ইউটিউব এসইও কি ? ইউটিউব ভিডিও এসইও করার উপায়

ইউটিউব এসইও সম্পর্কে যদি আপনার সঠিক ধারণা না থাকে। তাহলে কিন্তু ইউটিউব চ্যানেলে আপনার মূল্য থাকবে না। ইউটিউব এসইও এমন একটি বিষয় যার ফলে কোন ইউটিউব চ্যানেল বা ভিডিওতে অনেক পরিমাণের ভিউ ও সাবস্ক্রাইব নিয়ে আসা সম্ভব হয়।

আপনারা যখন ভিডিওতে প্রচুর পরিমাণের ভিউ থাকবে। আপনার চ্যানেল যখন বেশি বেশি সাবস্ক্রাইব আসবে। সেই সময় আপনিও পৌছাতে পারবেন ইউটিউব চ্যানেলের সফলতার দাড়প্রান্তে।

আপনি যদি ইউটিউব চ্যানেলে সফল হতে চান্ তাহলে নিজেকে একজন সফল ইউটিউবার হিসেবে গড়ে তুলতে চান। তবে অবশ্যই আপনার ইউটিউব এসইও সম্পর্কে যথেষ্ট জ্ঞান থাকতে হবে।

তাই আজ আমাদের এই পোস্টে আপনাকে জানাব ইউটিউব এসইও কি? ইউটিউব এসইও কিভাবে করতে হয়। এছাড়া ইউটিউবে আপনার ক্যারিয়ার কিভাবে গড়বেন সেই সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য প্রদান করব।

আপনি উক্ত সকল তথ্য জানতে নিচে দেওয়া ধাপ গুলো শেষ পর্যন্ত মনযোগ দিয়ে পড়ুন।

ইউটিউব এসইও কি ? ইউটিউব ভিডিও এসইও করার উপায়
ইউটিউব এসইও কি ? ইউটিউব ভিডিও এসইও করার উপায়

এসইও কি ?

আপনি যদি ইউটিউব চ্যানেল নিয়ে কাজ করতে চান। তাহলে প্রথমে আপনাকে ইউটিউব এসইও সম্পর্কে জেনে নিতে হবে। এইও এর অর্থ হলো সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন।

বর্তমান সময়ে গুগল, ইয়াহু, বিং ছাড়া আরো অনেক সার্চ ইঞ্জিন আছে। কিন্তু সব চেয়ে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন হলো গুগল। উক্ত সার্চ ইঞ্জিনে আপনার কনটেন্ট অপটিমাইজ করার জন্য যে, কাজ গুলো করা হয় তাকেই এসইও বলা হয়।

আরো পড়ুনঃ

ইউটিউব এসইও কি ?

আমরা জানি ইউটিউব একটি গুগলের নিজস্ব প্রডাক্ট হলেও ইউটিউব এরও একটি নিজস্ব সার্চ ইঞ্জিন আছে। আপনি জানলে অবাক হয়ে যাবেন যে, গুগল এর পরেই আছে ইউটিউব সার্চ এর অবস্থান। যেখানে প্রতিনিয়ত মিলিয়ন মিলিয়ন সার্চ হয়ে থাকে।

আপনি যখন কনটেন্ট বা ভিডিও গুলো ইউটিউব এর সেই সার্চ ইঞ্জিন এর জন্য অপটিমাইজ করার জন্য যে কাজ গুলো করবেন, সেই কাজ গুলোকেই বলা হয় ইউটিউব এসইও।

ইউটিউব এসইও কেন করবেন ?

ইউটিউব এসইও করার মূল উদ্দেশ্য হলো ইউটিউব ভিডিওতে হিউজ পরিমাণের ভিউ ও সাবস্ক্রাইব পাওয়ার জন্য এসইও করা হয়। মনে করুন আপনার একটি ইউটিউব চ্যানেল যেমন- Tarek Blog Tips এ ভিডিও আপলোড করলেন। কিন্তু সেই চ্যানেলের ভিডিও যদি কোন মানুষ না দেখে, তবে আপনার ভিডিও রি করার কষ্ট সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যাবে।

কিন্তু, আপনি যদি সঠিক ভাবে ভিডিও এসইও করার মাধ্যমে ভিডিও আপলোড করতে পারেন তবে অনেক বেশি পরিমাণের ভিউ পেয়ে যাবেন। যার ফলে ইউটিউব চ্যানেলে নিজের একটি বড়সড় কমিউনিটি তৈরি করতে পারবেন।

আপনি উক্ত কমিউনিটি গুলো তখনই গড়ে তুলতে পারবেন যখন আপনার ইউটিউব চ্যানেল সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ এসইও ধারণা থাকবে।

কিভাবে ইউটিউব এসইও করবেন ?

আপনি যদি একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করেন তাহলে সেখানে অবশ্যই এসইও করতে হবে। কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেক লোক আছে যারা ইউটিউব এসইও করার নিয়ম জানে না।

তাই আজ আমি আপনাকে এসইও করার বিষয়ে বলব। তার আগে আপনাকে ইউটিউব এসইও করার আগে দুইটি বিষয় সম্পর্কে জানিয়ে দেব।

ইউটিউব সার্চ কিভাবে কাজ করে?

আপনি যখন ইউটিউবে প্রবেশ করবেন সেই সময় সবার উপরে যে, সার্চ বক্স দেখতে পারবেন সেটিই হলো ইউটিউব সার্চ ইঞ্জিন। আপনার কাছে এটি সাধারণ সার্চ বক্স মনে হলেও কিন্তু এই সার্চ বক্স দিয়েই এসইও এর টেকনিক করা হয়।

আপনি সার্চ বক্সে যে বিষয় নিয়ে সার্চ করবেন সেটি কেন ভিডিও শো করে? আপনি যদি নতুন গান লিখে সার্চ করেন তাহলে শুধু নতুন আপডেট করা গান গুরো শো করবে। আর আপনি যদি নতুন নাটক লিখে সার্চ করেন তাহলে নাটক এর লিষ্ট শো করবে।

এখন আপনার প্রশ্ন হতে পারে যে, এরকম হয় কেন? কারণ বাংলা নাটক লিখে সার্চ করার পরে কেন শুধু বাংলা নাটক শো করলো। নাকট বাদ দিয়ে অন্য কোন মুভি বা গান শো করলো না কেন। এর পিছনে কিছু কারণ আছে। এর জন্য আপনাকে ইউটিউব ইনডেক্স সম্পর্কে জানতে হবে।

গুগল বট বা ইনডেক্স সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করতে গেলে অনেক সময় এর ব্যাপার। তাই এই আর্টিকেলে সময় নষ্ট না করে আপনাকে সংক্ষিপ্ত ভাবে বোঝানোর চেষ্টা করব।

ইউটিউব ক্রলার এবং ইনডেক্সার কি ?

আপনার ইউটিউব ভিডিও টাইটেলে কি আছে। ভিডিও ডিসক্রিপশেন কি আছে। ট্যাগ অপশনে কোন কোন ওয়ার্ড গুলো ব্যবহার করা হয়েছে। এই সকল তথ্য সম্পর্কে জানার পাশাপাীশ  ইউটিউবের সেই রোবটটি উক্ত তথ্য গুলো তার নিজস্ব ডাটা সেন্টারে জমা করে ইনডেক্স করে রাখে।

পরবর্তী সময়ে আপনার ইউটিউব ভিডিও রিলেটেড কোন বিষয়ে যখন কেউ ইউটিউবে সার্চ করে ঠিক সেই সময় ইউটিউব আপনার ভিডিওটি শো করাবে। আবার আপনার ভিডিও সম্পর্কে ইউটিউব রোবটকে স্বচ্ছ ধারণা দেওয়ার জন্য ইউটিউব এসইও এর কোন বিকল্প নাই।

ইউটিউব ভিডিও কে এসইও করার উপায় গুলোকে দুই ভাবে ভাগ করে দেখাবো যেমন- অনলাইন এসইও এবং অফলাইন এসইও।

তো চলুন এই বিষয়ে জেনে নেওয়া যাক।

আরো পড়ুনঃ

অনলাইন ইউটিউব এসইও করার উপায়

ইউটিউব ভিডিও এসইও করার জন্যে প্রথমে আপনাকে অনলাইন এসইও এর বিষয়ে জানতে হবে। অনলাইন এসইও’র জন্য গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে কিওয়ার্ড রিসার্স। একটি ইউটিউব এর ভিডিও র‌্যাঙ্ক করার পেছে কিওয়ার্ড রিসার্স এর বিকল্প নেই।

আপনি আসলে কি বিষয়ে ভিডিও তৈরি করতে চান। সেই অনুযায়ী কিওয়ার্ড রিসার্স করে সহজে বুঝতে পারবেন।

আপনি যদি কিওয়ার্ড রিসার্স করতে চান তাহলে গুগল এবং ইউটিউব এছাড়া বিভিন্ন টুলস ব্যবহার করে ইউটিউব ভিডিও টপিক রিসার্স করতে পারবেন।

ইউটিউব কিওয়ার্ড রিসার্স এর কিছু টপিক হলো-

  • ছাত্রদের জন্য অনলাইন আয়
  • অনলাইন ইনকাম অ্যাপ
  • অনলাইন আয় বিকাশ পেমেন্ট
  • ফ্রি টাকা ইনকাম
  • অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশি ওয়েবসাইট
  • টাকা আয় করার App ইত্যাদি।

উক্ত অংশে যে টপিক গুলো দেখতে পারছেন এগুলো্ হলো কিওয়ার্ড। এরকম ভাবে আপনার ইউটিউব ভিডিও তৈরি করার জন্য কিওয়ার্ড রিসার্স করে নিবেন।

অপটিমাইজ ভিডিও টাইটেল এবং ডিসক্রিপশন

ইউটিউব ভিডিও এসইও করার জন্যে ভিডিও এর টাইটেল বিশেষ ভুমিকা রাখে। আপনি যখন ভিডিওটি ইউটিউব নিউজফিডে প্রদর্শন করবেন তখন ভিজিটর প্রথমে তাকাবে আপনার থাম্বনেইলের দিকে। তারপরে ভিডিওর টাইটেল কি রয়েছে। এটি দেখার পরে ভিডিওতে ক্লিক কবে।

আপনার ভিডিও টাইটেল যদি অপটিমাইজ না হয়। তবে ভিজিটরদের নিউজফিডে আপনার ভিডিওটি শো করলেও তার স্পিপ্ট করে চলে যাবে।

কিভাবে ভিডিও টাইটেল অপটিমাইজ করবেন?

আপনার সব সময় চেষ্টা করবেন ভিডিও টাইটেল যেন ৪০-৫০ শব্দের মধ্যে হয়। অনেক লোক আছে যারা অনেক বড় টাইটেল লিখে কিন্তু ভিডিও টাইটেলে যদি হাবিজাবি শব্দ লেখা থাকে তাহরে আপনার ভিডিওতে সিটিআর এর হার হ্রাস পেয়ে যাবে।

আরো পড়ুনঃ

টাইটেলে কিওয়ার্ড এর ব্যবহার

আপনার ইউটিউব ভিডিও টাইটেল অবশ্যই আপনার ফোকাস কিওয়ার্ড থাকতে হবে। মনে করুন অনলাইন আয় নিয়ে আপনি একটি ভিডিও তৈরি করবেন। তাহলে আপনার ভিডিওর শুরুতে মেইন ফোকাস কিওয়ার্ড থাকতে হবে। এরপরে Helping কিওয়ার্ড দিতে হবে যেমন- অনলাইন আয় করার উপায় | How to earn online. এখন দেখুন এখানে মুল কিওয়ার্ড এর পাশাপাশি হেল্পিং কিওয়ার্ড এর ব্যবহার করা হয়েছে।

ভিডিও ডেসক্রিপশন অপটিমাইজ

ইউটিউব ভিডিও এসইও করার জন্যে ভিডিও ডেসক্রিপশনের অবদান ১%-৫% আপনি করার চেষ্টা করবেন। ভিডিও ডেসক্রিপশন এর শুরুতে 25 টি শব্দের মধ্যে যে কোন মেইন ফোকাস কিওয়ার রাখতে হবে।

তাছাড়া ভিডিও ডেসস্ক্রিপশনে আপনার আগের ভিডিও গুলোর লিংক যুক্ত করে দিবেন। যার ফলে ভিজিটর’রা একটি ভিডিও থেকে অন্য ভিডিও দেখতে আগ্রহী থাকবে।

ভিডিওতে সঠিক ট্যাগ ব্যবহার

অনেক  লোকের ধারণা মতে, ইউটিউব এসইও করার ক্ষেত্রে ট্যাগ ৫০% অবদান রাখে। তাই অনেক ইউটিবার বেশি ভিউ পাওয়ার জন্য ইউটিউব ভাইরাল ও র‌্যাক হওয়া ভিডিও গুলোর ট্যাক কপি করে থাকে এবং নিজের ভিডিওতে যুক্ত করে দেওয়।

এই ক্ষেত্রে আপনি যদি ভাইরাল ভিডিওর ট্যাগ কপি করে, নিজের ভিডিওতে বসিয়ে দিলেই ভিডিও র‌্যাকিং বেড়ে যেত তাহলে ইউটিউব চ্যানেল এর কেউ অসফল থাকতো না।

ট্যাগ ব্যবহার করার উদ্দেশ্য হলো আপনার ভিডিওর মূল সারসংক্ষেপ সম্পর্কে ইউটিউব রোবটকে জানানো। আসলে আপনার ভিডিও কোন টপিক নিয়ে বেস করা হয়েছে সেট জানার জন্য ট্যাগ ব্যবহার করা হয়।

ভিডিও ট্যাগ অপটিমাইজেশন

সঠিক ভাবে ইউটিউব এর ট্যাগ খূজে পাওয়ার জন্য ট্যাগ এর সঠিক ব্যবহার সম্পর্কে আপনার জানা থাকতে হবে। ইউটিউব ট্যাগ সব সময় ছোট আকারে দেওয়ার চেষ্টা করবেন। মনে করুন অনলাইন আয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করবেন। তাহরে আপনার ট্যাগ হবে “#অনলাইন আয়, #অনলাইনে ইনকাম, #অনলাইন ইনকাম সাইট, ইত্যাদি।

ইউটিউব ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়া শেয়ার

আপনার ইউটিউব ভিডিও যত বেশি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করা হবে ইউটিউব এসইওতে সেটি তত বেশি পজেটিভ ইফেক্ট ফেলবে। যখন সোশ্যাল মিডিয়াতে আপনার ভিডিওর লিংক বিল্ডিঙ হবে তখন ইউটিউব বট মনে করবে আপনার ভিডিওতে নিশ্চই ভালো কিছু রয়েছে। তাই ভিডিও টি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার হচ্ছে।

আপনার ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করার পরে ভিডিও লিংক কপি করে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন। যেমন- ফেসবুক, টুইটার ইত্যঅদি।

ইউটিউব শর্টকার্ট এসইও টেকনিক

আপনি যদি একজন অলস প্রকৃতির মানুষ হয়ে থাকেন। তাহলে ইউটিউব এসইও এর শর্টকার্ট টেকনিক বুঝতে হবে। আপনি কিওয়ার্ড রিসার্স এর ঝামেলা ছাড়া কিভাবে খুব সহজে হাই রিসার্চ ভলিউম কিওয়ার্ড খূজে পাবেন। সেই বিষয়ে আপনাকে জেনে নিতে হবে।

তার জন্য আপনাকে আপনার টপিক রিলেটেড বড় বড় ইউটিউব চ্যানেল গুলোকে খূজে নিতে হবে। তার পরে সে গুলো সরাসরি চলে যাবেন ভিডিও অপশনে। সেখান থেকে Most View অপশন সিলেক্ট করে আপনি সেই ভিডিও গুলো দেখতে পারবেন। যে গুলোতে সবচেয়ে বেশি ভিউ আছে।

আপনি যদি উক্ত নিয়মে কাজ করতে পারেন তাহলে হােই র‌্যাকিং কিওয়ার্ড গুলো পেয়ে যাবেন বিনা পরিশ্রমে।

আমরা আশা করি উক্ত আলোচনাতে জেনে নিতে পারছেন, ইউটিউব ভিডিও অনলাইন এসইও কিভাবে করতে হয়। আর যদি না বুঝে থাকেন। তাহলে দয়া করে উক্ত আলোচনাটি আরো একবার পড়ে নিবেন।

অফলাইন ইউটিউব এসইও করার উপায়

ইউটিউব ভিডিও অফলাইন ভিডিও এসইও করতে গেলে আপনাকে অফলাইনের যে সকল কাজ করতে হবে মোটামুটি ভিডিও এসইও করার পাশাপাশি ভিডিও আপলোড করার জন্য অবশ্যই উক্ত কাজ গুলো করতে হবে।

আপনি যদি অফলাইন এসইও করতে চান তাহলে নিচে দেওয়া তথ্য গুলো অনুসরণ করুন। যেমন-

  • আর্কষণীয় থাম্বনেইল তৈরি করতে হবে।
  • ভিডিও স্টাটিং পয়েন্ট করতে হবে।
  • ক্রিষ্টাল ক্লিয়ার ভয়ে দিযে দিতে হবে।
  • ইফরমেটিভ কনটেন্ট তৈরি করতে হবে।
  • ভিডিও এডিটিং করতে হবে।
  • ভিডিওতে ইন্ট্রোল ও আউট্রো ব্যবহার করতে হবে।
  • ভিডিও এর দৈর্ঘ্য বাড়াতে হবে।
  • ফােইলের নাম রিনেম করতে হবে।
  • কমেন্ট অপশনে কারিশমা করতে হবে। ইত্যাদি।

আপনি যদি উক্ত বিষয় গুলো সঠিক ভাবে করতে পারেন তাহলে আপনি উক্ত ইউটিউব ভিডিও গুলো অফলাইন এসইও করতে পারবেন।

আপনি ‍যদি উক্ত বিষয় গুলো সঠিক ভাবে অনুসরণ করেন তাহলে আপনি এই বিষয়ে বিস্তারিত ধারনা পেয়েছে।

আরো পড়ুনঃ

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা, আজ আমাদের এই পোস্টের মাধ্যমে জানতে পারলেন ইউটিউব এসইও কি? ইউটিউব এসইও করার উপায়। আপনি যদি আমাদের দেওয়া লেখা গুলো শেষ পর্যন্ত মনযোগ দিয়ে পড়েন। তাহলে অনলাইন ও অফলাইনে কিভাবে ইউটিউব ভিডিও এসইও করতে হয় সেই সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা গ্রহণ করতে পারছেন।

ট্যাগঃ ইউটিউব এসইও কি ? ইউটিউব ভিডিও এসইও করার উপায় ইউটিউব এসইও কি ? ইউটিউব ভিডিও এসইও করার উপায় ইউটিউব এসইও কি ? ইউটিউব ভিডিও এসইও করার উপায়

ইউটিউব এসইও কি ? ইউটিউব ভিডিও এসইও করার উপায় ইউটিউব এসইও কি ? ইউটিউব ভিডিও এসইও করার উপায় ইউটিউব এসইও কি ? ইউটিউব ভিডিও এসইও করার উপায়

আমাদের আর্টিকেল সম্পর্কে আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে। তাহলে আমাদের নিচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে একটি মতামত জানাতে পারেন। আমাদের সাইট থেকে নতুন নতুন আর্টিকেল পড়তে চাইলে নিয়মিত ভিজিট করুন ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap