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top