যারা নতুন ভোটার স্মার্ট কার্ড পাননি তাদের জন্য পরামর্শ

যারা নতুন ভোটার এখনো স্মার্ট কার্ড পাননি তাদের জন্য পরামর্শ : আমাদের জানামতে 2015 সাল থেকে 2021 সালের মধ্যে হওয়া।

নতুন ভোটার অনেকেই এখন পর্যন্ত স্মার্ট কার্ড হাতে পাইনি। যারা স্মার্ট কার্ড পাননি তাদের স্মার্ট এনআইডি কার্ড কেন আসেনি।

এবং তাদের কার্ড পাওয়ার উপায় কি? সেই বিষয় নিয়ে, অনেকেই অনলাইনে খোঁজার চেষ্টা করে।

যারা নতুন ভোটার স্মার্ট কার্ড পাননি তাদের জন্য পরামর্শ
যারা নতুন ভোটার স্মার্ট কার্ড পাননি তাদের জন্য পরামর্শ

তাই সে বিষয়ে পরিপূর্ণ সঠিক তথ্য প্রদান করবো। আজকের এই আর্টিকেলের।

আপনার যদি সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে পরামর্শ নেন। তবে আপনাকে এই একই পরামর্শ প্রদান করবে। আপনাকে কষ্ট করে আর উপজেলা নির্বাচন অফিসে যেতে হবে না।

আমাদের এই আর্টিকেল অনুসরণ করে আপনারা স্মার্ট কার্ড সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পেয়ে যাবেন।

তাই যারা এখনও নতুন ভোটার স্মার্ট কার্ড পাননি। তারা নিশ্চিন্তে আমাদের দেওয়া পরামর্শ গুলো অনুসরণ করতে পারেন।

তো বন্ধুরা যারা নতুন ভোটার স্মার্ট কার্ড পাননি তাদের জন্য আমরা যে, পরামর্শ গুলো নিয়ে হাজির হয়েছি। এ গুলো যদি আপনি ধাপ অনুসরণ করেন। তাহলে বিস্তারিত তথ্য পেয়ে যাবেন।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন বিভিন্ন সময়ে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম পরিচালনা করেন। যারা পূর্বে কখনো হয়নি। তাদেরকে নতুন ভোটার হিসাবে নিবন্ধন করা হয়।

প্রয়োজনীয় নথিপত্র জমা দিয়ে 2 নং নিবন্ধন ফরম পূরণ করলেই নতুন ভোটার হওয়া সম্ভব হয়। 2007 সাল থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত যারা ভোটার হয়েছেন।

তাদের সকলেরই স্মার্ট কার্ড তৈরি হয়ে গেছে। বিতরণ করা হয়েছে। এবং এখনও বিতরণ চলমান রয়েছে।

যারা নতুন ভোটার স্মার্ট কার্ড পাননি

2015 সাল এ নতুন ভোটার হালনাগাদ কার্যক্রম এর দ্বিতীয় ধাপে যাদের বয়স 18 বছরের কম ছিল। তাদেরকে জাতীয় পরিচয় পত্র প্রদান করার জন্য ভোটার করা হয়।

তবে যে ব্যক্তিদের 18 বছর বা তার বেশি তাদের স্মার্ট কার্ড তৈরি হয় এবং Underage ভোটার কার্ড তৈরি করা হয় না।

2017 সালে ভোটার হালনাগাদ কার্যক্রম এ যারা ভোটার হয়েছিলেন। তারাও কিন্তু স্মার্ট কার্ড পাননি। 2017 সালে হওয়া সকল নতুন ভোটার এবং 2015 সালে হওয়া Underage ভোটারদের স্মার্ট কার্ড না এসে, পেপার লেমিনেটেড জাতীয় পরিচয় পত্র বা ভোটার আইডি কার্ড আসে।

যে গুলো সিডিউল করে বিতরণ করা হয়ে থাকে।

উক্ত পেপাল লেমিনেটেড জাতীয় পরিচয় পত্র এনআইডি কার্ড অফার পাতায় মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ দেওয়া থাকে।

নির্দিষ্ট মেয়াদ শেষে সেই জাতীয় পরিচয়পত্র বা ভোটার আইডি কার্ড গুলোর আর কোনো কার্যকারিতা থাকে না। সে গুলো পুনরায় নবায়ন করতে হয়।

তবে পরবর্তীতে এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে প্রতিটি সাময়িক জাতীয় পরিচয়পত্র এনআইডি কার্ডের মেয়াদ অনির্দিষ্টকালের জন্য বর্ধিত হল।

সকল প্রকার সাময়িক জাতীয় পরিচয়পত্র এনআইডি কার্ড এখন থেকে বৈধ হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।

সকল প্রকার সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের সেবা গ্রহীতার কার্ড এনাম হতে চেক করে, প্রয়োজনীয় সেবা প্রদান করতে পারবেন।

2019 সালের ভোটার হালনাগাদ কার্যক্রম ১০ আঙ্গুলের ছাপ এবং এর আইরিশ-স্ক্যান করে নতুন ভোটার করা হয়। তাদের জাতীয় পরিচয় পত্র স্মার্ট কার্ড তৈরি হয়েছে এবং সেটি বিতরণ চলছে।

2019 নতুন ভোটারদের মাঝেও কিন্তু Underage ভোটার আছে যারা এখনো স্মার্ট কার্ড পাননি।

2015 সালের কিছু Underage নতুন ভোটার। 2017 সালের নতুন ভোটার কার্ড 2019 সালের কিছু Underage ভোটারদের স্মার্টকার্ড এখনো তৈরি হয়নি।

কিন্তু খুব শীঘ্রই Underage নতুন ভোটারদের স্মার্ট কার্ড তৈরি হবে এবং বিতরণ করা হবে।

যারা স্মার্ট কার্ড পাননি তারা কখন স্মার্ট কার্ড পাবেন ?

যারা নতুন ভোটার এখনো স্মার্ট কার্ড পাননি তাদের স্মার্ট কার্ড তৈরি হয়ে উপজেলা পর্যায়ে না আসে। সেই পর্যন্ত কোন ভাবে স্মার্ট কার্ড পাওয়া যাবে না।

তার কারণ আবেদন করে স্মার্ট কার্ড পাওয়ার কোনো সুযোগ এখন পর্যন্ত চালু হয়নি।

তাই যতদিন আপনি আপনার স্মার্ট কার্ড হাতে না পান। ততদিন আপনার কাছে যে, সাময়িক জাতীয় পরিচয় পত্র আইডি কার্ড রয়েছে।

সেটি নিশ্চিন্তে ব্যবহার করতে পারবেন। এটি দিয়ে আপনারা বাংলাদেশের সকল কাজ করতে পারবেন, কোনো বাধা বিপত্তি ছাড়াই।

ভোটার আইডি কার্ড এর মেয়াদ নিয়ে সমস্যা হলে

জাতীয় পরিচয় পত্র ভোটার আইডি কার্ড এর পেছনে মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ দেখে যদি কোনো সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান’ আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র ভোটার আইডি কার্ড গ্রহণ না করতে চায় তবে তাদের বুঝিয়ে বলবেন যে স্মার্ট কার্ড এখনো চলে আসে নি বিধায় প্রতিটি কার্ডের মেয়াদ অনির্দিষ্টকালের জন্য বর্ধিত করা হয়েছে সরকার কর্তৃক।

এছাড়া জাতীয় পরিচয় পত্র আইডি কার্ড অনলাইনে যাচাই করা যায়। প্রয়োজনে অনলাইন থেকে ভোটার আইডি কার্ড চেক করে তথ্য সঠিকতা নিশ্চিত করে, নেওয়ার জন্য বলতে পারেন।

তাছাড়া যদি এনআইডি কার্ডের মেয়াদ নিয়ে সমস্যা মনে করেন। তাহলে জাতীয় পরিচয় পত্র উত্তোলন হিসাব করে নিয়ে, রকেট এবং বিকাশের মাধ্যমে পরিশোধ করে অনলাইন সিস্টেম হতে, এনআইডি কার্ড উত্তোলনের আবেদন করতে পারবেন।

এছাড়া সরাসরি আপনি সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়েও জাতীয় পরিচয় পত্র আইডি কার্ড উত্তোলনের আবেদন করতে পারবেন।

তবে সর্বোচ্চ এক সপ্তাহের মধ্যে পুনরায় একটি ব্যাপার লেমিনেটেড এনআইডি কার্ড হাতে পেয়ে যাবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র স্মার্ট কার্ড পাচ্ছিনা কবে আসবে এসব চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে স্মার্ট কার্ড তৈরি হলে সেটি উপজেলা পর্যায়ে চলে আসবে এবং বিভিন্ন ভাবে প্রচার প্রচারণার মাধ্যমে স্মার্ট কার্ড বিতরণ করা হবে।

স্মার্ট কার্ড না আসা পর্যন্ত ততদিন নিশ্চিন্তে, আপনার নিকট থাকা নর্মাল এনআইডি কার্ড ব্যবহার করতে থাকবেন।

নতুন ভোটারদের স্মার্ট এনআইডি কার্ড পাওয়া নিয়ে, যদি আরো কোন কিছু জানার থাকে তাহলে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন।

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা আজ আমাদের এই আর্টিকেলের মধ্যে আপনাকে জানিয়ে দেয়া হল, যারা নতুন ভোটার স্মার্ট কার্ড পাননি তাদের জন্য পরামর্শ।

আপনি যদি নতুন ভোটার হয়ে থাকেন। এবং নরমাল এনআইডি কার্ড পেয়ে থাকেন। সেটি আপনি বাংলাদেশের যে, কোন কাজে ব্যবহার করতে পারবেন কোন ঝামেলা ছাড়াই।

তাই নির্বাচন কমিশন কখন আপনার স্মার্ট কার্ড বিতরণ করবে, সেই সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। তো বন্ধুরা আমাদের আজকের আর্টিকেলটি আপনার কাছে কেমন লাগলো অবশ্য একটি কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

এছাড়া আপনি যদি বাংলাদেশের জাতীয় পরিচয় পত্র ভোটার আইডি কার্ডের বিষয়ে আরো নতুন নতুন টিপস এন্ড ট্রিক্স পেতে চান। তাহলে নিয়মিত ভিজিট করুন। ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap