এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ কি ? কেন অ্যাডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়

এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ : বর্তমান সময়ে ব্লগ, ওয়েবসাইট বলুন আর ইউটিউব বলুন। গুগল অ্যাডসেন্স ছাড়া অন্য কোন প্লাটফর্ম থেকে টাকা ইনকাম করার ভালো কোনো বিকল্প খুঁজে পাওয়া যায় না।

এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ কি ? কেন অ্যাডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়
এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ কি ? কেন অ্যাডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়

কারন, গুগল এডসেন্স এর মত ভালো সিপিসি ও সিটিআর অন্য কোন এডভাটাইস প্ল্যাটফর্ম গুলো দিতে পারেনা।

গুগল এডসেন্স ভালো সিপিসি দেয় জন্য। গুগল এডসেন্স বিশ্বের সবথেকে জনপ্রিয় একটি বিজ্ঞাপন নেটওয়্যার্ক।

গুগল এডসেন্স যেমন, ভাল সিপিসি প্রদান করে। তেমনি কঠোর নিয়ম কানুন পাবলিশারদের দিয়ে থাকে।

তাই এ নিয়ম গুলোর বাইরে যারা কাজ করবে। তাদের গুগল এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হবে, এটি কিন্তু 100% নিশ্চিত।

তো, আমাদের মধ্যে এমন অনেক ব্লগার রয়েছে। যারা ওয়েবসাইট বা ইউটিউব এর মালিক। তারা সব সম,য় অনলাইনে জানার চেষ্টা করে।

গুগল এডসেন্স ডিজেবল হওয়া কারণ কি ? এবং কেন এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়।

তো বন্ধুরা, আপনি যদি এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হওয়া নিয়ে চিন্তিত থাকেন। তাহলে আমাদের দেওয়া তথ্য গুলো অনুসরণ করে, ডিজেবল হওয়ার হাত থেকে মুক্তি পাবেন। যদি আমাদের দেওয়া কারণ গুলো মনযোগ দিয়ে পড়েন।

আপনি যদি এডসেন্স ডিজেবল কি এবং কেন এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়। সে বিষয়ে বিস্তারিত ধারনা পেতে চান।

তাহলে আমাদের আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।

এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ কি ?

গুগল এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার অনেক কারণ রয়েছে। কিন্তু গুগল এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হওয়ার পেছনে, সবথেকে বড় কারণ হচ্ছে দুইটি।

যেমন-

  1. Self Click (নিজে নিজে ক্লিক)
  2. PTC Click (ভাড়া করা ক্লিক)

আমরা গুগল এডসেন্স ডিজেবল হওয়া কারণ হিসেবে এ দুটি কে বেশি জেনে থাকি। কিন্তু এর দুটি কারণ ছাড়াও আরো অসংখ্য কারণ রয়েছে, গুগল এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার পেছনে।

আমরা আপনাকে এখন এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ। যেমন- সেলফি ক্লিক এবং পিটিসি ক্লিক সম্পর্কে বিস্তারিত জানাবো।

সেলফ (Self Click) ক্লিক কি?

সেলফ ক্লিক হল নিজের এডসেন্স বিজ্ঞাপন এর নিজে ক্লিক করা। আপনারা যদি চিন্তা করে থাকেন। আপনার ব্লগে বা ওয়েবসাইটে কিংবা ইউটিউব এর বিজ্ঞাপনের নিজে নিজে ক্লিক করে ইনকাম বাড়িয়ে নেবেন।

তাহলে এটি হবে আপনার এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হওয়ার সব থেকে বড় কারণ।

কারণ নিজের এডসেন্স একাউন্টের বিজ্ঞাপনের যদি নিজে নিজে ক্লিক করে দেওয়া হতো। তাহলে দৈনিক মানুষ কোটি কোটি টাকা ইনকাম করতে পারত।

তাই নিজে নিজে বিজ্ঞাপনে ক্লিক করা মানে, নিজের পায়ে কুড়াল মারা। কারণ এটি সরাসরি গুগল এডসেন্স এর বিপক্ষে।

সেলফ ক্লিক করার ফলে গুগল এডসেন্স একাউন্ট এড লিমিট হয় এবং গুগল এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়ে যায়।

গুগল এডসেন্স পলিসিতে সুস্পষ্ট ভাবে বলে দিয়েছে। নিজের বিজ্ঞাপনে ক্লিক করা থেকে বিরত থাকুন।

ব্লগ, ওয়েবসাইট হোক আর ইউটিউব চ্যানেল হোক। আপনারা কখনোই নিজের এডসেন্স বিজ্ঞাপনে ক্লিক করবেন না। যদি করেন তাহলে, ফলস্বরূপ আপনার গুগল এডসেন্স ডিজেবল হয়ে যাবে।

পিটিসি (PTC) ক্লিক কি ?

পিটিসি (PTC)র পূর্ণরূপ হলো- Paid To Click. এই পিটিসি ক্লিকে, মূলত ভাড়া করা ক্লিক বোঝানো হয়। কি বন্ধুরা আপনার কী বুঝতে সমস্যা হচ্ছে? তবে বুঝিয়ে বলছি।

আমাদের মধ্যে এমন কিছু পাবলিশার আছে বা ওয়েবসাইটের মালিক রয়েছে। যারা ইচ্ছা করে, মানুষদের টাকার বিনিময়ে নিজেদের ওয়েবসাইটে নিয়ে আসে।

এবং তার ওয়েবসাইটে ইউটিউব চ্যানেলের বিজ্ঞাপনগুলো তে ক্লিক করিয়ে নেন।

যার বিনিময়ে ওয়েবসাইটের মালিক তাদের টাকা প্রদান করে থাকে। মানে বিজ্ঞাপনে ক্লিক করার জন্য। তাদের টাকা দিয়ে ক্লিক করতে বাধ্য করা হয়।

তাই এই কাজটিও গুগল এডসেন্স এর বাইরে। ইনভেলিড ক্লিক হিসেবে গুগল এডসেন্স একাউন্ট করে থাকে।

যখন এরকমভাবে প্রতিনিয়ত চলতে থাকে। তখন গুগল এডসেন্স তাদের এডস লিমিট দিয়ে দেয়। তার কিছুদিন পর গুগল এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল করা যায়।

ডিজেবল হওয়ার আগে, আপনাকে কয়েকবার ওয়ার্নিং হিসেবে অ্যাড লিমিট থাকে। যাতে করে, পাবলিশার’রা একটু সতর্ক হয়ে। ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেল পরিচালনা করে।

কারণ আমাদের মধ্যে এমন অনেক পাবলিশার রয়েছে। যারা গুগল এডসেন্স এড দেওয়ার পর। যখন কয়েক মাস পরে ঠিক হয়।

তখন তারা আবার পিটিসিক্লিক নিয়ে, অ্যাডসেন্সে বিজ্ঞাপনে ক্লিক করে নেয় টাকার বিনিময়ে।

তারপর গুগল এডসেন্স আর কোন ওয়ার্নিং না দিয়ে সরাসরি এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল করে দেয় চিরতরে।

আপনি যদি মনোযোগ সহকারে অনুসরণ করেন তাহলে বুঝতে পেরেছেন। সেলফ ক্লিক কি এবং পিটিসি ক্লিক মুলত কি।

আপনি যদি এই দুটি বিষয় অনুসরণ করে থাকেন তাহলে, এই দুটি বিষয়ের জন্য গুগল এডসেন্স বেশি বেশি ডিজেবল হয়।

কিন্তু এ বিষয়টি ছাড়া আরো অসংখ্য কারণ আছে। যেগুলোর জন্য গুগল এডসেন্স ডিজেবল হওয়া সম্ভাবনা থাকে যেমন আপনাকে সংক্ষিপ্তভাবে বলছি।

আপনি যদি ব্লগিং করেন। সেখানে অবশ্যই আপনার বিভিন্ন ধরনের আর্টিকেল লেখার প্রয়োজন হয়। কিন্তু আমাদের মধ্যে এমন অনেক অ্যাডসেন্স পাবলিশার রয়েছে।

যারা তাদের ব্লগে লেখালেখি করার জন্য অন্যদের থেকে আর্টিকেল চুরি করে নিয়ে নিজের ওয়েবসাইটে চালিয়ে দিয়ে থাকে।

কিন্তু গুগল এডসেন্স কে তাকে দেয়ার মত কোন সুযোগ নেই। আপনি যদি অন্যের ওয়েবসাইট থেকে লেখা চুরি করে নিয়ে আসে।

নিজের ওয়েবসাইটে ব্যবহার করেন। সেক্ষেত্রে আপনার ওয়েবসাইটটি গুগল এডসেন্স ডিজেবল করে দেবে। যদি সেই ওয়েবসাইটের মালিক আপনার ওয়েবসাইটের নামে অভিযোগ করেন।

এখন গুগল এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হওয়া আরো সংক্ষিপ্ত কিছু কারণ সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক। আপনি যদি সে সকল কাজ না করেন তাহলে আপনার এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হওয়া নিয়ে কোন ভয় থাকবে না।

কেন অ্যাডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়

আমরা এখন আপনাকে সংক্ষিপ্তভাবে জানানোর চেষ্টা করব কেন এডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়। তো চলুন সেই কারণগুলো সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

যেমন-

  • ওয়েবসাইট, ব্লগ বা ইউটিউব এ নিজের এড এ নিজে ক্লিক করা।
  • বিভিন্ন লোকদের টাকার বিনিময়ে এবং নিজের পরিচিত আত্মীয়দের কাউকে দিয়ে এডস ক্লিক করে নেওয়া।
  • ওয়েবসাইট এডাল্ট 18+ কনটেন্ট শেয়ার করা।
  • অন্যের সাইট কপি কনটেন্ট শেয়ার করা।
  • এডসেন্স সাপোর্ট করে না। এমন কোন ভাষায় কনটেন্ট লিখা।
  • ওয়েবসাইট বা ব্লগে ব্ল্যাক হ্যাট এসইও করা।
  • অটোমেটিক ভিজিটর ব্যবহার করা।
  • একাধিক গুগল এডসেন্স ব্যবহার করা।

আপনার ওয়েবসাইটে যদি উক্ত আলোচনাতে যে, বিষয় গুলো সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। এ গুলো যদি ঘটে থাকে। তাহলে আপনার এডসেন্স একাউন্ট সহজেই ডিজেবল হয়ে যাবে।

তাই, সব সময় অল্পতে শুরু করবেন। প্রথমেই বেশি ইনকাম করার চেষ্টা করবেন না। কারণ একলাফে গাছে ওঠা যায় না।

তাই আপনি ধীরে ধীরে গুগল এডসেন্স থেকে ইনকাম করার চেষ্টা করুন। আপনার ওয়েবসাইট এ হিউজ পরিমান ভিজিটর থাকলে।

আপনি অটোমেটিক ভাবে ইনকাম করতে পারবেন। যার ফলে আপনার নিজে নিজে ক্লিক করে ইনকাম বাড়াতে হবে না।

আর নিজে নিজে ক্লিক করলে তো বুঝতেই পারছেন। কোন ওয়ার্নিং ছাড়াই লিমিট খেয়ে যাবেন। আর এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি বেড়ে যাবে।

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা যারা গুগল পাবলিশার রয়েছেন। হতে পারেন ওয়েবসাইট, ব্লগ বা ইউটিউব এর মালিক। সে ক্ষেত্রে আপনারা যদি উপরোক্ত কারণ গুলোর জড়িত থাকেন।

তাহলে আপনার এডসেন্স একাউন্টে ডিজেবল হতে বেশি সময় লাগবে না।

তাই আপনি যদি এডসেন্স একাউন্ট সুরক্ষিত রাখতে চান। তাহলে এডসেন্স এর পলিসি অনুযায়ী আপনাকে কাজ করতে হবে।

তো বন্ধুরা আমাদের আজকের আর্টিকেলটি আপনাদের কাছে কেমন লেগেছে অবশ্যই কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ কি ? কেন অ্যাডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয় এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ কি ? কেন অ্যাডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয় এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ কি ? কেন অ্যাডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়

আর যারা আপনার পরিচিত বন্ধুবান্ধব রয়েছে। অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে। তাদেরকে এ বিষয়টি জানাতে একটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করবেন।

এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ কি ? কেন অ্যাডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয় এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ কি ? কেন অ্যাডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয় এডসেন্স ডিজেবল হওয়ার কারণ কি ? কেন অ্যাডসেন্স একাউন্ট ডিজেবল হয়

আর আমাদের ওয়েবসাইট থেকে গুগল এডসেন্স থেকে ইনকাম বাড়ানোর টিপস এন্ড ট্রিক্স পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap