ইউটিউবে কি কি বিষয়ে ভিডিও তৈরী করলে ভালো হবে (বিস্তারিত)

বর্তমানে ইউটিউব সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম। এই বিষয়ে আমরা সকলেই জানি। আর এই সময়ে ইউটিউব চ্যানেল কাজে লাগিয়ে প্রচুর টাকা আয় করে যাচ্ছে।

ইউটিউবে কি কি বিষয়ে ভিডিও তৈরী করলে ভালো হবে (বিস্তারিত)
ইউটিউবে কি কি বিষয়ে ভিডিও তৈরী করলে ভালো হবে (বিস্তারিত)

আর আপনি যদি একজন নতুন মানুষ হিসেবে ইউটিউব থেকে আয় করার জন্য চিন্তা করে থাকেন। তাহলে আপনাকে কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে।

আমরা এই ওয়েবসাইটে ইউটিউব থেকে আয় করার বিষয়ে অনেক গুলো পোস্ট প্রকাশ করেছি। আপনি চাইলে সেগুলো পড়তে পারেন।

আজ আমি আপনাকে জানাতে যাচ্ছি ইউটিউবে কি কি বিষয়ে ভিডিও তৈরী করলে ভালো হবে। আপনি যদি এই বিষয়ে সঠিক ধারণা নিতে পারেন। তাহলে ইউটিউবে সফল হতে পারবেন।

মূলত ইউটিউব এ কি কি বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করলে ভালো হবে। কোন ধরনের ভিডিও মানুষ দেখতে বেশি পছন্দ করে, ইউটিউবে সবথেকে বেশি পরিমাণে ভিউ হওয়া ভিডিও কোনগুলো।

আপনি যখন এই বিষয়গুলো সঠিকভাবে অনুসরণ করতে পারবেন তখনই আপনি নির্দিষ্ট বিষয়ে ইউটিউবের জন্য ভিডিও তৈরি করতে পারবেন।

আর যখন আপনি ইউটিউবে ভিডিও তৈরি করার জন্য কিছু টপিক বেছে নেবেন তখনই তাকে বলা হবে ইউটিউব নিস। তবে আজকের দিনে যারা নতুন ইউটিউব চ্যানেলে কাজ করতে আসে, তাদের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষই ইউটিউব নিশকে তেমন একটা গুরুত্ব দেয় না।

যার জন্য কোন একটা সময়ে গিয়ে তারা আর ইউটিউব প্ল্যাটফর্মের সফল হতে পারেনা। কারণ নিস নির্বাচন হলো এমন একটি ধাপ যা আপনার বর্তমান শ্রমকে ভবিষ্যতের সফলতার দিকে নিয়ে যাবে।

সেই জন্য নিজেকে একজন সফল ইউটিউবার হিসেবে গড়ে তুলতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই ইউটিউব নিস এর গুরুত্ব দিতে হবে।

এর কারণ হলো আপনি যখন ইউটিউব নিস সঠিকভাবে বুঝতে পারবেন তখনই আপনি ইউটিউব এ কি কি বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করলে ভালো হবে সেটি বুঝে যাবেন।

ইউটিউব নিস কি ?

আমরা যখন মোবাইল বা কম্পিউটার দিয়ে ইউটিউবে প্রবেশ করি, সেই সময় বিভিন্ন প্রকার ভিডিও দেখতে পারি।

কোন কোন ইউটিউব চ্যানেলে শিক্ষণীয় ভিডিও, আবার কোন কোন চ্যানেলে মুভি, নাটক আবার কোন কোন চ্যানেলে লাইভ খবর দেখতে পারি।

এই যে সকল একেকটা চ্যানেলে একেক ধরণের বিষয় নিয়ে প্রতিনিয়ত ভিডিও তৈরি করে আসছে এই সকল বিষয় গুলোই মূলত ইউটিউব নিস।

উক্ত নিস এর মাধ্যমে বুঝতে পারবেন যে, মানুষ আসলে ইউটিউবে কোন ধরণের  ভিডিও গুলো দেখে। এছাড়া কি কি বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করলে ভালো হবে।

কেন ইউটিউবে লাভ ক্ষতির হিসাব করা হয়?

সারা বিশ্বে যখন লাভ ও লসের হিসাব আবদ্ধ তখন ইউটিউব ভিডিও তৈরি কার জন্য আপনাকেও লাভ ও লসের হিসাবটা অনেক শক্ত ভাবে ব্যবহার করতে হবে।

কারণ বর্তমান সময়ে ইউটিউব প্লাটফর্মে আসা সকল নতুন ইউটিউবারের মনে একটিই উদ্দেশ থাকে সেটি হচ্ছে ইউটিউব থেকে টাকা আয় করা।

কিন্তু আপনি যদি আনন্দের সাথে ইউটিউবিং করেন তবে আপনার জন্য এটি তেমন গুরুত্ব বিষয় না।

তবে আপনার উদ্দেশ্যে যদি ইউটিউব থেকে আয় করা হয়ে থাকে। তবে আপনাকে অবশ্যই লাভ ও ক্ষতির হিসাব ভালো ভাবে বুঝে নিতে হবে।

কারণ একাটি ইউটিউব চ্যানেলকে গ্রো করার জন্যে যে, কতটা পরিশ্রম আর সময় খরচ করতে হয় তা সেই ব্যক্তি গুলো ভালো ভাবেই জানে।

যে সকল মানুষ গুলো দিনের পর দিন, রাতের পর রাত ইউটিউব চ্যানেলের জন্য ভিডিও তৈরি করে থাকে।

এর কারণ ইউটিউব আপনাকে তখনই টাকা প্রদান করবে যখন আপনার ইউটিউব ভিডিওতে বেশি পরিমাণের ভিউ আসবে।

তাই আপনি যদি ইউটিউব থেকে টাকা আয় করতে চান। সেহেতু আপনাকে জেনে নিতে হবে ইউটিউবে কি কি বিষয়ে ভিডিও তৈরী করলে ভালে হবে। আর এটি প্রতিটি ইউটিউবার এর জানাটা অত্যন্ত জরুরী।

তাই আমি এখানে আপনাকে ইউটিউব নিস এমন ভাবে প্রকাশ করব যা থেকে আপনি পরিষ্কার ধঅরণা নিতে পারবেন। আসলে মানুষ ইউটিউবে কোন প্রকার ভিডিও গুলো দেখতে পছন্দ করে।

তো চলুন বিস্তারিত তথ্য জেনে নেওয়া যাক।

ইউটিউবে কি কি বিষয়ে ভিডিও তৈরী করলে ভালো হবে ?

বর্তমান সময়ে আপনি ইউটিউবে বিভিন্ন প্রকার ভিডিও টপিক দেখতে পারবেন। কিন্তু সব ধরণের ভিডিওতে যে সমান পরিমাণের ভিউ হয় সেটি কিন্তু নয়।

কারণ আপনি যদি একটু লক্ষ্য করে তাহলে দেখতে পারবেন যে, ইউটিউবে টপিক  যে গুলো নিয়ে ভিডিও তৈরি করলে মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউ আসে। আবার এমন অনেক টপিক আছে যে গুলো নিয়ে তৈরি করা ভিডিওতে তেমন একটি ভিউ আসে না।

আমরা জানি ইউটিউবের ভিডিও গুলোতে ভিউ নিয়ে আসার জন্য অনেক কিছু কন্ডিশন রয়েছে। এরপরেও আপনি যদি ইউটিউবের নিস কে যথেষ্ট গুরুত্ব দেন। তবে আপনিও আপনার ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করার ভিডিও গুলোতে মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউ নিয়ে আসতে পারবেন।

এখানে আপমি এমন কিছূ ইউটিউব নিস বা ইউটিউবে ভিডিও তৈরি করার টপিক দেখাব, যে টপিক গুলো কেন্দ্র করে ভিডিও তৈরি করলে আপনার ইউটিউবে সফলতা পাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। যেমন-

মোটিভেশনাল ভিডিও

আপনি কোন কাজে সফলতা পাওয়ার জন্য যে সকল নীতিবাক্য প্রকাশে করে ভিডিও তৈরি করা হয়। সেই সকল ভিডিও কে বলা হয় ইউটিউব মোটিভেশনাল ভিডিও।

সচারাচর এই সকল ভিডিও গুলো দেখলে আমাদের মনে থাকা মনোবল কে জাগ্রত করা সম্ভব হয়।

আর সেই জ্য আমাদের মধ্যে এমন অনেক লোক আছে যারা তাদের ভেতরে থাকা ঘুমন্ত মনোবলকে জাগিয়ে তুলার জন্য এই সকল ভিডিও গুলোতে দেখতে আগ্রহী থাকে।

তাই আপনার মনে থাকা সকল ব্যার্থতা প্লানি, পিপ্রেশন কাটিয়ে তোলার জন্যে ইউটিউব মোটিভেশনাল ভিডিও গুলো অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

আপনার যদি প্রশ্ন হয়ে থাকে ইউটিউবে কি কি বিষয়ে ভিডিও তৈরি করলে ভালো হবে। তাহলে আপনাকে বলব আপনি প্রথমে মোটিভেশনাল ভিডিও তৈরি করুন। তাহলে অনেক ভালো সফলতা অর্জন করতে পারবেন।

কার্টুন ভিডিও

বর্তমান সময়ে ইউটিউব চ্যানেলে প্রবেশ করলেই দেখা যায় কার্টুন ভিডিও গুলোতে হিউজ পরিমানের মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউস। আর আমরা জানি এই সময়ে ছোট ছোট বাচ্চা থেকে শুরু করে আশি বছরের মুরবীরাও কার্টুন ভিডিও দেখতে পছন্দ করে।

তাই আপনি যদি প্রফেশনাল ভাবে ইউটিউবে কার্টুন ভিডিও নিয়ে কাজ করতে চান। তাহলে আপনার নিকট অবশ্যই একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থাকতে হবে।

এছাড়া আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপ এর কনফিগারেশন অনেক উন্নত মানে হতে হবে। কিন্তু বর্তমান সময়ে এন্ড্রোয়েড মোবাইলেরজন্য এমন অনেক ধরণের কার্টুন ভিডিও তৈরি করার অ্যাপস রয়েছে।

আপনি চাইলে আপনা মোবাইল দিয়েও কার্টুন ভিডিও তৈরি করতে পারবেন।

গেমিং ভিডিও

বর্তমান সময়ে ইউটিউব বলুন বা ফেসবুক বলুন সকল প্লাটফর্মেই কিন্তু গেমিং ভিডিও এর ব্যাপক জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আর এর প্রমান জানতে চাইল আপনি ইউটিউবে গেমিং ভিডিও লিখে সার্চ করলে দেখতে পারবেন। হিউজ পরিমাণের ভিউ রয়েছে।

তাই আপনি যদি একজন ভালো গেমার হোন তাহলে আপনি মাত্র কয়েক মাস এর মধ্যে মিলিয়ন মিলিয়ন ফলোয়ার/ ভিউস নিয়ে আসতে পারবেন আপনার তৈরি করা ভিডিওতে।

বর্তমানে যারা ফ্রি ফাইয়ার, পাবজি আরো অন্যান্য গেমিং ভিডিও নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে তারা প্রতি মাসে প্রায় লক্ষ টাকা আয় করছে ইউটিউব থেকে।

আপনি যদি গেমিং ভিডিও নিয়ে কাজ করতে চান। তাহলে আপনাকে অনেক কিছু বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে যেমন-

আপনাকে এমন সকল গেম নিয়ে ভিডিও তৈরি করতে হবে যা গেমস গুলো অনেক জনপ্রিয় হয়। আপনার গেম প্লের মধ্যে এমন কিছু থাকতে হবে যা দেখে ভিজিটর যে নতুন কিছু খুজে পায়। আর যেই গেম গুলো দর্শকরা দেখে খেলতে পারে।

কমেডি ভিডিও

ইউটিউবে ভিডিও তৈরি করার যত গুলো নিস বা টপিক আছে। তার মধ্যে জনপ্রিয় একটি নিস হলেঅ কমেডি ভিডিও।

এর কারণ আপনি এমন কোন লোক খুজে পাবেন না যারা হাসতে ভালোবাসে না। আমরা সকলেই নিজেদের ব্যস্ততম জীবনের মধ্যে একটু সুখ খোজার চেষ্টা করি।

আর সেই জন্য আজকের দিনে ড্রামা/ কমেডি ভিডিও নিয়ে তৈরি করা ইউটিউব ভিডিও গুলোতে প্রচুর পরিমাণের ভিউ হয়ে থাকে।

আপনি যদি কমেডি ভিডিও তৈরি করতে পারেন। তাহলে আপনার ইউটিউব চ্যানেল অল্প সময়ের সময়ে জনপ্রিয় করে তুলতে পারবেন। আর ইউটিউবে আপনার নিজের ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন।

ইউটিউব টিউটোরিয়াল এবং টিপস ভিডিও

বর্তমান সময়ে প্রচুর পরিমাণের ইউটিউবার আসছে। যারা একেবারে নতুন মানুষ হিসেবে ইউটিউব প্লাটফর্মে কাজ করছে তারা প্রথমে দিকে ইউটিউব এর খুটিনাটি বিষয় গুলো সম্পর্কে জানে না।

তার জন্য ইউটিউবের সকল বিষয় গুলো সম্পর্কে জানার জন্যে প্রতিদিন ভিডিও দেখার প্রয়োজনয় হয়।

যেমন- ইউটিউব এসইও, ইউটিউব কন্ডিশন, ইউটিউব পলিসি, কপিরাইট, ইস্ট্রাইক ইত্যাদি বিষয়ে।

আপনি যদি এই বিষয় গুলো নিয়ে বিস্তারিত জানেন তবে উক্ত ইউটিউব টিউটোরিয়াল এবং টিপস নিয়ে ভিডিও আপলোড করতে পারবেন।

তবে আপনি খুব দ্রুত ভাবে আপনার পছন্দের ইউটিউব চ্যানেলটি গ্রো করতে পারবেন। এছাড়া আপনার ইউটিউব ভিডিও গুলোতে হিউজ পরিমাণের ভিউ আসবে।

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা, আজ আমাদের এই পোস্টের মাধ্যমে জানতে পারলেন, ইউটিউবে কি কি বিষয়ে ভিডিও তৈরি করলে ভালো হবে।

আমরা আপনাকে জনপ্রিয় কিছু ইউটিউব ভিডিও তৈরি করার নিস সম্পর্কে জানিয়েছি। আপনি উক্ত যে কোন একটি টপিক বেছে নিয়ে ইউটিউব ভিডিও তৈরি করলে অনেক ভালো হবে। আর আপনি দ্রুত সফল হতে পারবেন।

আমাদের দেওয়া আর্টিকেল আপনার কাছে কেমন লাগলো অবশ্যই একটি কমেন্ট করে জানাবেন। আর এই সাইট থেকে নতুন নতুন ভিডিও পড়তে চাইলে নিয়মিত ভিজিট করুন ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

1 thought on “ইউটিউবে কি কি বিষয়ে ভিডিও তৈরী করলে ভালো হবে (বিস্তারিত)”

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap