বাচ্চাদের ই পাসপোর্ট করার নিয়ম

বাচ্চাদের ই পাসপোর্ট করার নিয়ম : আমাদের আজকের এই আর্টিকেলে আপনাদের জানিয়ে দেয়া হবে, ই-পাসপোর্ট করার নিয়ম সম্পর্কে।

আমাদের মধ্যে অনেক লোক রয়েছে। যারা তাদের বাচ্চাদের ই পাসপোর্ট করার নিয়ম জানতে চাই।

তাই আমরা এখানে 15 বছরের কম অপ্রাপ্ত বয়স্ক এবং শিশুদের পাসপোর্ট করার নিয়ম কি ? এবং কিভাবে ছবি জমা দিবেন। এবং অনলাইনে পাসপোর্ট আবেদন করার নিয়ম সম্পর্কে জানতে পারবেন।

বাচ্চাদের ই পাসপোর্ট করার নিয়ম
বাচ্চাদের ই পাসপোর্ট করার নিয়ম

যাদের 15 বছরের কম অপ্রাপ্ত বয়স্ক এবং বাচ্চাদের পাসপোর্ট করার নিয়ম। বাচ্চাদের পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে। কিভাবে অনলাইনে বাচ্চাদের ই-পাসপোর্ট আবেদন করবেন সে বিষয়ে বিস্তারিত জানাতে যাচ্ছি।

তো বন্ধুরা যারা বাচ্চাদের ই পাসপোর্ট করার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান। তারা আমাদের আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।

বাংলাদেশের পাসপোর্ট করার নিয়ম অনুযায়ী ই পাসপোর্ট এর আবেদনের জন্য যে কোন ব্যক্তি’র জাতীয় পরিচয় পত্র দরকার হয়।

18 বছর হওয়ার পর অনেকে জাতীয় পরিচয় পত্র হাতে পায় না তাই 18 থেকে 20 বছর বয়স পর্যন্ত জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকলে। জন্ম নিবন্ধন আবেদন করতে পারবে।

সাধারণত আমরা অপ্রাপ্তবয়স্ক বলতে বুঝায় 18 বছর বয়সের কম ব্যক্তি কে। তবে পাসপোর্ট আবেদনের জন্য 15 বছরের কম বয়সীদের অপ্রাপ্তবয়স্ক বাচ্চাদের বিবেচনা করা হয়।

ই পাসপোর্ট আবেদনের জন্য একজন প্রাপ্তবয়স্ক এবং প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির আবেদন প্রক্রিয়া এবং ফি একই রকম। ই পাসপোর্ট আবেদনের জন্য কোন পার্থক্য নেই।

কিন্তু এখানে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের ক্ষেত্রে বয়সভেদে কিছুটা পার্থক্য আছে।

আপনি যদি বাচ্চাদের পাসপোর্ট করার নিয়ম জানতে চান। তার আগে অবশ্যই আপনাকে ই পাসপোর্ট করার জন্য কি কি কাগজপত্র লাগবে।

সে বিষয়ে আমরা নিম্নোক্তভাবে আলোচনা করেছে দেখুন।

ছোট বাচ্চাদের ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে

একদিন থেকে 15 বছর বয়সয়ী বাচ্চাদের পাসপোর্ট করতে যে কাগজপত্রগুলো লাগবে।

যেমন-

  • বাচ্চাদের জন্ম নিবন্ধন ডিজিটাল কপি।
  • পিতা-মাতার জাতীয় পরিচয় পত্রের কপি।
  • জরুরী প্রয়োজনে যোগাযোগের জন্য একজন আত্মীয় এর নাম, ঠিকানা এবং মোবাইল নাম্বার।
  • 6 বছরের কম বাচ্চাদের ছবি লাগবে।
  • এনওসি বা অনাপত্তি পত্র- সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবীদের সন্তানদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।
  • ই পাসপোর্ট ফি পরিশোধের এ চালান কপি।

বন্ধুরা চলুন এই বাচ্চাদের ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে। এ বিষয়ে আমরা উপরে সংক্ষিপ্তভাবে জানিয়ে দিয়েছি। এখন আমরা এ বিষয় গুলো নিয়ে বিস্তারিত ভাবে জানানোর চেষ্টা করব।

যেমন- 

জন্ম নিবন্ধন (ডিজিটাল)

বাচ্চাদের জন্ম নিবন্ধন দিয়ে পাসপোর্ট করতে চাইলে আগে নিশ্চিত হতে হবে। যে বাচ্চাদের জন্ম নিবন্ধন ডিজিটাল আছে কিনা। এবং নিবন্ধন নম্বর ১৭ ডিজিট আছে কি না।

কারণ বর্তমান সময়ে, ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন ছাড়া কোন কাজেই যাওয়া সম্ভব হয় না। কারণ আগের সময়গুলোতে জন্মনিবন্ধন হাতে লেখা ছিল।

তাই এখন জন্ম নিবন্ধন ডিজিটাল ভাবে, ইউনিয়ন পরিষদ বা সিটি কর্পোরেশন থাকে করে নিতে হয়।

তাই বাচ্চাদের ই পাসপোর্ট করার জন্য আপনাকে অবশ্যই তার নামে, ডিজিটাল 17 ডিজিট এর জন্ম নিবন্ধন করে নিতে হবে।

এছাড়া ইউনিয়ন পরিষদে, আপনি যখন জন্ম নিবন্ধন করতে যাবেন। তখন অবশ্যই ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধনের কথা বলবেন।

এবং বাংলা জন্ম নিবন্ধন এর সাথে ইংরেজি জন্ম নিবন্ধন কপি প্রিন্ট করে নিবেন, তাহলে আরো ভালো হবে।

পিতা ও মাতার জাতীয় পরিচয় পত্র

সাধারণত ই পাসপোর্ট এর জন্য ডকুমেন্ট জাতীয় পরিচয় পত্র। একদিন থেকে 20 বছর পর্যন্ত ব্যক্তির ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন দিয়ে, পাসপোর্ট আবেদন করা সম্ভব হয়।

তবে, এ ক্ষেত্রে অনলাইন আবেদনের পিতা এবং মাতার জাতীয় পরিচয় পত্র নম্বর উল্লেখ করে দিতে হবে। এবং পাসপোর্ট অফিসে ফটোকপি সাবমিট করতে হবে।

জরুরী প্রয়োজনে যোগাযোগ

ই-পাসপোর্টে জরুরী যোগাযোগের জন্য একজন আত্মীয়র নাম, ঠিকানা এবং মোবাইল নাম্বার যুক্ত করতে হবে। এটি পরিবারের অন্য কোন সদস্য বা কোনো নিকটাত্মীয়ের তথ্য এবং মোবাইল নাম্বার দিতে পারবেন।

ছবি/ফটো

বাচ্চাদের বয়স ৬ বছরের কম হলে, অবশ্যই বাচ্চাদের কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙ্গিন ছবি আবেদনের উপরে বাম পাশে পাশে আঠা যুক্তকরতে হবে।

আর শিশুর বয়স এর বেশি হলে, ছবির প্রয়োজন নেই।

এনওসি : (সরকারি চাকরীজীবির সন্তান হলে)

আপনি যদি একজন সরকারি আধাসরকারি স্বায়ত্তশাসিত কোন প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবী হয়ে থাকেন।

তাহলে আপনার সন্তানের ই পাসপোর্ট করার জন্য অবশ্যই আপনার ডিপার্টমেন্টের থেকে একটি অনাপত্তি সনদ সার্টিফিকেট সংগ্রহ করতে হবে।

আপনি যদি একই সঙ্গে কি পাসপোর্ট এর জন্য আবেদন করেন। তাহলে একটি এনওসি দিয়ে, আপনি আপনার উপর নির্ভরশীল স্বামী ও স্ত্রী এবং সন্তানের ই-পাসপোর্ট আবেদন করতে পারবেন।

তাছাড়া এককভাবে শুধুমাত্র বাচ্চাদের ই-পাসপোর্ট আবেদন করলেও তার নামে আপনার অধিদপ্তর থেকে একটি এনওসি নিতে হবে।

এনওসি দিয়ে, ই পাসপোর্ট আবেদনের জন্য পুলিশ ভেরিফিকেশন হবে না। তাছাড়া সাধারণ পাসপোর্টের ফি দিয়ে, জরুরী পাসপোর্ট করতে পারবেন।

ফি পরিশোধ এর এ চালান কপি

এ চালনান এর মাধ্যমে পাসপোর্ট ফি পরিশোধ করতে হবে। অনলাইনের মাধ্যমে সরাসরি এ চালান অ্যাপ থেকে বা ওয়েবসাইট থেকে ডেবিট কার্ড বিকাশ এবং রকেটের মাধ্যমে ফি পরিশোধ করতে পারবেন।

তাছাড়া যেকোনো ব্যাঙ্ক থেকে এ চালান জমা করতে পারবেন। চালান কপি অন্যান্য কাগজপত্র এর সঙ্গে পাসপোর্ট অফিসে সাবমিট করতে হবে।

বাচ্চাদের ই পাসপোর্ট করার নিয়ম

উপরের আলোচনা থেকে আপনারা বাচ্চাদের পাসপোর্ট করার জন্য কি কি লাগে সে বিষয়ে জানতে পারলেন।

এখন আমরা মূল আলোচনায় এসে গেছি আর সেটি হচ্ছে বাচ্চাদের পাসপোর্ট করার নিয়ম কি।

ই পাসপোর্ট এর জন্য বাচ্চাদের এবং প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হবে। সর্বপ্রথম অনলাইনে আবেদন করুন।

তারপর পাসপোর্ট ফি পরিশোধ করার পরে।

এ চালান কপি এবং প্রয়োজনীয় বিভিন্ন কাগজপত্র পাসপোর্ট অফিসে সাবমিট করে আবেদন সম্পন্ন করতে হবে।

সাধারণত একজন বাচ্চার পাসপোর্ট আবেদন কিভাবে করা যেতে পারে যেমন-

  1. পিতা এবং মাতার পাসপোর্ট আবেদনের সাথে।
  2. আলাদাভাবে বাচ্চাদের পাসপোর্ট আবেদন।

পিতা-মাতার সঙ্গে পাসপোর্ট আবেদন করলে অনেকটাই হয়রানি কম হবে কিন্তু উভয় পক্ষেই আবেদন প্রক্রিয়া। প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট এবং ফি এর পরিমাণ একই থাকবে।

বাচ্চাদের জন্য ই পাসপোর্ট করতে চান তাহলে আপনাকে সরাসরি পাসপোর্ট এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে।

আমরা আপনার সুবিধার জন্য এখানে ই-পাসপোর্ট করার জন্য ওয়েবসাইটর লিংক যুক্ত করে দিয়েছি।

পাসপোর্ট করার লিংক- www.epassport.gov.bd

আপনি যদি বাচ্চাদের জন্য এই পাসপোর্ট করতে চান এবং নিজের জন্যই পাসপোর্ট করতে চান। তাহলে আপনাকে অবশ্যই ওপরে দেয়া লিঙ্কে ক্লিক করে, আবেদন করতে হবে।

আবেদনের কাজ সম্পন্ন হলে আপনারা সেই লিঙ্কে প্রবেশ করেই পাসপোর্ট চেক করতে পারবেন।

তো আপনার কাছে যদি উপরের দেওয়া ডকুমেন্টগুলো থেকে থাকে তাহলে আপনারা পাসপোর্ট অফিসের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে।

খুব সহজেই আবেদন করতে পারবেন।

এবং আবেদন করার পর অবশ্যই পাসপোর্ট অফিসে গিয়ে। সে আবেদন পত্র টি জমা করে, আরো বিস্তারিত ভাবে জানতে পারবেন।

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা আজ আমাদের এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে আপনাকে জানিয়ে দেয়া হলো বাচ্চাদের এই পাসপোর্ট করার নিয়ম। এবং ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে।

বন্ধুরা আপনি যদি আপনার বাচ্চার কি পাসপোর্ট করতে আগ্রহী থাকেন। তাহলে উপরের নিয়ম অনুযায়ী এবং ডকুমেন্ট গুলো সংগ্রহ করে আজও আবেদন করতে পারেন অনলাইনের মাধ্যমে।

তো বন্ধুরা শেষ পর্যন্ত আমাদের আর্টিকেলটি আপনার কাছে কেমন লাগলো অবশ্যই কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

আর বিশেষ করে, আমাদের ওয়েবসাইট থেকে পাসপোর্ট সংক্রান্ত আরো নতুন নতুন টিপস এন্ড ট্রিক্স পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap