অনলাইন ইনকাম এর ট্রাস্টেড সাইট- বিস্তারিত জানুন!!

অনলাইন ইনকাম এর ট্রাস্টেড সাইট 2021, আপনী কী অনলাইনে ইনকাম করতে চান? যদি উত্তর হ্যা হয় তাহলে এই আর্টিলটি আপনার জন্য। কীভাবে অনলাইনে আয় করা যায় এখানে বিষদভাবে তুলে ধরা হয়েছে। আরও রয়েছে অনলাইনে আয়ের ট্রাষ্টেড সাইট 2021।

অনলাইনে তো এখন সবাই ইনকাম করতে চায়। কিন্তু সবার এই চাওয়াটাকেই যেন দুরাশা করে দেয় কিছু ভুয়া সাইট কিংবা লোক। যার কারণে অনলাইন ইনকাম সনন্ধে অনেকের মনেই আজ ধোঁয়াশা।

আপনিও হয়তো তাদেরই একজন কেননা অনলাইন এ প্রথমবার ইনকাম করতে এসে ধোঁকা খায় নি, এমন মানুষকে পাওয়া সত্যিই কঠিন। যাই হোক সেদিকে আর এগুচ্ছি না যা হয়েছে তা হয়েছে । অতীতকে ভুলে যান, তবে এমন ভুলেন যাবেন যাতে বারবার আপনাকে ঐ একই ভুল এর শিকার হতে হয়। আমি এমনভাবে ভুলতে বলছি যাতে আপনি তা থেকে কিছুটা শিক্ষা নিতে পারেন।

অনলাইনে আয়ের ট্রাষ্টেড সাইট
অনলাইনে আয়ের ট্রাষ্টেড সাইট

তো আজকে আমরা আলোচনা করব অনলাইন ইনকাম এর  ট্রাস্টেড সাইট সম্পর্কে। আর এটাও বলে রাখচি এটা কোনো গুজব নয়। আপনাকে আগের বারের মতো ধোঁকা খেতে হবে না। তো সাথেই থাকুন অনলাইন ইনকাম এর এই ট্রাস্টেড সাইটগুলো সম্পর্কে জানতে। যাতে করে পরের বার যখন এই সেক্টরে আসবেন তখন যেন খুব সহজেই নিজের আয় টা শুরু করতে পারেন। তো চলুন শুরু করা যাক আমাদের ট্রাস্টেড সাইটগুলোর মূল আলোচনা-

অনলাইন ইনকাম এর ট্রাস্টেড সাইট

Upwork.com

অনলাইনে ইনকামের সাইটগুলোর মধ্যে  জনপ্রিয় একটি সাইট হলো upwork.com। এই মার্কেটপ্লেসে বর্তমানে লক্ষ লক্ষ ফ্রিল্যান্সার প্রতিনিয়ত ইনকাম করছেন।

এই ওয়েবসাইটটি থেকে ইনকাম করতে চাইলে অবশ্যই আপনাকে কোনো না কোনো একটি বিষয়ে দক্ষ হতে হবে। কেননা দক্ষতা ছাড়া আপনি কোন কাজ সম্পন্ন করতে পারবেন না। তাই আপনি যদি আপনার ডটকম থেকে ইনকাম করতে চান তাহলে অবশ্যই যে কোন একটি বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করে তারপর কাজে নেমে পড়ুন।

Upwork.com এ মোট 37 টি ক্যাটাগরির জব রয়েছে আপনি তার যেকোনো একটি করতে পারেন। আপনাকে সব গুলো শিখতে হবে এমনটি নয়।

Upwork.com সবচেয়ে পপুলার যে ক্যাটাগরিগুলো রয়েছে তা হলো, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, আর্টিকেল রাইটিং, অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট, লোগো ডিজাইন, ইত্যাদি।

আরও পড়ুনঃ

Freelancer.com

বহুল পরিচিত এবং জনপ্রিয় অনলাইন মার্কেটপ্লেস গুলোর মধ্যে freelancer.com একটি বিশ্বাসযোগ্য সাইট। এখানে লক্ষ লক্ষ ফ্রিল্যান্সার তাদের দক্ষতা অনুযায়ী প্রতিনিয়ত ইনকাম করে আসছেন। সকল ফ্রিল্যান্সারদের জন্য এটি একটি নির্ভরযোগ্য সাইট।

এখানে প্রায় 38 টি ক্যাটাগরির কয়েক হাজার জব পোষ্ট হয় প্রতিদিন। এবং এখান থেকে 10 হাজার টাকা থেকে শুরু করে কয়েক লক্ষ টাকা আয় করছে অনেকে।

freelancer.com শুধু একাউন্ট করে কাজের জন্য আবেদন করতে পারবেন। এবং কাজ শেষে পেমেন্ট পেয়ে যাবেন।

কিন্তু এখানে কাজ কাজ পেতে হলে প্রথমে আপনাকে যে কোন একটি বিষয়ে দক্ষতা অর্জনে করতে হবে । এবং প্রথম অবস্থায় কাজ পাওয়াটা একটু কঠিন। কিন্তু লেগে থাকলে আর ভালো দক্ষতা থাকলে আপনিও এখান থেকে প্রতি মাসে ভালো টাকা আয় করতে পারবেন।

Fiverr

ফাইভার মানে পাচ ডলার আপনি যেই হয়ে থাকুন না কেন। কেননা ফাইভার এ সকল কাজ এর রেট শুরু হয় ৫ ডলার থেকেই। তার মানে দাড়াচ্ছে আপনি একটি কাজ করলেই ৪০০ টাকা পেয়ে যাবেন নিমেষেই। আর ফাইভার এও রয়েছে  হাজার হাজার কাজ।

এখানে মানুষ তাদের যে কোন সার্ভিস নিয়েই জব পোস্ট করতে পারে। এখানে মূল জিনিসটি যা তা হলো গিগ । গিগ অর্থ এমন একটি জিনিস যা আপনার সার্ভিস সমন্ধে ক্লায়েন্টকে অবগত করতে সক্ষম হবে। আপনি যদি একটু ফাইভারে গিয়েই দেখেন তাহলেই বুঝতে পারবেন এখানে মূলত কি হচ্ছে।

অনেকেই যেহেতু এখানে নিজের কর্ম সংস্থান খুঁজে নিয়েছে তাই আপনিও পারবেন। আর ফ্রি-ল্যান্সার হিসাবে নতুন দের জন্য ফাইভার মানেই এক আলাদা চান্স। তাই সময় থাকতেই নিজেও নিজের সার্ভিসটি ফাইভারে গিগ আকারে প্রকাশ করতে পারেন, বিস্তারিত- Fiverr

Mechanical Turk

অ্যামাজন এর দ্বারা পরিচালিত একটি সাইট হলো Mechanical Turk । তো আপনি এর সমন্ধে সন্দেহ করার কোনো অবকাশই রাখেন না। আর মূল কথা হলো যে কেউই এখানে অর্থাৎ Mechanical Turk সাইটটিতে সাইন আপ করতে পারবেন। সাইন আপ করে বিভিন্ন টাস্ক কমপ্লিট করার মাধ্যমে আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এখানকার কাজগুলো কিছুটা এমন ধরুন কোন দুটো ছবিতে ব্রিজ রয়েছে, বা কোথায় কোথায় ল্যাম্পপোস্ট রয়েছে। আর এই টাস্ক সম্পাদন এর মাধ্যমে আপনি সেন্ট ইনকাম করতে পারবেন।

কিছু প্রাকটিস এর মাধ্যমে মাত্র কয়েকদিন এর মধ্যেই আপনি এর সাথে পরিচিত হয়ে যেতে পারেন। আর কাজ একবার শিখে গেলে আপনি আপনার চেয়ারে বসে থেকেই কয়েক ঘন্টার ভিতরেই কয়েক ডলার ইনকাম করে নিতে পারেন। যদি আপনি অধিক মনযোগ এর সাথে কাজটির প্রতি মনোনিবেশ করেন তাহলে খুব সহজেই দিনে একটা ভালো অ্যামাউন্ট এর টাকা ইনকাম করতে পারবেন। বিস্তারিত পাবেন সাইটটিতে, তার জন্য সাইন আপ অপশনে ক্লিক করে চলে যান সেখানটায়।

YouTube

ইউটিউবে এখন যে যেমন ইচ্ছা ভিডিও আপলোড করেই যাচ্ছে । আর সবচেয়ে মজার বিষয় হলো এটা যে তারা এটা আপলোড করেই টাকা ইনকাম করে যাচ্ছে। ইউটিউব এ কোনো ধরা বাঁধা নিয়ম নেই যে আপনি এই ভিডিও বানাতে হবে বা ওই ভিডিও বানাতে হবে। তাই আপনি আপনার ইচ্ছামতো রেসিপি চ্যানেল কিংবা ভ্লগ চ্যানেলে খুলে ফেলতে পারেন।

আর ইচ্ছামতো ভিডিও বানাতে পারেন এবং একটা ভালো পর্যায়ে পৌঁছানোর পর আপনি আপনার এই ভিডিওগুলোতে মনিটাইজেশন যুক্ত করে , অ্যাড দেখিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারেন। এছাড়াও ইনকাম এর আরো বহু রাস্তা রয়েছে ইউটিউব থেকে। যেমন আপনি স্পন্সরশীপ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। পাশাপাশি কোনো কোম্পানির সাথে অ্যাফিলিয়েট পার্টনার হিসাবে যুক্ত থাকলে আপনি সেখান থেকেও টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

এখানে অনেকেই বলতে পারেন যে নর্মাল সাইট এর মাঝে আবার ইউটিউব আনলাম কেন। আসলে এখন ইউটিউব থেকেও যে টাকা ইনকাম অনেকটাই সহজ। আপনিও আপনার ক্যারিয়ার খুঁজে পেতে পারেন এখানটায়।

Amazon Kindle Direct Publishing

আপনি কি একজন লেখক? আপনার লেখাটা বইটি একটু জনপ্রিয় করে তুলতে চান? তাহলে আপনার জন্যই থাকছে Amazon Kindle Direct Publishing সার্ভিসটি। আপনি আপনার লেখা যে কোন বইই এখানে বিক্রি করতে পারবেন। আর অ্যামাজন যেহেতু পৃথিবীর প্রায় সব জায়গা জুড়েই বিস্তার করছে তাই বাংলাদেশ এর একটি প্রকাশনী এর চেয়ে সেখান থেকে আপনার বই সেল হওয়ার চান্স অনেক বেশি। আর একটা বই পাবলিশ হলে আপনি যে শুধু টাকা পাবেন তা কিন্তু নয় বরং একটা ভালো সম্মান অর্জন করতেও সক্ষম হবেন।

যার মাধ্যমে খুব সহজেই নিজের একটা ইম্প্রেশন তৈরি করে নিতে পারবেন ইন্টারন্যাশনাল পরিসরে। আর সবচেয়ে বড় কথা কি জানেন এখানে বই সেল এর পাশাপাশি আপনি তা অনলাইনেও সেল করতে পারবেন। সেটা কিভাবে? সেটা হলো সোশ্যাল মিডিয়াগুলোর মাধ্যমে। আপনি যতটা প্রোমোট করতে পারবেন আপনার বইয়ের তত কপি বিক্রি হবে। আর এটার ৭০% টাকা আপনি পাবেন তাদের কাছ থেকে। দেরি করবেন আরো আজই লিখে ফেলুন নিজের উপন্যাস আর অ্যামাজনে সেল করুন- Amazon Kindle Direct Publishing 

Fotolia

Fotolia মূলত আপনার তোলা ছবি নিয়ে কাজ করে। Fotolia এর মাধ্যমে আপনি আপনার তোলা যে কোন ছবি বিক্রি করতে পারবেন স্টক ফটোগ্রাফি এর জন্য। প্রশ্ন করতে পারেন মানুষ কিভাবে আমার এই ছবি কিনবে বা কেনই কিনবে, তাই না?

আসলে এখানে যে কাজটি হয় তা মূলত কিছুটা এমন-

ধরুন কোনো পাবলিশার তার প্রয়োজনের জন্য কিছু ছবি খুজছে। আর সেজন্য তিনি অবশ্যই ফটোলিয়া তে আসবেন কেননা এটি অন্যতম একটি জায়গা। তো দেখা গেল আপনার তোলা যে কোন ছবি যা আপনি ফটোলিয়াতে আপলোড করেছিলেন তা পাবলিশার এর ভালো লেগে গেছে। এখন তিনি চাইছেন এটি কিনবেন। তো সেখান থেকে তিনি ছবিটি কিনলেই আপনি তার একটা পার্সেন্ট পেয়ে যাবেন। যারা ছবি তুলতে ভালোবাসেন, বা ছবি তোলাকেই নিজের শখ হিসাবে বেছে নিয়েছেন তাদের জন্য Fotolia হলো অন্যতম একটি মার্কেটপ্লেস। আর বিশ্বস্ততার কথা বলতে গেলে, আপনি এখানে সন্দেহ প্রকাশ করার অবকাশই রাখেন না। আজই ঘুরে আসুন- Fotolia

Swagbucks

বিশ্ব এর সবচেয়ে জনপ্রিয় , সবচেয়ে বেশি পরিচিত এবং সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা সার্ভে সাইট মনে হয় এই Swagbucks। Swagbucks এর কাজটি কি করে হয় আমি আপনাকে বলি। এখানে আপনাকে বিভিন্ন সার্ভে তে অংশগ্রহণ করতে হয়। এখানে আপনার বিভিন্ন লাইফস্টাইল আপনি কি চান বা এরকমই আরো অনেক কিছু সমন্ধে জানতে চাওয়া হয়। আর এর উপর ভিত্তি করেই আপনাকে একটা অ্যামাউন্ট এর টাকা দেয়া হয়ে থাকে। তবে জানেন কি কেন এই সার্ভের জন্য আপনাকে টাকা দেয়া হয়?

আসলে এই সার্ভে টা বিভিন্ন কোম্পানি এর জন্য হয়ে থাকে। আর তারা এই সার্ভে করে জানতে পারে যে মানুষ তাদের প্রোডাক্ট এ কি পাচ্ছে আর কি পাচ্ছে না। আবার কি চাচ্ছে একজন কাস্টমার, তার ডিমান্ড কি এসব। এর মাধ্যমে তারা একটা জিনিস বুঝতে পারে যে তাদের এই প্রোডাক্ট এর এমন উন্নতি দরকার। আবার ওই প্রোডাক্ট এর এমন কোনো দিক আছে কিনা যা বাদ দেয়া কর। এর মাধ্যমে তারা তা আরো ভালো করে কোম্পানির সেল বা বিক্রি বাড়াতে পারবে।

আর এভাবেই মূলত আপনার সার্ভে এর টাকা টিও আসে। আপনি দিনে কয়েকটি সার্ভেতে অংশ নিতে পারবেন। আর এই সার্ভে এর টাকা আপনি গিফট কার্ড হিসাবে Amazon, Target, iTunes, ইত্যাদিতে ব্যবহার করতে পারবেন।

Skillshare

Skillshare হলো এমন একটি অনলাইন প্লাটফর্ম যেখানে আপনি মানুষকে শিখিয়েই টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি এই শেখানোর কাজটি করতে পারবেন অনলাইনেই। আপনি যে বিষয়ে অভিজ্ঞ সে বিষয়ে একটি পুরো সিরিজ তৈরি করে নিতে পারেন কোনো নির্দিষ্ট টপিক এর উপর। এর মাধ্যমে যে কেউ সেই ভিডিও সিরিজ টী কিনলেই আপনি একটি ভালো অ্যামাউন্ট এর টাকা পেতে পারবেন। এখানে জনপ্রিয় টপিক গুলোর মধ্যে আপনি পাবেন-

  • ক্রাফট
  • ফিল্ম
  • কুকিং রেসিপি
  • টিউটোরিয়াল(টেক ও সাইন্স সম্পর্কিত)

আর আপনি Skillshare এর ফোরামে বিভিন্ন কিছুতে অংশগ্রহণ করেও টাকা ইনকাম কর‍তে পারবেন। আর বিভিন্ন জনের ক্লাস করেও একটা অ্যামাউন্ট পাবেন। সাইট এর অ্যাডমিন টিম সাইট সম্পর্কে বলে থাকেন যে, একজন টিচার মাসে এখানে থেকে গড়ে ৩৫০০ ডলার খুব সহজেই ইনকাম করতে পারেন। তো দেরি কেন? আজই লেগে যান আপনার শেখানোর চাকরিতে- Skillshare খুজছে আপনাকেই।

Zirtual

Zirtual হলো সবচেয়ে বেশি সময় ধরে যারা কাজ করতে পারেন তাদের জন্য। আর এতেই কিন্তু শেষ নয়, কাজ করতে আপনি যেমন বেশি সময় দিবেন তত টাকাও আপনি এখান থেকে আশা করতে পারেন। কারণ এখান থেকে খুব সহজেই অনেক টাকা ইনকাম করে ফেলা যায়। Zirtual এ সাইন আপ করার পরই আপনি একজন ব্যস্ত মানুষ এর ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসাবে যুক্ত হতে পারেন। এর পর মানুষটি আপনাকে বিভিন্ন কাজ করতে দিবে। অর্থাৎ একজন ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট যা করে আর কি!! এখান কার কাজের মধ্যে আপনি পাবেন-

  • ইমেইল মার্কেটিং
  • ইমেইল রিসার্চিং
  • টপিক রিসার্চিং
  • ক্লায়েন্ট এর পার্সোনাল ক্যালেন্ডার মেইনটেইন

এছাড়াও আরো অনেক কাজ থাকছে মোট কথা এখানে যোগ দেয়ার পর আপনি পুরোপুরিভাবে একজন ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসাবে নিয়োগ পাচ্ছেন। আর এখান শুরুটা হয়ে থাকে ১১ ডলার প্রতি ঘণ্টা থেকে। এখানকার অ্যাসিস্ট্যান্ট রা সপ্তাহ ভিত্তিক কাজ করে থাকে। সুতরাং আপনিও এখান থেকে কাজ নিতে পারেন যদি আপনার তা প্রয়োজন হয়ে থাকে। আর কাজটি করতে চাইলে ঘুরে আসুন- Zirtual

Cracked.com

Cracked.com হলো আমার দেখা সেরা একটি সাইট। আর এদের মাসে পেজ ভিউ প্রায় মিলিয়নও ছাড়িয়ে যায়। এখানে বিভিন্ন টপিক বা নিশ যেমন খেলাধুলা, বিনোদন ইত্যাদি নিয়ে লেখা হয়ে থাকে। আর পেজ ভিউ এর কারণে মাসে তারা অনেক টাকা শুধু অ্যাডসেন্স থেকেই আয় করে।

আর এখানে আপনি কাজটি যেভাবে করবেন তা হলো এদের সাথে কাজ করে। এদের সাথে কাজ করে আপনি একটি ভালো অ্যামাউন্ট এর টাকা আয় করতে পারবেন। আর মূল কাজটি এখানে হলো লেখালেখি। তাদের সাইটে লিখলেই তারা আপনাকে একটা ভালো অ্যামাউন্ট এর টাকা দিবে। এখান থেকে সবচেয়ে বেশি কোন আর্টিকেলগুলো আয় করে জানেন ? ফানি আর্টিকেলগুলো। আর এই ফানি আর্টিকেলই তাই তাদের অন্যতম হাতিয়ার। আপনিও তাই এই কাজে লেগে যেতে পারেন আজই। তবে মনে রাখতে হবে আপনার কন্টেন্ট অত্যন্ত ভালো কোয়ালিটির হতে হবে। দেরি না করে ঘুরে আসুন- Cracked.com

Listverse.com

Listverse.com দ্বারা মূলত দাঁড়ায় List Universe। যার মানে হচ্ছে সাইট টি মূলত বিশ্বের বিভিন্ন জিনিস এর লিস্ট নিয়ে হবে তাই তো?

হ্যাঁ, তাই। এখানে সকল বিষয় এর বিশ্ব এর সেরা ১০ এর তালিকা অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এই লিস্টগুলো বিভিন্ন ক্যাটেগরি নিয়ে হয়ে থাকে। যাই হোক আপনাকে তারা একটি লিস্ট এর জন্য ১০০ ডলার এবং একটি ছবি এর লিস্ট এর জন্য ৪০ ডলার পর্যন্ত দিতে রাজি। অর্থাৎ আপনি একটি লিস্ট করেই আয় করতে পারছেন ৮০০০ টাকা। তবে এখানে একটি জিনিস মনে রাখতে হবে যে আপনাকে অবশ্যই তাদের নিয়ম মেনেই লিস্ট তৈরি করতে হবে।

আর নিয়ম মেনে তৈরি করলেই একটি ভালো অংকের টাকা পেয়ে যেতে পারেন। আর দেরি কেন আজই আপনার জানা কোনো বিষয় এর লিস্ট তৈরি করে তাদের কাছে সাবমিট করুন। কিভাবে করবেন? এই যে নিন এই লিংকে ক্লিক করুন- List Universe । 

About.com

About.com হলো একটি জ্ঞান সমৃদ্ধ ওয়েবসাইট যেখানে আপনি বিভিন্ন জিনিস নিয়েই লিখতে পারবেন। এখান কার সাইট মূলত টেকনোলজি, কম্পিউটার কিংবা আইটি রিলেটেড কোনো বিষয় নিয়ে। আর এসব বিষয় তাদের ভিজিটর দের কাছে তুমুল জনপ্রিয়তা পাওয়ায় তারা যথেষ্ট পেজ ভিউ পায় এবং তার জন্য তাদের ইনকাম এর পরিমাণটাও অনেক।

আপনি চাইলেও ঘুরে আসতে পারবেন এবং অনেক কিছু জানতে পারবেন। তো যাই হোক আমরা যেহেতু জানতে নয় বরং জানাতে এসেছি তাই বলছি আপনি যদি টেক সম্বন্ধিত কোনো বিষয় সম্পর্কে পারদর্শী হয়ে থাকেন তবে খুব সহজেই এখানে লিখে আয় করতে পারবেন।

আর সবচেয়ে বড় কথাটি কি জানেন এখানে লেখার আগে ওয়েবসাইট থেকেই আপনাকে কন্টেন্ট লেখার গাইড দেয়া হবে। অর্থাৎ কন্টেন্ট কিভাবে লিখবেন তার একটি পূর্ব নির্দেশনা আপনাকে দিয়ে দেয়া হবে। যাতে আপনার কাজটি অনেক খানিই সহজ হয়ে যাবে। আর খুব অল্প দিনের মাঝেই অনেক টাকা আয় করতে পারবেন। তবে আর দেরি না করে আজই ঘুরে আসুন ওয়েবসাইটটি থেকে।

পরিশেষে-

উপরোক্ত আর্টিকেলটিতে আমরা মূলত আপনাকে অনলাইন এ আয় এর কিছু ট্রাস্টেড সাইট এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছি। আর এই কাজ এর মাধ্যমেই কিন্তু আপনি মাসে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তবে এখন আর আগের বারের মতো ভয় পেতে হবে না পেমেন্ট নিয়ে কেননা উক্ত সাইটগুলোর রয়েছে আলাদা সুনাম। আর তাই দেরি না করে আজকেই ঘুরে আসতে পারেন সব সাইটগুলো। এর পাশাপাশি আরো কিছু জানতে হলে কমেন্টে জানান। ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap