ফ্রিল্যান্সিং কী? কীভাবে শুরু করবেন? সেরা ১০ ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস

ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে শুরু করবেন: ফ্রিল্যান্সিংকে আজ অনেকেই একটি পেশা হিসেবে গ্রহণ করেছে। সম্প্রতি সকল ফ্রিল্যান্সারদের তাদের পরিচয় ব্যবহারের জন্য একটি আইডি কার্ড এর ব্যবস্থা করা হয়েছে। আবার আমাদের অনেকেই এই পথে পা ডুবিয়ে হতাশ হয়ে হয়ত ফিরে এসেছে। এর প্রধান কারণ হলো অনভিজ্ঞতা এবং সঠিক পদ্ধতি অবলম্বন না করা। যার ফলে অনেকেই অনেক উৎসাহের সাথে  শুরু করেও তা থেকে ফিরে আসতে হয়েছে।

আমরা আজ আপনাদের সামনে নিয়ে এসেছি দশটি সেরা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট। যেখান থেকে আপনি বেশ সহজেই অনেক আয় করতে সক্ষম হবেন। আর কিছু নির্দেশাবলীও আপনাদের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করব। যেন আপনারা আর কখনো এই পথে পা ডুবিয়ে হতাশার সাথে তা ফিরিয়ে আনেন।

আজ, ফ্রিল্যান্সিং ব্যবসা (freelancing business) করে অনেকেই ঘরে বসে হাজার হাজার টাকা আয় করছেন। এবং, অনেকেই এতো টাকা ইনকাম করে নিচ্ছেন, যে কোনো ফুল টাইম জব বা চাকরি থেকেও এতো আয় করা সম্ভব না।

কিন্তু, ফ্রিল্যান্সিং করে স্বাধীন ভাবে আয় করার জন্য, আপনার প্রথমে কিছু জরুরি কথা এর বিষয়ে জেনেনিতে হবে।

ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে শুরু করবেন। সেরা 12টি ফ্রিল্যান্সার সাইট 2021
ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে শুরু করবেন।

তাহলে বন্ধুরা, ওপরে আমি দেয়া বিষয় গুলির ব্যাপারে সম্পূর্ণ জেনে নেয়ার পর, freelancing এর ব্যাপারটা আপনার জন্য স্পষ্ট হয়ে দাঁড়াবে।

এবং, সবটাই জানার পর, আপনি এইটা বুঝে যাবেন যে, আসলে freelancing কি এবং এর দ্বারা অনলাইন টাকা আয় করাটা আপনার জন্য কতটা সম্ভব হতেপারে।

টপিক সূচি

ফ্রিল্যান্সিং কি ? (What Is Freelancing In Bangla)

সোজা ভাবে বললে, ফ্রিল্যান্সিং এমন একটি আলাদা মাধ্যম বা উপায়, যার দ্বারা আপনারা অনলাইন কাজ করে টাকা আয় করতে পারবেন। এমনিতে, একটি চাকরি (job) করা ব্যক্তিকে সকাল ১০ থেকে বিকেল ৬ অব্দি অফিসে গিয়ে এক ধরণের কাজ করতেই হবে।

কিন্তু, freelancing এর মাধ্যমে কাজ করা লোকেরা স্বনির্ভর (self-employed) থাকেন। তাই, ফ্রিল্যান্সিং এর মানেই হলো স্বাধীন ভাবে কাজ করা বা মুক্তপেশা। এটাও এক ধরণের ব্যবসা বললে আমি ভুল হবোনা।

এই প্রক্রিয়াতে লোকেরা, অনলাইন বিভিন্ন সূত্রের (sources) মাধ্যমে কাজ খুঁজে নিজের ইচ্ছে হিসেবে কাজ করেন। এক্ষেত্রে, যারা এভাবে স্বাধীন হয়ে freelancing এর কাজ করেন, তাদের “freelancer” বলা হয়।

আজ, ইন্টারনেট, সোশ্যাল মিডিয়া এবং বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সাইট গুলির মাধ্যমে, এই ফ্রিল্যান্সাররা (freelancer) নানান ধরণের কাজ, প্রজেক্ট বা সার্ভিস খুঁজে, সেগুলি তারা তাদের ক্লায়েন্টস (clients) দেড় জন্য নির্ধারিত সময়ে পুরো করছেন। এবং, কাজ বা প্রজেক্ট পুরো করার বিনিময়ে তাদের ক্লায়েন্টরা তাদেরকে টাকা দিচ্ছেন।

অবশ্যই, আপনি যেই প্রজেক্ট বা কাজ করবেন বলে ভাবছেন, তার জন্য কত টাকা নিবেন, সেটা আপনার ক্লায়েন্ট (client) এর সাথে আগেই ঠিক করে নিতে পারবেন। এবং, সঠিক ভাবে কাজ শেষ হওয়ার পর, আপনার টাকা আপনাকে দিয়ে দেয়া হয়।

এই মাধ্যমে কাজ করার সুবিধে অনেক। ফ্রিল্যান্সিং এর কাজে আপনি নিজেই ঠিক করতে পারবেন যে, আপনি কতটা সময় কাজ করতে চান, কতটুকু কাজ করতে চান এবং এই কাজ আপনি পার্ট টাইম (part-time) করবেন না ফুল টাইম (full-time).

তাছাড়া, ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে নেয়া কাজ গুলি করার জন্য আপনার কোনো বিশেষ জায়গার প্রয়োজন হবেনা। কারণ, প্রায় সব ধরণের কাজ করার জন্য আপনার কেবল একটি ল্যাপটপ (laptop) বা কম্পিউটারের (computer) এবং তার সাথে ইন্টারনেট কানেক্শনের প্রয়োজন।

তাই, সবটাই আপনি নিজের ঘরে বোসে বোসেই করতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং কে আমরা একটি বিসনেস (business) হিসেবেও নিয়ে কাজ করতে পারি।

সোজা সাপটা, ফ্রিল্যান্সিং কি বা কাকে বলে ?

Freelancing মানে হলো, যেই কাজের বিষয়ে বিশেষ অভিজ্ঞতা বা দক্ষতা (skills) আপনার আছে, তার সাথে জড়িত কাজ অন্যদের জন্য করা এবং তার বিনিময়ে টাকা নেয়া।

তাই, অন্যরা তাদের প্রয়োজন হিসেবে আপনাকে কাজ দিবে, এবং সেই কাজ যদি আপনি জানেন, তাহলে নির্ধারিত সময়ে আপনার তাকে সেই কাজ করে দিতে হবে।

এক্ষেতের, আপনার এমন কিছু দক্ষতা (skills) বা কাজ জানা থাকতে হবে, যেগুলি লোকেরা আপনার থেকে কিনতে চাইবেন বা করাতে চাইবেন।

তাছাড়া, এমন ভাবেও বলা যেতে পারে যে, freelancing হলো এমন একটি প্রক্রিয়া, যেখানে আপনি আপনার জানা কাজ বা দক্ষতা ব্যবহার করে অন্যদের জন্য কাজ করেন।

এখানে আপনি বিভিন্ন ধরণের কাজ করতে পারবেন। যেমন, writing, designing, digital services, selling services বা যেকোনো অন্য কাজ যেটা আপনি জানেন এবং যেটা লোকেরা আপনাকে দিয়ে করাতে চায়।

এই কাজগুলি, ঘন্টায় (hourly)ডেইলি (daily)সপ্তাহিক (weekly) বা মাস (monthly) হিসেবে করতে পারবেন।

তাহলে, শেষে এটাই আমি বলবো, যদি আপনি ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ করতে চান এবং এখান থেকে অনলাইন টাকা আয় করতে চান, তাহলে সবচে আগেই এটা দেখতে হবে যে, আপনার মধ্যে এমন কি বিশেষ ট্যালেন্ট (talent), কোয়ালিটি, দক্ষতা (skills) রয়েছে যার বিনিময়ে লোকেরা আপনার ওপরে ভরসা করে কাজ দিবেন।

তাহলে, ফ্রিল্যান্সিং কি বা freelancer কাকে বলে, এবেপারে হয়তো আপনার ভালো ভাবে জ্ঞান হয়ে গেছে।তাহলে, চলুন এখন আমরা Freelancing এর বিষয়ে আরো কিছু জেনেনেই।

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করব ? (How to start Freelancing)

আজ, ইন্টারনেট এবং এর ব্যবহার প্রায় সব জায়গায় হচ্ছে বলে আমি ভাবি। এবং, freelancing এর কাজ করার জন্য, সবচে প্রথম জিনিস যেটা আপনার লাগবে, সেটা হলো “Internet“.

কারণ, নিজের জন্য কাজ খোঁজার থেকে আরম্ভ করে, কাজটি তৈরি করে আপনার ক্লায়েন্ট (client) কে জমা দেয়া, সবটাই ইন্টারনেটের মাধ্যমেই বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলিতে গিয়ে,   আপনার করতে হবে।

তাছাড়া, এই মাধ্যমে টাকা আয় করার জন্য আপনার প্রচুর নতুন নতুন কাজ বা প্রজেক্টস (projects) এর প্রয়োজন হবে।

তার জন্য আপনাকে, নিজের কাজ বা দক্ষতার (skills) প্রচার বা মার্কেটিং ইন্টারনেটের দ্বারা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম (platform) গুলিতে গিয়ে করতে হবে। যেমন, social media websites, social media groups, freelancing marketplace আরো অনেক।

নিজের দক্ষতা (skills) প্রচার বা মার্কেটিং করলে, লোকেরা জানতে পারবেন যে আপনি কোন কাজের বিশেষজ্ঞ বা এক্সপার্ট এবং কোন কাজ আপনি তাদের জন্য করতে পারবেন।

এতে, ভবিষ্যতে আপনার দক্ষতার (skills) সাথে জড়িত বিভিন্ন project বা কাজ অনলাইন পেয়ে যাওয়ার সুযোগও বেড়ে যাবে।

উদাহরণ স্বরূপে, আমি bloggingSEO এবং Website তৈরি করতে এক্সপার্ট। এক্ষেত্রে, আমি যদি লোকেদের আমার দক্ষতার (skills) বা নলেজের ব্যাপারে না জানাই, তাহলে তারা জানবেন কিভাবে যে আমি তাদের জন্য SEO বা website এর সাথে জড়িত কাজ গুলি করে দিতে পারবো। তাই তো….?

তাই, ফ্রিল্যান্সিং এর ক্যারিয়ার শুরু করার সাথে সাথে, নিজের কাজের নলেজ, অভিজ্ঞতা, দক্ষতার অনলাইন প্রচার বা মার্কেটিং করাটা অনেক জরুরি।

মনে রাখবেন, অনলাইন যেকোনো মাধ্যমে যখন লোকেরা আপনাকে কোনো কাজ বা project দিবেন, তখন তারা আপনার ওপরে অনেক ভরসা করেই সেই কাজটি দিবেন।

তাই, আপনার কাজের ভালো নাম, কাজের অভিজ্ঞতা, ভালো দক্ষতা এগুলি হবে আপনার ব্র্যান্ড (brand) বা নামের পরিচয়। এবং, আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ারে, একটি ভালো ব্র্যান্ড বা নাম তৈরি করতে পারলেই, অধিক লোকেরা সহজে আপনার ওপরে ভরসা করে কাজ বা প্রজেক্ট দিবেন।

কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার (career) আরম্ভ করবো (step by step)

ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার (career) শুরু করার জন্য আপনি নিচে দেয়া স্টেপস গুলি এক এক করে জেনেনিতে পারেন।

১. নিজের লক্ষ্য (Goal) সঠিক ভাবে সেট করুন

সবচে আগেই, আপনার কিছু জিনিস বা লক্ষ্য (goals) সঠিক ভাবে সেট করে নিতে হবে। যেমন, আপনি এই মাধ্যমে কতটুকু কাজ করতে চান ? কতটা সময় দিতে চান ? আপনি কি, নিজের চাকরির সাথে সাথে এই কাজ চালিয়ে যাবেন এবং পার্ট-টাইম ইনকাম করবেন না কি ফুল টাইম ক্যারিয়ার হিসেবে ফ্রিল্যান্সিং করবেন।

এগুলি ব্যাপারে, প্রথমেই ঠিক কোরে নিতে হবে। এতে, পরে আপনি আপনার লক্ষ হিসেবে এগিয়ে যেতে পারবেন।

২. কোন বিষয় (niche) নিয়ে কাজ করবেন ?

দ্বিতীয়তে আপনার, নিজের কাজের টপিকসাবজেক্ট বা niche কি হবে সেটা নিয়ে ভাবতে হবে। আপনি, যেকোনো একটি বিষয় নিয়ে কাজ খুঁজতে ও করতে পারবেন। যেমন, content writingweb designingcoding এর কাজ, Logo designingSEO servicesVideo creating, video editing, content marketing বা আরো অনেক কাজ নিয়ে আপনি শুরু করতে পারবেন।

কিন্তু, আপনি যেই niche বা টপিক নিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করবেন ভাবছেন, সেই বিষয় বেঁচে নেয়ার আগেই ৪ জিনিস অবশই দেখবেন।

  • আপনার বেঁচে নেয়া টপিক এমন হতে হবে যার বিষয়ে আপনার পুরো অভিজ্ঞতাদক্ষতা এবং জ্ঞান রয়েছে।
  • যেই কাজ করে এবং যার বিষয়ে নতুন নতুন জিনিস শিখে আপনি ভালো পান সেই কাজ করবেন।
  • আপনি যেই niche বা টপিক টার্গেট করে ফ্রিল্যান্সিং করবেন ভাবছেন, সেই niche এর মার্কেটে কতটা প্রয়োজন এবং চাহিদা আছে সেটা জানা জরুরি।
  • এমন বিষয় বা niche নিয়ে কাজ করতে হবে, যেই বিষয়ে আপনার আবেগ (passion) রয়েছে। এতে, কাজ করে আপনি বিরক্ত (bore) হবেননা এবং, বেশি সময় কাজ করতে পারবেন।

তাহলে, freelancing business এর জন্য কোন বিষয় নিয়ে কাজ করবেন, সেটার সিদ্ধান্ত নেয়ার আগেই ওপরে বলা ৪ টি পয়েন্ট অবশই মনে রাখবেন।

৩. কোন কোন freelancing platform বা site এ কাজ করবেন ?

ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করার জন্য আপনি বিভিন্ন অনলাইন freelancing সাইট বা মার্কেটপ্লেস গুলিতে গিয়ে কাজ শুরু করতে পারবেন।

এই ধরণের সাইট গুলিতে বিভিন্ন employer বা clients রা বিভিন্ন ধরণের কাজ করানোর জন্য ফ্রিল্যান্সার দেড় খুজেঁন। এবং, ফ্রিল্যান্সার রা নতুন নতুন কাজ খোঁজার জন্য এই সাইট গুলিকে ব্যবহার করেন।

মনে রাখবেন, এই সাইট গুলিতে হাজার হাজার লোকেরা বিভিন্ন ধরণের কাজ করানোর জন্য বিশ্বাসী freelancer দেড় খুজেঁন। এবং, আপনি যদি প্রথমেই নিজের ক্লায়েন্ট (client) এর জন্য সময় মতো ভালো ভাবে কাজ করে দিতে পারেন, তাহলে আপনার ক্যারিয়ারে এ অনেক ভালো প্রভাব ফেলবে।

আমি আগেই বলেছি, এই কাজে পুরোটাই বিশ্বাসের ওপরে নির্ভর। তাই, আপনি যদি সত্যি কথা বলে সঠিক সময়ে নিজের কাজ ভালো করে পুরো করে client কে জমা দেন, তাহলে এতে সহজে টাকা পেয়ে যাওয়ার সাথে সাথে আপনার প্রতি অন্যদের ভরসাও বেড়ে যাবে।

এতে, আপনার একটি ভালো পরিচয় তৈরি হয়ে যাবে এবং পরের বারের জন্য আপনাকে কাজ দিতে লোকেরা ভাববেননা।

তাহলে, এখন আমরা নিচে দেখে নেই, ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ করার জন্য আমরা কোন কোন সাইট ব্যবহার করতে পারি।

১০টি জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট:

আমরা ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে জানলেও হয়ত সেরকম ভাবে সঠিক জানিনা যে কোন ওয়েবসাইট গুলো মূলত ফ্রিল্যান্সারদের নিয়ে কাজ করে । বা জানলেও হয়ত দুই একটি ওয়েবসাইট এর বেশি নয়। তাই আজ আমরা আপনাদের কাছে আপনাদের জানা অজানা এরকম দশটি ওয়েবসাইট তুলে ধরব:-

1. Upwork

2013 সালের দিকে মূলত Elance এবং oDesk নামের যে দুটি ওয়েবসাইট চালু হয়েছিল তা থেকেই ফ্রিল্যান্সারদের এক অন্য রকম ক্ষেত্র তৈরি হয়। আর ঠিক তখনি এই দুটি ওয়েবসাইটের হাত ধরেই Upwork এর যাত্রা শুরু হয়।

Upwork যে শুধুমাত্র একটি জনপ্রিয় ওয়েব সাইট তা নয়, বরং জনপ্রিয়তার পাশাপাশি এটি একটি অন্যতম বড় ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট। বর্তমানে প্রায় 1.5 মিলিয়ন ক্লায়েন্ট এই ওয়েবসাইটের সাথে জড়িত আছে। এবং শুধু তাই নয় , বর্তমানে এর সংখ্যা আরো বেড়ে চলেছে

Upwork এর মাধ্যমে আপনি আপনার সুপ্ত প্রতিভা গুলোকে অনেক বিস্তারিত ভাবে তুলে ধরতে পারবেন। কেননা এখানে writing, coding, graphic design,  web development , graphics design সহ আরো বিভিন্ন ধরনের কাজ করতে পারবেন। Upwork একটি বিশ্ব ব্যাপী বিস্তৃত ওয়েবসাইট এবং এখানে ক্লায়েন্ট রা ফ্রিল্যান্সার খোজা সহ এমনকি ফ্রিল্যান্সাররাও তাদের কাজ খুজে নিতে পারে। বর্তমানে প্রায় 180 টিরও অধিক দেশে এই Upwrok এর বিস্তৃতি রয়েছে।

2. Freelancer:

Freelancer একটি অন্যতম ফ্রিল্যান্সিং সাইট।এটি যে রকম জনপ্রিয় ঠিক তেমনি পুরোনো। Freelancer ওয়েবসাইটের যাত্রা শুরু হয়  2009 সাল থেকে। এবং আস্তে আস্তে এটি জনপ্রিয়তার তুঙ্গে উঠে যায়। বর্তমানে প্রায় 15 মিলিয়ন এর থেকেও বেশি ইউজার এই ওয়েবসাইট ব্যবহার করছে।

Upwork এর মতো Freelancer ও আপনার প্রতিভাকে জাগিয়ে তুলতে সহায়তা করবে। এখানেও   আপনি web design, coding, graphics সহ আপনার পছন্দ অনুযায়ী কাজ খুজে নিতে পারেন। এবং ক্লায়ন্ট রাও তাদের কাজ অনুযায়ী ফ্রিল্যান্সার হায়ার করতে পারে। Freelancer সাইটে ফ্রিল্যান্সারদের 10% ফি চার্জ করার ব্যবস্থা করা হয়।

3. Guru:

Guru আর একটি জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং ওয়েব সাইট। এখানে প্রায় 1.5 মিলিয়ন এর অধিক ইউজার রয়েছে। এই সাইটে প্রায় 100 মিলিয়ন এরও বেশি কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এবং প্রায় 200 মিলিয়ন এর বেশি মানি পেইড করা হয়েছে। এই সাইটটি বিশ্বব্যাপী পরিচালিত হচ্ছে।

এই ওয়েবসাইট এ আপনি আপনি ঠিক একই রকম ভাবে app development,  IT design, web design সহ প্রায় সব ধরনের কাজ খুজে নিতে পারবেন। এখান একই ভাবে ক্লায়েন্ট রা কাজ পোস্ট করে এবং ফ্রিল্যান্সার রা শর্ত অনুযায়ী তাদের কাজ খুজে নেয়। এবং এই সাইটটি SafePay নাম এর একটি প্রোসেস ব্যবহার করে যেটি সম্পূর্ণ তাদের নিজস্ব।

4. PeoplePerHour:

PeoplePerHour  একটি আলাদা ধরনের ওয়েবসাইট যেমনটা আপনারা Guru, Freelancer  বা Upwork এর ক্ষেত্রে দেখেছেন। এটির নাম অনুযায়ী কাজের ধরন । অর্থাত্ অন্যান্য সাইট এ আপনি যেমন নিজের ইচ্ছে মতো কাজ করতে পারবেন এখিনে সেরকম নয়। এই সাইটে আপনাকে hour বেসিসে বিড করতে হবে। এবং তাই এটি একটি অন্য ধরনের ওয়েবসাইট

PeoplePerHour থেকে আপনি দুইভাবে কাজ করতে পারেন। একটি হলো কোনো প্রোফেসনাল আগে থেকেই তার রেইট দিয়ে রাখবে এবং সে অনুযায়ী ক্লায়েন্ট তাকে কাজ দিবে । আর একটি হলো ক্লায়েন্ট নিজেই কোনো কাজ দিবেন এবং আপনি আপনার পছন্দ অনুযায়ী সে কাজ করবেন। এই সাইটের একটি বৈশিষ্ট্য হলো এখানে বিডিং এর কোনো ঝামেলা নেই। আপনি আপনার ইচ্ছে ভতো রেট দিবেন আর যার সেই রেট পছন্দ সে আপনাকে কাজ দিয়ে দিবে। এটি ক্লায়েন্ট এবং ফ্রিল্যান্সার দুজনের জন্যই একটি সুবিধে জনক সাইট। আপনি যদি টপ রেটেড প্রোফেশনালদের খুজে পেতে চান তাহলে এই সাইটটি সম্পূর্ণ আপনার জন্য।

5. Speedlancer:

আপনি যদি কোনো তাড়াহুড়ো এর মধ্যে থাকেন অর্থাৎ আপনার যদি খুব তাড়াতাড়ি কোনো কাজ করে দিতে চান বা আপনার কাজ যদি তাড়াতাড়ি করা দরকার বলে মনে করেন তাহলে এই ওয়েবসাইট শুধু আপনার জন্য। এখানে আপনি সকল কাজ ঘন্টার মাঝেই করতে সক্ষম হবেন।

এবং অবশ্যই এখানে আপনার ফাস্ট সার্ভিস এর জন্য যথার্থ পে করা হবে। ধরুন আপনি যদি 600 ওয়ার্ডের কোনো কাজ করে দেন তাহলে আপনাকে 69 ডলার পে করা হবে যেটি অন্যান্য সাইটে আপনি স্বাভাবিক ভাবে মাত্র 20 থেকে 30 ডলার পেয়ে যাবেন।  তাই এই সাইটটি অত্যন্ত জনপ্রিয়  আপনি এখানে জব পোস্ট করা থেকে শুরু করে আপনার কাজ এর সমাপ্তি হওয়া পর্যন্ত সম্পূর্ণ সময় প্রায় মাত্র চার ঘন্টার মাঝেই সম্ভব।

6. Fiverr:

কাজ পোস্ট করে সেই কাজ থেকে যত কম রেটে সম্পূর্ণ করা সম্ভব সেটি অনেক ক্লায়েন্ট দেরই উদ্দেশ্য। তাই আপনি যদি এমন কিছু ভেবে থাকেন যে খুবই সামান্য রেইট এ আপনি আপনার কাজ সম্পন্ন করতে চান তাহলে এই ওয়েবসাইট আপনার জন্য । এখানে আপনি খুব কভ রেটে সম্পন্ন করতে সম্ভব হবেন। এই সাইট এর যাত্রার শুরু থেকেই  এটি সর্বনিম্ন 5 ডলার থেকে কাজ করতে পারবেন। এই সাইটটি আজ অনেক বছর থেকেই চালু হয়ে আসছে এবং এখানে আপনি 5 থেকে 10000 ডলারের কাজ পেতে পারেন। তাই আপনি যদি কম লেট এর কাজ করতে চান তাহলে এটি আপনার জন্য যথেষ্ট । কালক্রমে দীর্ঘদিন হলেও এই সাইট তার বৈশিষ্ট্য ধরে রেখেছে।

এখনো এমন অনেকেই রয়েছে যারা 5 ডলার এর কাজ অনেক সহজেই করতে চায়। তাই এই সাইটে আপনি প্রচুর কম রেটের কাজ পাবেন। এই সাইটে এন কাজ এতই বেশি যে প্রায়  প্রত্যেক 5 সেকেন্ড এ একটি করে নতুন কাজ এর গিগ পাওয়া যায়। প্রায়  25  মিলিয়ন এরও অধিক কাজ এই সাইটে সম্পন্ন হয়েছে। এটি একদিকে ক্লায়েন্ট এর জন্য যেমন কম রেটে অনেক কাজ করে নিতে পারবে ঠিক তেমনি প্রফেশনালদের জন্য এটি প্রচুর কাজ এর ক্ষেত্র।

7. FlexJobs:

আপনি যদি আপনার সুবিধে মতো কাজ এর খোজ করেন তাহলে FlexJobs  আপনার জন্যই   কেননা এতে 50 টি ক্যাটাগরিতে কাজ খুজতে পারবেন। এমনকি এই কাজ গুলো করার জন্য আপনার নির্দিষ্ট সময় মেনে চলতে পারবেন। অর্থাৎ আপনি পার্ট টাইম কিংবা ফুল প্রফেশনালি যে কোনো কাজ ই যদি করতে চান তাহলে এ দুই রকমের কাজই আপনি করতে পারবেন। তাই বর্তমানে এই সাইটটি একটি অন্যতম সাধারণ ফ্রিল্যান্সিং সাইট।

এখানে যেহেতু 50 টিরও বেশি ক্যাটাগরিতে কাজ পাওয়া যায় তাই কাজের কোনো কমতি দেখতে পারবেন না। আর তাই এই সাইটে এসে আপনাকে কখনো হতাশ হতে হবে না। আপনি যদি অন্য সাইট থেকে সুবিধা করতে না পারেন তাহলে এই সাইট সম্পূর্ণ আপনার জন্য। কেননা এখান থেকে আপনি অনেক সহজেই আপনার সাথে যাবে এরকম কাজ খুজে নিতে পারবেন ।

8. TopCoder:

TopCoder যতটা না একটি ফ্রিল্যান্সিং সাইট হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে তার থেকে বেশি এটি উদ্যোক্তা সাইট হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। এখানে আপনি আপনার স্বপ্ন গুলোকে একটি রূপ দিতে পারবেন  কিংবা আপনি যা কাজ করছেন তা নিয়ে নিজেই কোনো প্রকল্প নিতে পারবেন। আর এটি মূলত ডেভেলপারদের একটি ওয়েবসাইট। অন্যান্য সাইট থেকে এই সাইট এর পার্থক্য হলো এখানে আপনি ক্লায়েন্ট হিসেবে কোনো প্রজেক্ট দিলে আপনি একজন TopCoder এর ইমপ্লয়ি দ্বারা গাইড হবেন যাকে তারা বলে কো-পাইলট।

আপনি যদি এই সাইটে কোনো কাজ আপলোড করেন তাহলে আপনার কো- পাইলট সেগুলোকে একটি চ্যালেঞ্জ এর সিরিজ রূপে প্রকাশ করবে। এরপর সেই ওয়েব সাইট এর ইউজাররা সেই চ্যালেঞ্জ গুলো কমপ্লিট করবে  আর আপনি যেটি আপনার ভালো লাগবে সেই কমপ্লিশন টি নিয়ে নিবেন। এর মানে এখানে আপনি একটি কাজ এর জন্য অনেক গুলো সাবমিশন পাবেন। যার ফলে তুলনামূলক ভালো কাজ এর ফলাফল দেখতে পারবেন । এখানে প্রায় সকল প্রকার ডেভেলপমেন্ট যেমন app development, web development সহ যে কোনো কাজ পেতে পারেন।

9. Codeable:

ওয়ার্ডপ্রেস হলো প্রত্যেক ওয়েব সাইট এর ব্যাকবোন। তাই এই ওয়ার্ড প্রেস ইন্টারনেট এর 25% এর ও বেশি অংশ জুড়ে রয়েছে।  আপনি যত ভালো ওয়েব সাইটের ওয়ার্ড প্রেস এর কাজ করতে পারবেন আপনার ওয়েব সাইট তত ডিমান্ড পাবে।তবে আজ এই সার্ভিসটি দেয়া অনেকাংশে কষ্টসাধ্য হয়ে উঠছে। আর Codeable মূলত এই সমস্যার সমাধান এর চেষ্টা করে থাকে।

Codeable এ শুধু wordpress developer দের জন্য এক অনন্য সাইট। এখানে আপনি আপনার কাজ পোস্ট করবেন। এবং অন্য দিকে যেসব দক্ষ wordpress developer রয়েছে তারা আপনার কাজ বাছাই করবে এবং তা পুরোটা সম্পূর্ণ করবে। এটি যেমন ক্লায়েন্ট দের ওয়েবসাইটের মেইনটেন্যান্স এর জন্য গুরুত্বপূর্ণ ফ্রিল্যান্সিং ওয়েব সাইট। ঠিক তেমনি প্রফেশনালদের জন্য একটি যথেষ্ট পছন্দনীয় ফ্রিল্যান্সিং সাইট। তবে এটি শুধু wordpress developer দের জন্য কাজ করে থাকে।

10. Yeeply:

লুইস পিকুরেলি এবং হেক্টর বাদাল কর্তৃক 2013 সালে ট্রেডিশনাল কিছু ওয়েব সাইট এর সমস্যা দূরীকরণ করার জন্য এই সাইটটি পথ চলা শুরু করে। ডেভেলপমেন্ট ছাড়া কখনোই কোনো অ্যাপ বা ওয়েবসাইট দীর্ঘদিন চালানো সম্ভব না।  তাই সেই ডেভেলপমেন্ট যদি যথার্থ না হয়ে কোনো ক্রুটি পূর্ণ হয় তাহলে অ্যাপটি কখনো চালানো সম্ভব হবে না।

এর জন্য Yeeply আপনাদের সামনে চলে এসেছে। এখানে আপনি যে কোনো কাজ পোস্ট করলে সেখানে  app developer রা তাদের টিম নিয়ে সেটি সম্পাদনের জন্য এগিয়ে আসবে। এবং আপনার যে টার্মস পছন্দ হবে সেই টিমকে আপনার নির্দিষ্ট ডেভেলপমেন্ট এর কাজে নিয়োজিত করতে পারবেন। আর এর জন্য আপনার দেয়া প্রজেক্ট এর আন্ডারে আরো একজন থাকবে যে আপনার প্রজেক্ট টি সম্পন্ন হওয়ার পিছনে খেয়াল রাখবে। এভাবে আপনি আপনার app development , web development এর কাজ সম্পন্ন  করতে পারবেন।

তাই, আপনি যদি নিজের ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করার কথা ভাবছেন, তাহলে ওপরে দেয়া ওয়েবসাইট গুলিতে গিয়ে কাজ শুরু করতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং সাইট গুলিতে গিয়ে কি করবেন ?

আপনি কাজ করতে গেলে হয়ত সঠিক পদ্ধতি না জেনে আশাতীত ফলাফল নাওপেতে পারেন। এক্ষেত্রে সঠিক জ্ঞান এবং পদ্ধতি জানা অত্যন্ত জরুরি। তাই কীভাবে এই ক্যারিয়ার কে আপনি আগায় নিতে পারবন  তা নিয়ে কিছু আলোচনা করা হলো:

আপনার পারদর্শিতার বিষয় কে এগিয়ে রাখুন:

আপনি এতগুলো সেক্টর দেখে হয়ত বুঝে উঠতে পারবেন না যে কোথা থেকে আপনি কাজ শুরু করবেন। কিংবা আপনি হয়ত অতিরিক্ত লাভ এর আশায় সবগুলো এর পিছনে লেগে যাবেন। তবে এটি কখনোই ঠিক না।

আপনি যে কোনো একটি বিষয় কে স্থির করুন। যে বিষয়ে আপনি বেশি পারদর্শী প্রথমে সে বিষয়টি তে ফোকাস করুন  এবং আস্তে আস্তে আপনি অন্য বিষয়গুলোতে ফোকাস করতে পারেন । তবে প্রথমে অবশ্যই আপনাকে একটি নির্দিষ্ট পথে এগোতে হবে।

প্রোফাইল তৈরি করুন:

একটি মানসম্পন্ন প্রোফাইল তৈরি করুন। এই প্রোফাইলটি অনেকটা আপনার পোর্টফোলিও হিসেবে কাজ করবে। আপনি যখন কাজ করতৃ যাবেন তখন ক্লায়েন্ট রা আপনার কাজের স্যামপল দেখতে চাবেন। এবং অধিকাংশ ক্ষেত্রে তার আপনাকে আপনার প্রোফাইল দেখে বিবেচনা করবে। আপনার প্রোফাইল যত উন্নত হবে আপনি তত বেশি সুবিধা পাবেন।

কাজ খুজুন ও বিড করুন:

আপনি যখন একটি শক্তিশালী প্রোফাইল তৈরিতে সক্ষম হবেন তারপরই আপনার উচিত আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী কাজ খোজা। যেই কাজগুলো আপনা কোয়ালিটি এর সাথে যাবে সেগুলোতে বিড করুন। একটি দুটিতে বিড করে বসে থাকবেন না। চেষ্টা করবেন বেশি বেশি বিভ করার। এক পর্যায়ে আপনি নিশ্চয়ই আপনার কাজ কে হাতিয়ে পাবেন।

কাজ সম্পন্ন করুন:

আপনি কাজ খুজে পেলে বিড করুন এবং ক্লায়েন্ট যদি আপনার বিডে খুশি হয়ে যায় তাহলে আপনি তাদেরকে কাজটি সঠিক সময়ে ডেলিভারি করুন। কেননা আপনি যদি কাজটি ফেলে রাখেন কিংবা সঠিক সময়ে ডেলিভারি করতে না পারেন তাহলে আপনার রেটিংস কমে যাবে। এবং আপনি  যদি ক্লায়েন্ট এর সাথে ভালো ব্যবহার করে তাদের মুগ্ধ করতে ব্যর্থ হন তাহলে আপনার জন্য বিষয়টি মোটেও ভালো হবে না। তাই আপনি যথাসময়ে কাজের ডেলিভারি দিন।

পেইড হন এবং ফাইভ স্টার রেটিংস নিন:

পরিশেষে আপনি যগন আপনার ক্লায়েন্টকে কাজের সরবরাহ করবেন আপনার ক্লায়েন্ট এর কাছে পেমেন্ট নিন। এবং তাকে আপনার প্রোফাইলে রেটিংস এর জন্য অনুরোধ করুন। স্বাভাবিক ভাবে সকল ক্লায়েন্ট কাজ শেষে অবশ্যই নিজে থেকে রেটিংস দেয়। তবুও ভদ্রতা সাপেক্ষে তাদের সাথে প্রীতি মূলক ব্যবহার দেখানো ফ্রিল্যান্সিং এর একটি অন্য রকম দিক।

আপনি যদি সঠিক জ্ঞান ,স্কিল এবং  পদ্ধতি অনুসরণ করে ফ্রিল্যান্সিং জগতে প্রবেশ করেন তাহলে আপনাকে কখনো হতাশ হতে হবে না। অনেকেই ভাবে যে এখানে কাজ পাওয়া বেশ শক্ত। তবে সে ধারনা মোটেও সঠিক নয় । কিন্তু আপনি যদি ভালো স্কিল এর অধিকারী না হন তবে একাজ আপনার জন্য একটু কষ্ট সাধ্য হয়ে  উঠবে।

তাই আজ থেকে আপনিও নিজের স্কিল নিয়ে কাজ করুন। এবং নিজেকে একজন দক্ষ রূপে তৈরি করুন। এবং পরবর্তী তে ফ্রিল্যান্সিং জগতে অংশ নিয়ে আপনিও হয়ে উঠুন একজন আদর্শ ফ্রিল্যান্সার। যা আপনার পরিচয় কে আরো বর্ধিত করতে সহায়তা করবে।

ফ্রিল্যান্সিং করে কত টাকা আয় করা যাবে ?

ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা আয় করার কোনো সীমা নেই। হে, এটাও এক রকমের ব্যবসা (business), যেখানে আপনার কাছে যত বেশি কাজ আসবে এবং যত বেশি কাজ আপনি করে দিতে পারবেন, ততটাই বেশি আপনার ইনকাম হবে।

PayPal এর একটি survey বা report হিসেবে, ২৩ % ভারতীয় ফ্রিল্যান্সাররা ৬০ লক্ষ টাকা প্রত্যেক বছরে আয় করছে।

এবং, বাকি ২৩% রা ২.৫ লক্ষ থেকে ৫ লক্ষ টাকার ভেতরে টাকা আয় করছেন। তাছাড়া, বাকি ৫৪ % ফ্রিল্যান্সাররা ২.৫ লক্ষ থেকেও কম টাকা বছরে আয় করছেন।

তাই, সোজা ভাবে বললে, ফ্রিল্যান্সিং এ ক্যারিয়ার বানালে লাভ আছে এবং এর থেকে আপনি লক্ষ লক্ষ টাকা ঘরে বসেই আয় করতে পারবেন। কিন্তু, আপনাকে ভরসা করে কতজন কাজ দিচ্ছে এবং কতটা কাজ আপনি সম্পূর্ণ করতে পারছেন, সেটার ওপরে আপনার আয় নির্ভর করবে।

আজ, অনলাইন এবং ইন্টারনেটের দুনিয়াতে সুযোগ অনেক রয়েছে। লক্ষ লক্ষ লোকেরা, বিভিন্ন ছোট ছোট কাজের জন্য, একজন কর্মচারী (employee) রেখে তাকে মাসে মাসে টাকা দেয়ার থেকে, একজন freelancer কে দিয়ে সেই কাজ অনেক কম টাকায় সহজে করিয়ে নিচ্ছেন।

কোনো বিশেষ কাজে, আপনার যত বেশি অভিজ্ঞতা (experience) থাকবে, ততটাই বেশি টাকা আপনি প্রত্যেক কাজের জন্য চার্জ (charge) করতে পারবেন।

কোন ফ্রিল্যান্সিং কোর্স শিখতে হবে ?

সোজা ভাবে বললে, ফ্রিল্যান্স করার জন্য বা শেখার জন্য কোনো কোর্স (course) করার প্রয়োজন আমাদের হয়না।

হে, কিছু সাধারণ জ্ঞান যেমন, কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবো, কোন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কাজ খুঁজবো এবং প্রথমেই আমাদের কি কি করতে হবে, এগুলির ব্যাপারে জেনে নিতে হবে। এবং, এগুলির ব্যাপারে সবটাই আমি ওপরে বলেছি।

এখন, ফ্রিল্যান্সিং কোর্স বলেতো বিশেষ কিছুনা নেই, যদিও আপনি freelancing এর কাজ করার জন্য, কিছু বিশেষ কোর্স করতে পারেন, এবং যেগুলি শেখার পর আপনারা ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ শুরু করতে পারবেন। যেমন –

  •  Translating course : আজকাল বিভিন্ন ভাষা জানলে আপনারা translator এর কাজ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে, ভাষা ট্রান্সলেট করার দক্ষতা থাকাটা আপনার জন্য অনেক কাজ এনেদিতে পারে।
  • Graphic design : আজকাল, মার্কেটিং, লোগো বানানো এবং প্রায় অনেক কাজেই গ্রাফিক ডিসাইনার দেড় প্রয়োজন হয়। তাই, এই কোর্স আপনার জন্য লাভজনক হতে পারে।
  • Website বানানো : এই ব্যাপারে আমি আপনাদের না বললেও চলবে। কারণ, আজকাল ওয়েবসাইট বানানোর কাজ জানাটা কতটা লাভজনক সেটা আমরা সবাই জানি।
  • Article writing : আপনার যদি লেখার অভিজ্ঞতা বা দক্ষতা রয়েছে বা আপনি আর্টিকেল লেখার একটি কোর্স করে, ভালো ভাবে এই শিল্প (art) শিখতে পারেন, তাহলে বিভিন্ন ব্লগ (blog) বা কোম্পানির ওয়েবসাইটের জন্য লিখতে পারবেন।
  • Video editing : বিভিন্ন কোম্পানি বা অনলাইন marketer রা নিজের ব্র্যান্ড এর জন্য ভিডিও এডিটিং কোরান। তাই, এই ব্যাপারে কোর্স করলে আপনি ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে অনেক কাজ পেতে পারবেন।
  •  Coding (PHP/Java/Css) : আজকাল, web development বা application building এর কাজে বিভিন্ন coding language এর প্রয়োজন হয়। এক্ষেত্রে, আপনার যদি কোনো বিশেষ coding language এর জ্ঞান বা দক্ষতা থাকে, তাহলে এর সাথে জড়িত অনেক কাজ পেয়ে যাবেন।

এগুলি ছাড়াও, অনেক আরো কোর্স রয়েছে, যেগুলি করে নিজেকে একজন এক্সপার্ট বানিয়ে আপনি ফ্রিল্যান্সিং এর দুনিয়াতে আসতে পারবেন।

আপনার মাঝে এরকম প্রশ্ন উঠতে পারে যে কীভাবে আপনি ফ্রিল্যানসিং ক্যারিয়ার তৈরি করবেন। আপনি এক্ষেত্রে সঠিক পরিকল্পনা করে রাখতে পারেন। আর আমরা আপনার সামনে কিছু পয়েন্ট তুলে ধরছি যেগুলো একজন স্টার্টার হিসেবে আপনি ফলো করতে পারেন:-

1. আপনার লক্ষ্যগুলি নির্দিষ্ট করুন ।
2. একটি লাভজনক টপিক খুঁজে নিবেন।
3. আপনার লক্ষ্য অনুযায়ী ক্লায়েন্ট সনাক্ত করবেন।
4. আপনার সার্ভিস এর জন্য লাভজনক দাম নির্ধারণ করবেন।
5. একটি উচ্চ-মানের পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট তৈরি করবেন ।
6. আপনি কী কাজ করতে পারেন তার দৃষ্টান্ত মূলক উদাহরণ তৈরি করুন (যেমন আপনার পোর্টফোলিও সাইট) ।
7. ভালো করে ভেবে নিয়ে আপনার প্রথম ক্লায়েন্ট এর সাথে কাজ শুরু করবেন।
8. আপনার প্রোডাক্টে যার সাথে কাজ করবেন সেই ক্লায়েন্টদের কে তুলে ধরুন ।
9. কীভাবে নিজেকে ক্লায়েন্টের সামনে তুলে ধরবেন তা ঠিক করে নিন।
10. ফ্রিল্যান্স ব্যবসায়ের সাথে আপনার দিনের কাজগুলি মিশিয়ে ফেলবেন না।

এগুলো একজন বিগিনার হিসেবে আপনি ফলো করতে পারেন। এবং আশা করা যায় আপনি সফল হতে পারবেন।

সর্বপরি আমাদের পরামর্শঃ

আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং করে ঘরে বসে আয় করতে চান তাহলে পূর্ব পরিকল্পনা করাটা খুবই জরুরী। পরিকল্পনা করুন, যে কোন কাজের দক্ষতা অর্জন করুন তার পর কানে নেমে পড়ুন অবশ্যই সফল হবেন।

আমাদের সম্পর্কে কোন অভিযোগ বা কোন পরামর্শ থাকলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

আরও পড়ুন

8 thoughts on “ফ্রিল্যান্সিং কী? কীভাবে শুরু করবেন? সেরা ১০ ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস”

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap