ইমেইল মার্কেটিং কি? [বিস্তারিত]

ইমেইল মার্কেটিং ও ডিজিটাল মার্কেটিং

ইমেইল মার্কেটিং এক নতুন ধারণা। বর্তমান ডিজিটাল মার্কেটিং এর এক অবিচ্ছেদ্য অংশ । যাদের ছোটো খাটো নিজস্ব ব্লগ সাইট আছে। তাদের জন্য ইমেইল মার্কেটিং প্রায়োগিক হবে। আবার যাদের নিজস্ব ওয়েবসাইট নেই। তারা ইমেইল মার্কেটিং এর এফিলিয়েট প্রোগ্রামে জয়েন দিতে পারেন। তবে এর জন্য চাই ইমেইল ইউজারদের বিশাল লিস্ট।

ইমেইল মার্কেটিং কিঃ

ইমেইল মার্কেটিং এক ধরনের এফিলিয়েট মার্কেটিং। যখনই অনলাইনে প্রোডাক্ট প্রমোশনের কথা আসবে। তখন এর প্রধান ক্ষেত্রকেই ধরে নিবো এফিলিয়েট মার্কেটিং। এখন ইমেইল মার্কেটিং এর পূর্ণাংগ সংজ্ঞা কি হবে?  ইমেইল মার্কেটিং বলতে বোঝায় গ্রাহকের ইমেইলে যেকোনো প্রমোশন-মূলক বার্তা পাঠানো।

ইমেইল মার্কেটিং এর বেসিকঃ

ইমেইল মার্কেটিং করার আগে নিম্নোক্ত বিষয় মাথায় রাখবেনঃ

১। গ্রাহক আপনার পণ্যের প্রমোশনের সাথে অভ্যস্ত তো? এর মানে আপনি যে থার্ড পার্টি সাইট থেকে ই-মেইল লিস্ট সংগ্রহ করেছেন। সেখানকার ক্লায়েন্টগুলা কি একই বিষয়ে ইন্টারেস্টেড? যে ক্যাটাগরীতে আপনার প্রমোশন করা পণ্যটি পড়ে। কিছু বোঝেন নি? বোঝার দরকার নেই। সবকিছু ঝেড়ে ফেলে দেন। এবার যা বলছি, সেগুলো মনোযোগ দিয়ে শুনুন।

ধরুন, আপনি  একটি জামা প্রমোট করবেন ইমেইল পাঠিয়ে। মেয়েদের কোনো ফ্যাশনেবল জামা। ইমেইল টা কাকে পাঠাবেন আপনি তা জানেন না। আপনাকে কতগুলা ইমেইল সংগ্রহ করতে হবে। যেহেতু আপনার কাছে কোনো ইমেইল এর লিস্ট নেই। কোথা থেকে সংগ্রহ করবেন? এর উত্তরও আপনার অজানা। কিন্তু আমার জানা। না না…এতো সহজে বলে দিবো না। এর আগে ব্যাপারটা বুঝুন।

ইমেইল মার্কেটিং

আপনাকে ৩ টি বিষয় মাথা্য রেখে ইমেইল সংগ্রহ করতে হবে।

১। ইমেইলের সবাই বাংলাদেশি হতে হবে

২।ইমেইলের সবাই মেয়ে বা মহিলা হতে হবে।

৩। ইমেইলের সবাই ফ্যাশনের প্রতি ইন্টারেস্টেড হতে হবে।

আমি শুধুমাত্র প্রাসংগিক ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে বললাম। আপনি যে প্রোডাক্ট প্রমোট করবেন।

সে প্রোডাক্টের ভিত্তিতে মার্কেটিং পরিকল্পনা নিবেন।

ধরুন, তারপর নিয়ে নিলেন এক বিশাল ইমেইল-লিস্ট। এখন ইমেইল পাঠানোর পালা। দাড়ান, এখনই পাঠিয়ে নিজের পণ্যের প্রমোট শুরু করে দিবেন? ওহু, এখন না। যদি এমনিতেই পণ্যের প্রমোটের জন্য মেইল করা শুরু করে দেন। তাহলে ২টি কাজ সংঘটিত হবেঃ

১।আপনার ইমেইল স্প্যাম ফোল্ডারে চলে যাবে।

২। আপনি রিপোর্ট খাবেন।

তাহলে উপায় কি? উপায় আছে। এর জন্য আপনাকে নিম্নোক্ত ব্লগ হতে সমাধান খুজে নিতে হবে। যেখানে ইমেইল মার্কেটিং এর জন্য ফ্রী টুল ও তাদের ব্যবহার নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। ইমেইল মার্কেটিং টুল ব্যবহারে আপনার মেইল স্প্যাম ফোল্ডারে যাবে না। এক সাথে হাজার হাজার মেইল করতে পারবেন।

ব্লগটি না পড়ে, মোটেও গুগলে গিয়ে Free Email Marketing Tool লিখে সার্চ দিতে যাইয়েন না। এতে সুবিধার চেয়ে অসুবিধারই  সৃষ্টি হয়ে যাবে। ইমেইল মার্কেটিং টুল কোথায় পাবেন, তা জানতে নিচের লেখাটি পড়ুন।

 

একটু পড়ুনঃ

আমার নিজের ব্লগসাইট। সেখানে অনলাইন আয়, আউটসোর্সিং, মার্কেটিং, ফিন্যান্স নিয়ে লাগাতার আর্টিকেল লেখা হয়।  সেখানে গিয়ে অন্তত ভিজিট করে আসার অনুরোধ করতে পারি।

ভিজিট করে আসুনঃ  Expert Bangladesh: উন্নতির চরম শিখরের খুঁজে । ঐখানে আমি অলরেডি ইমেইল মার্কেটিং টুল নিয়ে আলোচনা করেছি। ব্লগে গিয়ে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন।

চলুন আগের কথায় ফিরে আসি। যদি আপনার একটি ব্লগ সাইট থাকে। দেখুন, সেখানে কতজন ভিজিটর নিজেদের ইমেইল দিয়ে আপনার ব্লগ সাইটটি সাবস্ক্রাইব করেছে। তাদের ইমেইল আপনি পণ্যের বিজ্ঞাপন এর জন্য ব্যবহার করতে পারেন। আবার নিজের কন্তেন্ট মার্কেটিং এর জন্য ব্যবহার করতে পারেন।

ইমেইল মার্কেটিং এর ডেস্ক্রিপশন কি হবে?

সুন্দর গুছিয়ে ডেস্ক্রাইব করতে পারলে ভালো। সাথে পণ্যের আকর্ষনীয় ইমেজ মাস্ট থাকতে হবে। আর হ্যা, একজন কপিরাইটারকে ব্যবহার করা গেলে ভালো হতো।কিন্তু ইউজারদের ইমেইল লিস্ট-করে সেখানে মেইল করতে সময়ের প্রয়োজন হয়।

যদি আপনার  কোনো ব্লগ সাইট থাকে। তাইলে আপনি একটি অপশনাল ফরম তৈরি করতে পারেন । যেকোনো গুগল ফর্ম। যেখানে আপনার পাঠকদের কে কোনো Weekly Newsletter সাবস্ক্রাইব করার জন্য  অনুরোধ করতে পারেন। এতে করে ঐ ইমেইল ঠিকানা টি আপনার নিজের ব্লগ সাইটের সাথে কানেক্ট হয়ে যাবে। নিজের কোনো ইমেইল লিস্ট গড়ে তুললে সবচেয়ে ভালো।

গড়ে,১-৩ দিন সময় লাগে একটি ইমেইল লিস্ট বানাতে।

expertbd.xyz

ইমেইল মার্কেটিং করে আয় করতে চান?

আপনি কি ইমেইল মার্কেটিং-এ কোনো প্রোডাক্ট প্রমোট করতে চান না? বরং আয় করতে চান? তাহলে এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারবেন । ইমেইল মার্কেটিংও করতে পারেন। এরজন্য আপনাকে  অন্ততপক্ষে ২-৩ হাজারে ইমেইল লিস্ট সংগ্রহ করে রাখতে হবে। নেই? তাহলে কে আসবে আপনার কাছে এফিলিয়েট এর জন্য?

তারপর আপনি যদি কোনো এফিলিয়েট মার্কেটপ্লেস এ জয়েন থাকেন ।  সেখানে দেয়া যেকোনো একটি প্রোডাক্টের সেল করিয়ে দিতে হবে। সেটি আপনি বুদ্ধি করে ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে সেল করালে পারেন।  ডেসিক্রিপশনে নিজের এফিলিয়েট লিংক থাকা চাই। আপনার লিংকে কেউ ক্লিক করে, প্রোডাক্ট কিনলে। সাথে সাথে প্রোডাক্টটির লাভের সর্বোচ্চ ৪০ ভাগ আয় হবে।

কিভাবে কাজ করবেনঃ

১)প্রমোশনাল মেইল গুলো আপনার ইউজার বা সংগ্রহ করা ইমেইল লিস্টে পাঠাতে হবে। যেখানে কারো প্রোডাক্ট প্রমোশনের পাশাপাশি, নিজের এফিলিয়েট লিংকটিও অন্তর্ভুক্ত করা থাকবে।

এফিলিয়েট প্রোগ্রা্মে জয়েন করতে চাইলে, এমাজনে যান। ওখানে এমাজন এফিলিয়েট প্রোগ্রামে জয়েন দিন।

২)যত বেশি ইমেইল লিস্ট সংগ্রহ করা থাকবে। তত বেশি  প্রোডাক্ট প্রমোশন এর সম্ভাবনা থাকবে। আবার আপনার এফিলিয়েট লিংকে ক্লিক করার সম্ভাবনাও বেশি থাকবে। আর প্রোডাক্টটির কেনার হারও হবে বেশি ।

আয় ও ক্যাশ-আউটঃ

কমপক্ষে ১০০০টি ই-মেইল করলেই ইনকাম হবে অন্তত ২৫ডলার।  মানে হলো ২২০০ টাকার মতো। ক্যাশ-আউট করতে পারেন BDcoinex থেকে। ওখানে ডলার বিকাশে কনভার্ট করা হয়ে থাকে।

Read More

2 thoughts on “ইমেইল মার্কেটিং কি? [বিস্তারিত]”

  1. অনেক সুন্দর ভাবে লিখেছেন ভাই। অনেক তথ্য বিহুল ছিলো এবং গুছানো লিখা।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top