বাংলাদেশি গেম- মুক্তি ক্যাম্প

বাংলাদেশী প্রথম ভিডিও গেমঃ  আমরা সারাদিন কতো ভিডিও গেম খেলি। ছোটবেলা থেকে কতো ভিডিও গেম খেলে আসছি। কত এক্সাইটিং গেম খেলি। কিন্তু দুঃখের বিষয় একটাই যে, সেইসব ভিডিও গেম গুলো সবই বিদেশী। বাংলাদেশী একটি ভিডিও গেমও নেই। এটা বাংলাদেশী হিসেবে আমাদের জন্য খুবই দুঃখের বিষয়। এটা মানতে কষ্ট হয় যে বাংলাদেশী একটা ভিডিও গেমও নেই।

আর কোনো দুঃখ নেই। আজকে আমি আমার এই আর্টিকেলে আলোচনা করব এমন একটি ভিডিও গেম নিয়ে যা কি না নির্মিত হয়েছে আমাদের রক্তে অর্জিত এই স্বাধীন বাংলাদেশে। এটা আমাদের জন্য খুবই গর্বের একটা খবর। উপরের রািনে রক্তে অর্জিত কথাটা বলায় এতক্ষণে নিশ্চয় বুঝে গেছেন ভিডিও গেমটা কি বিষয়ে হতে পারে। না বুঝলে সমস্যা নেই। আমি বলে দিচ্ছি। ভিডিও গেমটির নাম যার কথা আমি এতক্ষণ বলছিলাম সেই ভিডিও গেমটির নাম হলো -MUKTI CAMP. এটি Mindfisher Game Incorporated দ্বারা নির্মিত বাংলাদেশের ঐতিহাসিক মুক্তিযুদ্ধের একটি ভিডিও গেম। গেমটি এমন যে খেলার সময় মনে হবে আপনি সরাসরি মুক্তিযুদ্ধ করছেন। আসল যুদ্ধের একটা ফিলিং আসবে।

আরও পড়ুন:

ভিডিও গেমটি ডাউনলোড করার নিয়মঃ

১. মোবাইল অন করুন
২. play stor এ প্রবেশ করুন
৩. সার্চ বক্সে ক্লিক করে লিখুন mukti camp
সাথে সাথে বেশ কয়েকটি গেম চলে আসবে। আমার অবিজ্ঞতা থেকে বলছি। গেমটি সব গেমের উপরে থাকবে। ১০১ নাকি ১০২ এমবি হবে। রেটিং ৪.৩। বুঝতেই পারছেন কত ভালো মানের গেম। রিভিউ সংখ্যা ৩১k. ডাউনলোড সংখ্যা ৫০০k+. এবার ইনস্টল বক্সে ক্লিক করুন। ইনস্টল হয়ে গেলে বসে পড়ুন বাংলাদেশের প্রথম এক্সাইটিং ভিডিও খেলতে।

গেম খেলার নিয়মঃ

গেমটি অন করলে স্কিনে মাইন্ডফিসার নামটা শো করবে। কয়েক সেকেন্ড অপেক্ষা করতে হবে গেমটা লোড হওয়ার জন্য। তারপর একটা গ্রাম শো করবে।ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকে সুন্দর একটা টুং বাজবে। দুই দিকে পাহাড় আর জঙ্গল। অন্য দু পাশে নদী। নদীর উপর একটা বাঁশের ব্রীজ। মাঝে সবুজ সমতল ভুমি। কয়েকটা ঘর থাকবে। একটা হেডকোয়ার্টার, শস্য ক্ষেত ইত্যাদি থাকবে। একটা স্কাউট সেন্টারও থাকবে। এখান থেকে আপনি প্রতি নিয়ত অনেক নতুন মানুষ পাবেন।

স্কিনের আইকন গুলোর বর্ণনাঃ

১. হাতুড়ি আইকনঃ  এই আইকনে ক্লিক করলে কতগুলো ছবি আসবে। বাড়ি, ক্ষেত, হেডকোয়ার্টার, ট্রেনিং সেন্টার, হসপিটাল ক্যাম্প, পোস্ট অফিস, স্কাউট ক্যাম্প ইত্যাদি ছবি। এগুলো আপনাকে উল্লেখিত শস্য ও কাঠ খরচ করে কিনতে হবে। তারপর সেগুলো দিয়ে আপনি আপনার গ্রামটাকে নিজের মতো করে সাজিয়ে নিতে পারবেন। শস্যক্ষেত গুলোতে লোক নিয়োগ দিবেন। তারপর তানা যে শস্য উৎপাদন করবে তা দিয়ে আপনি আরো অনেক কিছু কিনতে পারবেন।

২. ডকুমেন্ট আইকনঃ এই আইকনে ক্লিক করলে তিনটা বক্স দেখতে পাবেন। বক্সের নিচে Clam অপশন থাকবে। ঐখানে ক্লিক করলে আপনি কিছু শস্য, কাঠ আর অস্ত্র উপহার হিসেবে পাবেন।

৩. অস্ত্র আইকনঃ এই আইকনে ক্লিক করলে আপনি আপনার সংগ্রহে থাকা সকল অস্ত্র, বোমা, বই, সাইকেল, ছুরি ইত্যাদি দেখতে পাবেন। এখানে আপনি সিলেক্ট করে দিতে পারবেন যে কোন অস্ত্র কে নিবে এসব।

৪. শস্য আইকনঃ এই আইকনে ক্লিক করে আপনি গ্রামের সকল ঘর বাড়ি, শস্য ক্ষেত, হেডকোয়ার্টার, ট্রেনিং সেন্টার, হসপিটাল ক্যাম্প, পোস্ট অফিস, স্কাউট ক্যাম্প ইত্যাদি জিনিসকে আপগ্রেড করতে পারবেন।

৫. মানুষের আইকনঃ এই আইকনে ক্লিক করলে একটা লিস্ট চলে আসবে। এই লিস্টে সকল লোকের নাম উল্লেখ থাকবে। আপনি চাইলে নামগুলো পরিবর্তন করতে পারেন। এখানে তাদের অস্ত্র সিলেক্ট করে দিতে পারবেন। তাদের হাঁটার শক্তি, বুদ্ধি, নিখুঁত নিশানার দক্ষতা ইত্যাদি পাওয়ার বাড়িয়ে দিতে পারবেন। তারপর তাদের কি কাজ করতে হবে তা সিলেক্ট করে দিতে পারবেন। তাদের ট্রেনিং এ পাঠাতে পারবেন। তারা অসুস্থ থাকলে হসপিটালে পাঠিয়ে দিতে পারবেন। এটা অনেকটা হেডকোয়ার্টারের মতো। এখান থেকেই বেশিরভাগ ডাটা সেট করে দিতে হয়।

৬. ইমোজি আইকনঃ এই আইকন দ্বারা আপনি বুঝতে পারবেন গ্রামের লোকেরা ঠিক কতটা পাওয়ারে আছে।

৭. কয়েন আইকনঃ এই বক্সে উল্লেখ থাকবে বর্তমানে আপনার কি পরিমাণ কয়েন আছে।

৮. শস্য আইকনঃ এই বক্সে উল্লেখ থাকবে বর্তমানে আপনার কি পরিমাণ শস্য আছে।

৯. কাঠ আইকনঃ এই বক্সে উল্লেখ থাকবে বর্তমানে আপনার কি পরিমাণ কাঠ আছে।

১০. সেটিংসঃ এই আইকনে গেলে আপনি সাউন্ড অন অফ করতে পারবেন। তাছাড়া এই এই ভিডিও গেমটার ক্রেডিট কারা পাবে তাও জানতে পারবেন। আরও কিছু ইনফরমেশন এই সেটিংস এ পেয়ে যাবেন।

১১. ফ্রুট আইকনঃ এই অপশনে আপনি অনেক গিফট পাবেন। তাছাড়া কিছু জিনিস কিনতেও পারবেন।

১২. বাংলাদেশ আইকনঃ এই আইকনটাই হলো এই ভিডিও গেমের সবচেয়ে মজাদার অংশ। এখানে প্রবেশ করলে আপনি এই ভিডিও গেমের ত্রিশটা লেভেল দেখতে পাবেন। প্রতিটা লেভেলে পাকিস্তানের পতাকা লাগানো থাকবে। আপনাকে প্রতিটা লেভেল কমপ্লিট করতে হবে। একটা লেভের জিতলে ঐ লেভেলে বাংলাদেশে পতাকা অটোমেটিক্যালি চলে আসবে। আপনাকে যা করতে হবে –
১. এই অপসন থেকে বেরিয়ে গ্রামে যে হেডকোয়ার্টারটা থাকবে ঐখানে ক্লিক করতে হবে।
২. তারপর আপনি কাদের কাদের নিয়ে যুদ্ধে নামবেন তা সিলেক্ট করে দিতে হবে।
৩. এখানে তাদের অস্ত্রও সিলেক্ট করে দিতে পারবেন।
৪. প্রতিটা মেম্বারের ছবির নিচে তাদের পাওয়ার সংখ্যা দেয়া থাকবে। এতে আপনি বুঝতে পারবেন কে কতটা শক্তিশালী। কারো পাওয়ার কম থাকলে তা বাড়িয়ে দিবে। এটা আপনি ট্রেনিং এর মাধ্যমেও পারবেন। এতে একটু সময় লাগবে। আবার মানুষের আইকনে গিয়েও সরাসরি পাওয়ার দিতে পারবেন। এতে সময় লাগবে না। আর কেউ অসুস্থ থাকলে হসপিটালে পাঠিয়ে দিবেন।

Read More:

তো এদিকে সবকিছু ঠিক ঠাক করে আবার বাংলাদেশ অপশনে প্রবেশ করবেন। তারপর ১ম লেভেলের উপর ক্লিক করবেন। একটা পেইজ আসবে। ঐ পেইজে জায়গার নাম (যেখানে আপনি যুদ্ধ করবেন), আপনার দলে সর্ব মোট পাওয়ার, পাকিস্তানিদের সর্ব মোট পাওয়ার, এই লেভেল খেলতে আপনার কত কয়েন খরচ করতে হবে, লেভেলটা জিতলে কত কয়েন, কত শস্য আর কত কাঠ পাবেন সব উল্লেখ থাকবে।

এবার ইন্টারেস্টিং এই ভিডিও গেমের ইন্টারেস্টিং প্রথম লেভেল শরু। শুরুতেই একটা যুদ্ধের বাজনা বাজবে। স্কিনের বাম পাশে আপনার টিমের সকল মেম্বারদের দেখা যাবে। তাদের মধ্যে একজনকে সিলেক্ট করবেন। তারপর স্কিনে একটা সবুজ বক্স দেখতে পাবেন। এটা হচ্ছে প্রবেশ পথ। ১ম লেভেলে শুধু একটাই মাত্র প্রবেশ পথ থাকবে। কিন্তু অন্যান্য লেভেল গুলোতে তিন চারটা এরকম প্রজেস পথ থাকবে।

তাই একটু দেখে শুনে প্রবেশ করবেন। সব গুলো প্রবেশ পথ দেখে, কোন দিক থেকে আক্রমণ করলে বা প্রবেশ করলে কেউ দেখতে পাবে না সেটা একটু বুঝে সুঝে প্রবেশ করবেন। এবার সবুজ বক্সে ক্লিক করলে ঐ যুদ্ধা যাকে দিয়ে আপসি যুদ্ধ করতে চান সে প্রবেশ করবে। আপনি যাকে যখন চান প্রবেশ করাতে পারবেন। ধরুন একজন প্রবেশ করালেন। এবার তার উপর ক্লিক করুন। তার উপর একটা সবুজ গোল বৃত্ত দেখা গেলে সে এখন একটিভ। এবার তাকে যে জায়গায় নিয়ে যেতে চান ঐখানে ক্লিক করুন। সে অটোমেটিক্যালি চলে যাবে। এক্ষেত্রে একটু সাবধান। সে যাতে পাকিস্তানিদের রেঞ্জের মধ্যে চলে যেতে না পারে সে দিকে লক্ষ্য রাখবেন। এবার আপনি যে পাকিস্তানি সদস্যকে মারতে চান তার উপর ক্লিক করুন। আপনার যোদ্ধা তাকে মেরে ফেলবে।

এখানে দু জন শক্তিশালী পাকিস্তানি থাকে। তাদের মারতে হলে আপনাকে অনেক বেশি সাবধান হতে হবে। প্রথম জন – সে একটা উঁচু জায়গায় দাঁড়িয়ে পুরো এলাকাটা পাহারা দেয়। একে মারতে হলে একসাথে তিন চার জনকে পাঠাতে হয়। দ্বিতীয় জন – সে ধীর গতির আর চলাফেরা করতে অসক্ষম। তবে তার রেঞ্জে একবার চলে আসলে তাকে মারাটা কঠিন। একে মারতে হলে আপনার যোদ্ধাকে লম্বা রেঞ্জের বন্দুক এস এম জি দিতে হবে।

এ ভিডিও গেমের আরেকটা মজার জিনিস আছে। যুদ্ধের সময় উপরে একটা রিট্রেট বক্স থাকবে। ঐখানে ক্লিক করলে আপনি ঐখান থেকে পালিয়ে আসতে পারবেন। এটা শুধু তখনই করবেন যখন আপনি বুঝতেছেন আপনি হেনে যাবেন তখন। তবে আমার মতে এটা না দেয়াই ভালো। কারণ ঐখান থেকে বেরিয়ে আসলে আপনার সব যোদ্ধাই অসুস্থ হয়ে পড়বে। তাদের সুস্থ করতে আপনাকে অনেক কয়েন / শস্য খরচ করতে হবে। সময়ও লাগবে। কয়েন খরচ করলে মুহুর্তেই সুস্থ হয়ে যাবে। আর কয়েন খরচ করতে না চাইলে সময় নিয়ে শস্য দিয়ে তাদের সুস্থ করতে হবে।

এই ভিডিও গেমে আরেকটা জিনিস আছে। আপনি যেমন তাদের আক্রমণ করতে পারবেন, ঠিক তেমনি তারাও আপনাকে আক্রমণ করতে পারে। আক্রমনের আগে স্ক্রিনে একটা সংকেত আসবে। তারা জঙ্গলের দিক থেকে এগিয়ে আসবে। তখন গ্রামবাসীরা সবাই পালিয়ে যাবে। শুধু মুক্তিযোদ্ধাররা থেকে যাবে। শত্রু পক্ষে পাকিস্তানিদের সাথে কিছু রাজাকারও থাকবে। তাদেরই দেখলেই আপনি চিনতে পারবেন। তো তারা ঘরবাড়িতে আগুন লাগিয়ে দিবে। তখন একটা পানির আইকন দেখতে পাবেন। ঐখানে কয়েকবার ক্লিক করলেই আপনি আগুন নিভিয়ে দিতে পারবেন।

এখানে আপনাকে আর কোনো কাজ করতে হবে না। আপনি শুধু তাদের যুদ্ধ দেখবেন। এবার তারা মুক্তিযোদ্ধাদের দিকে এগিয়ে যাবে। মুক্তিযোদ্ধাদের রেঞ্জের মধ্যে ঢুকলে হাট্টা হাড়ি লড়াই চলবে। এখানে পাকিস্তানিরা জিতে গেলে আপনার অনেক কাঠ ও শস্য চুরি হয়ে যাবে। আপনি জিতে গেলে কিছুক্ষণ সব কিছু শান্ত থাকবে। তারপর জঙ্গলের দিক থেকে গ্রামবাসীরা ফিরে আসবে। তারা সবাই নিজেদের কর্মক্ষেত্রে ফিরে যাবে। এবার আপনাকে আরেকটা কাজ করতে হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের হসপিটালে পাঠাতে হবে। কারণ তারা জিতে গেলেও আহত তো হয়েছে। এভাবেই আপনাকে মুক্তি ক্যাম্প গেমটা খেলতে হবে। যদি মুক্তিযুদ্ধের ফিলিং পেতে চান তাহলে বলব অবশ্যই এ গেমটা খেলে দেখবেন।

Read More

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top