৪ টি উপায়ে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করুন মুহুর্তেই

কিভাবে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করবেন ? জাতীয় পরিচয় পত্র একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস। অনেক সময় সরকারি-বেসরকারি বা অফিসের কাজের জন্য ভোটার আইডি কার্ড সঠিক কিনা তা যাচাই করার প্রয়োজন হয়।

যাতে করে কেউ প্রতারণার না করতে পারে বা অন্যজনের নাম দিয়ে নিজে কোনো সেবা গ্রহণ করতে না পারে সেজন্য আমাদের ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করার প্রয়োজন প্রত্যেকটি সেক্টরে। কেননা বর্তমানে বাংলাদেশের প্রত্যেকটি নাগরিকের জন্য একটিমাত্র ভোটার আইডি কার্ড থাকে।

অনেক সময় দেখা যায় বিভিন্ন সেবা সার্ভিস নেয়ার জন্য অনেকেই ডুবলিকেট আইডি কার্ড ব্যবহার করে থাকে। যদি সম্পূর্ণ অবৈধ এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এক্ষেত্রে যদি আমরা সকলেই একটু সচেতন হই তাহলে আমরা অনেকাংশে দুর্নীতি কমিয়ে আনতে পারব।

বন্ধুরা আজকে এই আর্টিকেলে আমি দেখাবো কিভাবে চারটি উপায় ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করতে পারবেন।

৪ টি উপায়ে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করুন মুহুর্তেই
৪ টি উপায়ে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করুন মুহুর্তেই

৪টি উপায়ে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই

আপনার কাছে যখন কোন ব্যক্তি অপরিচিত থাকবে বা তাকে সন্দেহজনক মনে হবে সেক্ষেত্রে তার ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করেই তার সঠিক পরিচয় মুহূর্তেই পেয়ে যাবেন। আপনি যাতে সহজে একজন ব্যক্তির ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করতে পারেন তার জন্য আমি নিম্নে চারটি মাধ্যম উল্লেখ করেছি।

১। ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করার প্রথম পদ্ধতি

আপনি চাইলে খুব সহজেই অনলাইনের মাধ্যমে আপনার মোবাইল দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করে নিতে পারবেন। এজন্য আপনাকে কয়েকটি স্টেপ ফলো করতে হবে।

যেমন:

প্রথম স্টেপ: প্রথমে যে কোন একটি ব্রাউজার ওপেন করে গুগলে সার্চ করতে হবে Bangladesh NID Application System অথবা এখানে ক্লিক করে সরাসরি ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারবেন। নিচের চিত্রের মত একটি পৃষ্ঠা ওপেন হবে।

৪ টি উপায়ে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করুন মুহুর্তেই
৪ টি উপায়ে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করুন মুহুর্তেই

দ্বিতীয় স্টেপ:

  • অতঃপর এখানে রেজিস্ট্রেশন করুন বাটনে ক্লিক করে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর এবং জন্মতারিখ দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।
  • রেজিস্ট্রেশন এর দ্বিতীয় পৃষ্ঠা এসে আপনার বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানা ড্রপডাউন মেনু থেকে নির্ধারণ করে দিতে হবে।
  • যদি আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বরও জন্ম তারিখ এবং ঠিকানা ঠিক থাকে তাহলে পরের পেজ ওপেন হবে।  আর যদি ভুল থাকে তাহলে ওপেন হবে না।
  • এবং পরবর্তী পৃষ্ঠা তে গিয়ে মোবাইল দিয়ে আপনার ছবি ডান-বাম এবং সোজা তিনটি অ্যাঙ্গেলে স্ক্যান করতে হবে।
  • যদি এনআইডি তথ্যের সাথে আপনার ছবির মিল হয় তাহলেই আপনার এনআইডি কার্ডের সকল তথ্য দেখতে পাবেন। এবং চাইলে এখান থেকে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র টি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করার ক্ষেত্রেও আপনারা এই ওয়েবসাইটটি ব্যবহার করে জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করতে পারবেন। হারানো জাতীয় পত্র উত্তোলন করতে পারবেন।

এভাবে প্রথম নিয়মে নিয়মে আপনারা ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করতে পারবেন।

এখন আলোচনা করছি ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করার দ্বিতীয় পদ্ধতি।

আরও পড়ুন: সম্পূর্ণ নতুন নিয়মে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করুন এখনি।

২। ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করার দ্বিতীয় পদ্ধতি

ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করার দ্বিতীয় পদ্ধতিটি ও অনলাইনে করা যায়। এই পদ্ধতিতে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করার জন্য নিচের নিয়ম গুলো ফলো করুন।

প্রথমে গুগলে গিয়ে সার্চ করতে হবে prottoyon gov bd অথবা এখানে ক্লিক করুন। অতঃপর নিচের মত একটি পৃষ্ঠা ওপেন হবে। এ কাজটি ল্যাপটপ কম্পিউটার বা মোবাইল যেকোন ডিভাইস দিয়ে করা যাবে শুধুমাত্র প্রয়োজন হবে ইন্টারনেট কানেকশন।

জাতীয় পরিচয়পত্র চেক করার নিয়ম
জাতীয় পরিচয়পত্র চেক করার নিয়ম

উপরের ছবিটি দেখে লাল চিহ্নিত ফ্রি রেজিস্ট্রেশন করুন বাটনে ক্লিক করে নাগরিক রেজিস্ট্রেশন বাটনে ক্লিক করে রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হবে করে নিতে হবে।

নিচের ছবির মত রেজিস্ট্রেশন ফরম টি ওপেন হবে।

জাতীয় পরিচয় পত্র চেক করার নিয়ম। 1 মিনিটেই জেনে নিন ভোটার তথ্য 2023
৪ টি উপায়ে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করুন মুহুর্তেই

রেজিস্ট্রেশন এর ধাপসমূহ:

  • প্রথমেই জাতীয় পরিচয় পত্রের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন বাটন এ ক্লিক করতে হবে।
  • অতঃপর সঠিক ভাবে আপনার 10-digit অথবা 17 ডিজিটের জাতীয় পরিচয় পত্র নম্বর প্রবেশ করাতে হবে। আপনার ভোটার আইডি কার্ড যদি 13 ডিজিটের নম্বর থাকে সেক্ষেত্রে নম্বরের পূর্বে জন্মসাল করে 17 ডিজিট করে নিতে হবে।
  • তারপর ড্রপডাউন মেনু থেকে সঠিকভাবে জন্ম তারিখ নির্ধারণ করে নিতে হবে।
  • অতঃপর আপনার 11 ডিজিটের একটি মোবাইল নম্বর দিতে হবে। (এই নম্বরে ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড এসএমএস আসবে)
  • অতঃপর নিবন্ধন করুন বাটনে ক্লিক করে রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনার মোবাইলে একটি ওটিপি আসবে এবং সেটি পরবর্তী পেজ এর ওটিপি কনফার্মেশন বক্সে সাবমিট করতে হবে।
৪ টি উপায়ে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করুন মুহুর্তেই
৪ টি উপায়ে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করুন মুহুর্তেই
  • রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়ে যাওয়ার পর জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য প্রিন্ট  ট্যাবে ক্লিক করতে হবে।
  • এবং সেখানে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র এবং জন্ম তারিখ দিয়ে প্রিন্ট করুন বাটনে ক্লিক করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনাকে 21 টাকা পেমেন্ট করতে হবে। আপনি চাইলে পেমেন্ট প্রসেসিং করার পর পেমেন্ট করার আগ মুহূর্তে পেমেন্ট ক্যানসেল করে দিতে পারেন।
  • তারপর জাতীয় পরিচয় পত্রের আবেদন সমূহ ট্যাবে ক্লিক করতে হবে।
  • এবার আপনি জাতীয় পরিচয় পত্রের আবেদন সমূহের লিস্ট এর নিচে প্রিন্ট করুন নামে একটি অপশন পাবেন। এই অপশনে ক্লিক করার সাথে সাথে জাতীয় পরিচয় পত্রের অনলাইন কপি ডাউনলোড হয়ে যাবে

এভাবে আপনারা চাইলে দ্বিতীয় পদ্ধতিতে ভোটার তথ্য চেক করতে পারেন।

৩। ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করার তৃতীয় পদ্ধতি

ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করার তৃতীয় পদ্ধতিও অনলাইনের মাধ্যমে আইডি কার্ড চেক। (NID Card check Online)।

এ পদ্ধতিতে চেক করার জন্য প্রথমে গুগল সার্চ অপশন এ গিয়ে সার্চ করতে হবে land gov bd । অথবা এখানে ক্লিক করুন। এখন নিচের স্টেপগুলো ফলো করুন।

  • প্রথমেই land.gov.vd তে প্রবেশ করার পর নাগরিক কর্নার নামে একটি অপশন পাবেন সেখানে ক্লিক করতে হবে।
  • অতঃপর উক্ত ট্যাব এর আন্ডারে ভূমি উন্নয়ন কর নামে একটি অপশন পাবেন সেখানে প্রবেশ করতে হবে। এবং এই পৃষ্ঠাতে এসে নাগরিক কর্ণার নির্ধারণ করে রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হবে।
  • এক্ষেত্রে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য আপনার মোবাইল নম্বর, জাতীয় পরিচয় পত্র নম্বর এবং জন্ম তারিখ দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হবে।
  • রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়ে গেলে পরবর্তী পৃষ্ঠাতে ছবি সহ জাতীয় পরিচয়পত্রের সকল তথ্য দেখতে পাবেন।

আপনি চাইলে এই পদ্ধতিটি ও অবলম্বন করে যেকোনো জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই করতে পারেন। এছাড়াও ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করার জন্য আরও বেশকিছু মাধ্যম রয়েছে।

আপনার যদি অনলাইন মাধ্যম গুলো ভালো না লাগে বা জটিল মনে হয় সে ক্ষেত্রে আপনি চাইলে চতুর্থ মাধ্যমটি অবলম্বন করতে পারেন।

৪। ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করার চতুর্থ পদ্ধতি

এ পদ্ধতিটি আপনার অনলাইনে ঘাটাঘাটি করতে হবে না। আপনি সরাসরি নির্বাচন অফিসে চলে যান এবং ডিউটিরত যেকোনো অফিসারকে বলুন আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য প্রয়োজন।

এক্ষেত্রে যদি ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর থাকে তাহলে খুব সহজেই তারা যাচাই করে দেবে। আর যদি ভোটারের কোনো তথ্য না থাকে সে ক্ষেত্রে সেখানে গিয়ে আপনার এরিয়ার ভোটার লিস্ট থেকে আপনার ভোটার নম্বর খুঁজে বের করতে হবে।

অতঃপর তাদেরকে সেনাপতি দিলেই তারা খুব সহজেই যাচাই করে দেবে।

তো বন্ধুরা জাতীয় পরিচয়পত্র অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ডকুমেন্টস কিন্তু কিছু কিছু অবহেলার কারণে এই মূল্যবান ডকুমেন্টটি অনেকে হারিয়ে ফেলেন। বা অনেকেই রয়েছেন যাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্রে কোনো তথ্য নেই। এটা খুবই দুঃখজনক একটি ব্যাপার।

সর্বপরি আমার পরামর্শঃ

জাতীয় পরিচয় পত্র সম্পর্কে আপনার যদি কোন মতামত থাকে বা ভোটার আইডি সংক্রান্ত জটিলতার মধ্যে থাকেন তাহলে আমাদের কমেন্ট করে জানান। মনে রাখবেন যত সমস্যা রয়েছে তার সমাধানও রয়েছে।

ভোটার আইডি কার্ড সংক্রান্ত যেকোনো পরামর্শ, তথ্য, বা সহযোগিতা পেতে আমাদের কমেন্ট করুন। আপনার কমেন্ট অনুসারে আমরা পরবর্তী পোষ্টে বা সরাসরি ইউটিউব ভিডিওর মাধ্যমে আপনাকে সহযোগিতা করার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ। সবাই ভাল থাকবেন। আল্লাহ হাফেজ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap