ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার গাইডলাইন!

আপনি হয়ত ফেইসবুক বা আপনার কোন বন্ধু বান্ধব এর কাছ থেকে ফ্রিল্যান্সিং শব্দটি শুনেছেন। গুগল করে এ বিষয়ে একটু খোঁজখবর ও নিয়েছেন এবং আপনার ফ্রিল্যান্সিং করার আগ্ৰহ আছে। কিন্তু সঠিক গাইডলাইন এর অভাবে শুরু করতে পারছেন না।আর তাই যদি হয় তাহলে আজকের পোস্ট টি আপনার জন্য।

কারন আজকের এই আর্টিকেল এ ফ্রিল্যান্সিং এর A-Z গাইডলাইন বলা হয়েছে।তাই কোথাও না গিয়ে মন দিয়ে আর্টিকেল টি পরুন।

এই আর্টিকেল এ যা যা থাকছে:-

  • ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং কি?
  • ফ্রিল্যান্সিং এ ক্যরিয়ার কেমন?
  • ফ্রিল্যান্সারা কোথায় কাজ করে?
  • ফ্রিল্যান্সিং করতে কি কি যোগ্যতা লাগে?
  • ফ্রিল্যান্সারা কোন কাজ গুলো করে?
  • কোন কাজটা শিখব বা কোন কাজ টা করে বেশী ইনকাম করা যায়।
  • ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব?
  • ফ্রিল্যান্সিং শিখতে কতদিন সময় লাগে?
  • কেন সবাই ফ্রিল্যান্সিং এ সফল হতে পারে না।

ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং কি?

আমরা সবাই যারা এই আর্টিকেল টি পরছি তার মোটামুটি সবাই জানি যে ইন্টারনেটের মাধ্যমে কাজ করে টাকা ইনকাম করাটাকে আউটসোর্সিং বা ফ্রিল্যান্সিং বলে।আসলে ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং দুটি ভিন্ন জিনিস। কারন যখন কোন একটা কম্পানি বা বায়ারের অফিস এ তাদের কাজ করার মতো যথেষ্ট লোক না থাকে বা কম টাকায় করিয়ে নিতে চায় তখন তারা বাহিরের লোক খেজে তাদের কাজ টা করে দেওয়ার জন্য এবং তারা বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস এ জব পোস্ট করে এবং সেখান থেকে লোক হায়ার করে কাজ টা করিয়ে নেয় এবং বিনিময়ে তাকে কিছু টাকা দেয়।এটাই মুলত ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং এর পদ্বতি। এইখানে যে লোকটা কাজ টা করিয়ে নিচ্ছে সে আউটসোর্স করছে এবং যে কাজ টা করে দিচ্ছে সে ফ্রিল্যান্স করছে।

তো আমারা ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং এর বিষয়টি বুঝতে পারলাম।

ফ্রিল্যান্সিং এ ভবিষ্যত কেমন :

আমাদের দেশে অনেকেই  জানে না যে ফ্রিল্যান্সিং জিনিসটা কি। ফ্রিল্যান্সিং এখন বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত একটি মুক্ত পেশা।

কিন্তু  মানুষ  ভাবে যে ফ্রিল্যান্সিং এ ভালো কোন ক্যরিয়ার নেই। কিন্তু আসলে বাংলাদেশের বেসরকারি চাকরির চাইতে ফ্রিল্যান্সিং এ ক্যরিয়ার আরো বেশি ভালো কারন একজন ফ্রিল্যান্সার এর মাসিক আয় একজন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এর কর্মচারীর মাসিক আয়ের থেকে কম না।আর একজন ফ্রিল্যান্সার আর যাই হোক কোনদিন ভাতে মরবে না। বাংলাদেশের লোকজন

বেশিদিন হয় নাই ফ্রিল্যান্সিং এর সাথে যুক্ত হয়েছে কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং এর শুরুটা সেই ২০০০ সালের আগ থেকেই হয়েছে এবং সেই থেকে কোটি কোটি মানুষ ফ্রিল্যান্সিং করে জিবিকা নির্বাহ করছে এবং প্রতিটি মার্কেটপ্লেসে প্রতিনিয়ত ফ্রিলানসারদের  এর চাহিদা বাড়ছে।

আতএব বলা যায় ফ্রিল্যান্সিং এ ভালো একটি ভবিষ্যত আছে। বাংলাদেশের অনেক ছেলেমেয়েরা পরশুনা শেষ করে চাকরি পায় না বেকার ঘুরে কিন্তু তারা চাইলে ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে মাসিক খুব ভালো একটা ইনকাম করতে পারে ও বাংলাদেশ এর বেকারত্ব দুর করতে পারে।

 ফ্রিল্যান্সারা কোথায় কাজ করে :

ফ্রিল্যান্সার দের সবচেয়ে বেশী সুবিধা হলো তাদের কাজ করার জন্য ঘরের বাহিরে যেতে হয় না। ফ্রিল্যান্সিং এর কাজগুলো ঘরে বসেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা যায়। ইন্টারনেট এ অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে বিভিন্নদেশের বায়ারা এসে তারা কি কাজ করাতে চায় সে সম্পর্কে বিস্তারিত লিখে জব পোস্ট করে করে এবং  যে কাজটি করতে চায় সে সেখানে গিয়ে বিড করে এবং কথাবার্তা বলে কাজ টি নিতে পারবে। কাজ টি শেষ হওয়ার পর

ফ্রিল্যান্সার কাজ টি বায়ারকে জমা  দেয় এবং বায়ার মার্কেট প্লেসে টাকা প্রেমেন্ট করে যার ফলে ফ্রিল্যান্সার খুব সহজেই মার্কেটপ্লেস থেকে টাকা নিয়ে নেয় এবং টাকা মার যাওয়ার কোন ভয় থাকে না।আবশ্য এই মার্কেট প্লেস গুলো তাদের একটা কমিশন রেখে দেয়।

এইরকম কিছু মার্কেটপ্লেস হলো:-

  1. Upwork.com
  2. Freelancer.com
  3. Fiver.com

এখানে কাজ করতে হলে আপনাকে এখানে ফেইসবুক এর মতো করে একটা একাউন্ট খুলতে হবে।

এবং আপনি যে কাজটি করতে চান সেই কাজের কিছু সম্প্যল আপনাকে জমা দিতে হবে।একে প্রোরটফলিও বলে। এছাড়া আপনার যা যা ডিটেইলস চায় তা দিয়ে সুন্দর করে প্রোফাইল টি সাজিয়ে নিতে হবে। কারন বায়ার কাজ দেওয়ার আগে আপনার প্রোফাইল টি ঘুরে দেখবে যদি বায়ারের আপনার প্রোফাইল দেখে ভালো না লাগে তাহলে কাজ দিবে না।তাই প্রোফাইল টি ভালো করে সাজিয়ে নিতে হবে।

ফ্রিল্যান্সিং করতে কি যোগ্যতা লাগে :

সাধারণত আন্যান্য চাকরি করতে গেলে হাজার টা সার্টিফিকেট লাগে‌। কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং এ সবচেয়ে মাজার বিষয় হলো এটা করতে কোন সার্টিফিকেট লাগে না।যে কেউ চাইলে ই এটা করতে পারে।

তবে আপাকে যেকোন নির্দিষ্ট একটি কাজ জানতে হবে। কাজ করার জন্য একটি কম্পিউটার ও নেটকানেকশন লাগবে।

আর হ্যা সাথে ইংরেজী ও জানতে হবে। কারন আপনি যখন বায়ারে কাছ থেকে কাজ নিবেন তখন তো আপনার তার সাথে কমিনিকেশন করতে হবে না হলে আপনি তার সাথে কাজ কিভাবে করবেন।

ফ্রিল্যান্সারা কি কি কাজ করে:

ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস এ হাজারো ধরনের কাজ পাওয়া যায়।তাই বলে একজন ফ্রিল্যান্সার সব কাজ গুলো ই করেনা সে নির্দিষ্ট কোন একটি কাজ শিখে যায় এবং সেটাই সে করে।এর মধ্যে জনপ্রিয় কিছু কাজ হলো:

  • ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট
  • ভিডিও এডিটিং
  • ডাটা এন্ট্রি
  • 3D ডিজাইন
  • এস ই ও
  • মার্কেটিং এর কাজ
  • ভার্চুয়াল এসিস্ট্যান্ট
  • কন্টেন্ট রাইটিং
  • ডিজাইনিং এর কাজ
  • আ্যপ ডেভেলপমেন্ট

এছাড়া আরো অনেক কাজের ক্যটাগ‌্যরি আছে আবার সেই ক্যটাগরির সাব ক্যটাগ্যরি আছে। ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস এ কাজের শেষ নাই।

আমি কোন কাজ টি শিখব বা কোন কাজটি করলে বেশি ইনকাম করা সম্ভব:

আপনি আপনার ইচ্ছামতো যেকোন কাজ শিখতে পারেন। কিন্তু যে কাজটি  শিখন না কেন সেটা ভালো করে শিখবেন। কারন বায়ার তাকেই চায় যে তার কাজটি ভালোভাবে করে দিতে পারবে।যে কাজ করে তার চাইতে যে কাজ করায় তার দরকার বেশি।তাই আপনি কাজে ভালো হলে আপনার একটা আন্য রকম চাহিদা থাকবে এটা ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস ও চাকরি বাজার সব জায়গাতেই।তাই সব গুলো কাজ না শিখে একটা

কাজ ভালো করে শিখুন আর তা দিয়েই হাজার হাজার ডলার ইনকাম করতে পারবেন। ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস এ সব কাজেরই চাহিদা আছে।আর সব বায়ার এমন লোক খোঁজে যে ভালো কাজ যানে।

ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব :

সবই তো বললাম এবার আসি আপনি ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখবেন। আজকাল অনেক আ্যড দেখা

যায় ৫০০০ টাকা ৩০০০ টাকা ২০০০ টাকায় ফ্রিল্যান্সিং শিখুন।তো এর মধ্যে আপনি কোন কোর্সটা  করবেন। এখানে একটু খেয়াল করুন তো ফ্রিল্যান্সিং শিখাবে। আচ্ছা ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখাবে। ফ্রিল্যান্সিং কি পুরো বিষয়টি আমি উপরে আলোচনা করেছি এখানে মার্কেট প্লেস এ একটি একাউন্ট করতে হয় তারপর নিজের প্রোফাইলটিকে সব ডিটেইল দিয়ে সাজাতে হয় এবং জবপোস্ট গুলোতে বিড করে বায়ারের কাছ থেকে কাজ নিয়ে কাজটি করতে হয় এবং কাজ শেষে বায়ার আপনাকে প্রেমেন্ট করবে। এখানে শেখার কি আছে বা শেখানো কি আছে। আপনি যদি একাউন্ট করতে বা প্রোফাইল সাজাতে না পারেন কোথাও আটকে যান তাহলে একটু গুগল করলে বা ইউটিউব এ সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন। আপনাকে যা শিখতে হবে তা হলো কাজ শিখতে হবে

তো আপনার যে কাজটি পছন্দ আপনি শিখতে চান তা আপানি ইউটিউব দেখে শিখতে পারবেন। ইউটিউব এ যথেষ্ট টিউটোরিয়াল আছে।তাই এই প্রতারক গুলো থেকে দুরে থাকুন ও নিজে নিজে চেষ্টা করুন বেশি কঠিন কিছু না। মানুষে চাইলে সবকিছু ই পারে।আর যদি কোথাও আটকে যান তাহলে তো ইউটিউব গুগল আছেই এছাড়া ফেইসবুকএ এই রিলেটেড আনেক গুরুপ আছে সেখানে পোস্ট করলেও আপনি সাহায্য পেয়ে যাবেন।

কেন সবাই ফ্রিল্যান্সিং এ সফল হতে পারে না:

আনেকেই ফ্রিল্যান্সিং করে সফল হতে পারে না।

এর অনেক কারন আছে। একজন ফ্রিল্যান্সার এর সবচেয়ে বেশি যে জিনিসটা লাগে তা হলো ধৈর্য। কারন এই সেক্টরে ধৈর্য ছাড়া সফল হওয়া সফল হওয়া সম্ভব না। কারন কাজ শিখতে হবে মার্কেটপ্লেস থেকে কাজ নিতে হবে। প্রথমদিকে মার্কেটপ্লেস এ কাজ পাওয়া একটু কঠিন কিন্তু একটু টাইম ধরে লেগে থাকলে কাজ পাওয়া কোন ব্যপার না। কাজ জানলে প্রোজেক্ট পাওয়া ওয়ান টু এর ব্যপার।তাই এই সেক্টরে সফল হতে হলে ধৈর্য্য ধরে লেগে থাকতে হবে।

একটা কথা আছে না সবুরে মেওয়া ফলে এখানকার ব্যপারটাও ঠিক সেরকম। এছাড়া আনেকে আছে ভালো ইংরেজি জানে না না যেটা বড় একটা সমস্যা।কারন আপনি যদি বায়ার এর চাহিদাটাই না বুঝেন তাহলে কাজ কিভাবে করবেন।

Read More

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top