ইউরোপের কোন দেশে যেতে কত টাকা লাগে ২০২২

বর্তমান সময়ে লোকেরা, বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন দেশের ভিসা নিয়ে গমন করে। তার মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি দেশের নাম হলো- ইউরোপ।

আপনি যদি ইউরোপ ভিসা নিয়ে যেতে চান তাহলে অনেক ক্যাটাগরির ভিসা পাবেন। এবং ইউরোপের অনেক দেশে গমন করতে পারবেন।

আমাদের এই পোস্টে আপনাকে জানাব, ইউরোপের কোন দেশে যেতে কত টাকা লাগে। আপনি যদি এই বিষয়ে সঠিক তথ্য পেতে চান? তাহলে নিম্নোক্ত লেখা গুলো শেষ পর্যন্ত অনুসরণ করুন।

আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে বিদেশ যেতে চান, তাহলে অনেক ধরণের ভিসা নিয়ে যেতে পারবেন।

আমাদের এই সাইটে বিদেশ যাওয়ার জন্য বিভিন্ন ভিসা সম্পর্কে আর্টিকেল পাবলিশ করেছি। আপনি চাইলে সেই আর্টিকেল গুলো পড়তে পারেন।

আজ আমরা এখানে ইউরোপের কোন দেশে দেশে কত টাকা লাগে এই বিষয়ে তথ্য শেয়ার করব। তো চলুন সময় নষ্ট না করে শুরু করা যাক।

ইউরোপের কোন দেশে যেতে কত টাকা লাগে ২০২২
ইউরোপের কোন দেশে যেতে কত টাকা লাগে ২০২২

ইউরোপের কোন দেশে যেতে কত টাকা লাগে?

বাংলাদেশি নাগরিক- আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, ইউরোপ, রোমানিয়া ইত্যাদি দেশ গুলোতে গমন করে থাকে।

আমাদের মধ্যে অনেক লোক আছে, যারা ইউরোপ যেতে স্বপ্ন দেখে বা ইউরোপে গমন করতে চাই। তবে আমরা সেই দেশ গুলো সম্পর্কে তেমন কিছু জানি না।

তার জন্য এই পোস্টে, আপনি জেনে নিতে পারবেন। ইউরোপের কয়েকটি দেশ যেমন- অস্ট্রেলিয়া, পোল্যান্ড এবং রোমানিয়ার দেশ গুলোর সম্পর্কে।

উক্ত দেশ গুলোতে কাজের ধরণ, ভিসার খরচ, কোন দেশে যেতে গিয়ে কত টাকা আয় করা যায় ইত্যাদি বিষয়ে, বিস্তারিত আলোচনার চেষ্টা করব।

আরো পড়ুনঃ

অস্ট্রেলিয়া যেতে কত খরচ হয়?

বর্তমান সময়ে অনেক লোক অস্ট্রেলিয়া যেতে আগ্রহী। কিন্তু অনেকে উক্ত দেশের বিষয়ে সঠিক তথ্য জানে না।

আমরা এখানে জানাব, অস্ট্রেলিয়া যেতে কত টাকা খরচ হয়। আপনি যদি অস্ট্রেলিয়াতে যেতে চান? তাহলে দুইটি ক্যাটাগরি’র ভিসা করার সুযোগ পাবেন।

আপনি যদি অস্ট্রেলিয়াতে যেতে চান, তাহলে আপনর খরচ হতে পারে-

  • এপ্লিকেশন ফ্রি ২৫০ ডলার।
  • ইন্সুরেন্স ফ্রি ২৫০ ডলার।
  • স্কিন এসেসমেন্ট ২৫০০ ডলার।
  • অন্যান্য সকল কিছু মিলে আপনার খরচ হতে পারে ৪০০০ ডলার।

উক্ত ডলার হিসাব করে, যদি বাংলাদেশি টাকায় রুপান্তরিত করা হয় তাহলে সেটি দাড়াবে = প্রায় ০৪ (চার) লক্ষ টাকা।

উক্ত টাকার হিসাব আপনি যদি একা অস্ট্রেলিয়াতে চান। তাহলে উক্ত খরচ বহন করতে হবে।

এছাড়া, আপনার সাথে যদি আপনার স্ত্রী বা অন্য কোন ব্যক্তি থাকে। তাহলে আপনার খরচ হবে প্রায় ৫ লক্ষ ৫০ হাজার এর মতো।

পোল্যান্ড ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

পোল্যান্ড অনেক জনপ্রিয় দেশ। যারা পোল্যান্ড যেতে চান তারা উক্ত দেশের বিষয়ে জানার পরে সামনের দিকে অগ্রসর হবেন।

শুধু মাত্র পোল্যান্ড না আপনি যে কোন বাহিরের দেশে যেতে চাইলে সেই দেশের বিষয়ে সঠিক ভাবে জেনে নেওয়া জরুরী।

আমরা এখানে পোল্যান্ডের ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ও খরচ সম্পর্কে জানাব। আমরা জানি কিছু দিন আগে, পোল্যান্ড ওয়ার্ক পারমিট ভিসা চালু হয়েছে।

পোল্যান্ড যেতে খরচ কত- আপনি যদি পোল্যান্ড যেতে চান? তাহলে আপনার মোট খরচ হতে পারে প্রায় ০৮ (আট) লক্ষ টাকার মতো।

আপনি যদি আট লক্ষ টাকা ব্যয় করতে পারেন তাহলে দ্রুত পোল্যান্ড দেশে ওয়ার্ক পারমিট ভিসাতে চলে যেতে পারবেন।

রোমানিয়া কাজের ভিসা

ইউরোপের আওয়াতভূক্ত দেশ হলো রোমানিয়া। আমাদের জানামতে বাংলাদেশের অনেক নাগরিক রোমানিয়াতে কাজের ভিসা নিয়ে গিয়েছে।

রোমানিয়াতে কাজের ভিসাতে গিয়ে অনেক টাকা উপার্জন করতে পারবেন। এখন আপনার প্রশ্ন হতে পারে যে, রোমানিয়া দেশে যেতে কত টাকা খরচ হবে।

আপনি এই প্রশ্নের উত্তর জানতে পারবেন। যারা রোমানিয়া যেতে চান তাদের খরচ সম্পর্কে জানাটা জরুরী।

আপনার রোমানিয়া যেতে, ০৮ থেকে ০৯ লক্ষ টাকা মতো খরচ হবে। উক্ত টাকার হিসাব ধারণা দেওয়া হলো। এটি কম বা বেশিও হতে পারে।

রোমানিয়অ ভিসা পেতে কত সময় লাগে?

আপনি যদি রোমানিয়া যেতে, কত সময় লাগবে এই সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে এখানেই জেনে নিতে পারবেন।

আপনি যদি রোমানিয়াতে কাজের ভিসায় যেতে চান। তাহলে আপনার রোমানিয়া ভিসা পেতে প্রায় তিন মাস বা চার মাস এর মতো সময় লাগবে।

রোমানিয়া কাজের ধরন যোগ্যতা ও বেতন

আপনি রোমানিয়া ভিসা নিয়ে গেলে সেখানে অনেক ধরণের কাজ করতে পারবেন। যেমন- কারখানা শ্রমিক, হোটেল, কাঠমিমিস্ত্রির কাজ ইত্যাদি।

যারা উক্ত যেশের জন্য প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত তাদের জন্য রোমানিয় ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় খুব সহজে নিজের যোগ্যতা অনুযায়ী বেতন পাবেন।

আপনি বাংলাদেশি টাকায় ৩০ হাজার থেকে শুরু করে ৫ লক্ষ টাকার মতো আয় করতে পারবেন। উক্ত কাজের বেতন আপনার যোগ্যতা অনুযায়ী পাবেন।

আরো পড়ুনঃ

রোমানিয়াতে ড্রাইভিং কাজ

বর্তমান সময়ে রোমানিয়াতে ড্রাইভিং কাজের জন্য হাজার হাজার লোক নিয়োগ দিচ্ছে। তাই আপনি যদি বাংদেশ থেকে বিদেশ যেতে আগ্রহী থাকেন। তারা রোমানিয়া কাজের ভিসা নিয়ে যেতে পারেন।

আপনি যদি রোমানিয়াতে ড্রাইভিং ভিসা যেতে চান। তাহলে আপনার আন্তর্জাতিক ড্রাইভিং ভিসা থাকতে হবে।

আপনি বাংলাদেশ থেকে যে কোন ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকে। সেই ড্রাইভিং লাইসেন্স নিয়ে রোমানিয়াতে কাজ করতে পারবেন।

আপনি উক্ত ড্রাইভিং ভিসাতে রোমানিয়াতে গেলে। মাসে প্রায় ২ থেকে ৩ লক্ষ টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

রোমানিয়াতে হোটেল বয় এর কাজ

বর্তমান সময়ে রোমানিয়াতে বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন কাজের ভিসা নিয়ে রোমানিয়াতে পাড়ি জমাচ্ছে। এছাড়া বাংলাদেশ এর বাহিরে যারা কাজ করে।

তারা সেখান থেকে রোমানিয়াতে বিভিন্ন ভাবে কাজের জন্য যাচ্ছে। এবং তারা অলরেডি কাজ করছে। এবং দেশে মোটা অংকের টাকা পাঠাচ্ছে।

আমরা জানি, এশিয়া মহাদেশের মধ্যে কাজ করলে অনেক কম টাকা আয় করা যায়। সেই হিসেবে আপনি ইউরোপ এর বিভিন্ন  কান্ট্রিতে গমন করে দ্বিগুল টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

এই কারণে ইউরোপ কান্ট্রির মধ্যে রোমানিয়া সহ অস্ট্রেলিয়াতে শ্রমিক (কাজের) ভিসা নিয়ে গমন করছে।

আপনি যদি ইউরোপের রোমানিয়াতে যেতে চান তাহলে সেখানে হোটেল বয় এর কাজ করে মাসে লক্ষ টাকার মতো আয় করতে পারবেন।

আর সব চেয়ে মজার বিষয় হলো আপনি রোমানিয়াতে হোটেল বয়ের কাজ করলে আপনার কোন কোন অভিজ্ঞতা ও শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রয়োজন পড়বে না। সহজেই অল্প কাজ করে বেশি টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

আরো দেখুনঃ

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা, আজের পোস্টে জানতে পারলেন। ইউরোপের কোন দেশে যেতে কত টাকা লাগে। এবং কোন কাজের বেতন কত।

আপনি যদি ইউরোপের কান্ট্রিতে গমন করতে চান। তাহলে আজই টাকা জোগার করে অনলাইনের মাধ্যমে ভিসার জন্য আবেদন করুন।

আমাদের লেখা আপনার কাছে যদি ভালো লাগে তাহলে একটি শেয়ার করুন আপনার বন্ধুর নিকট। আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap