পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম ২০২৩

পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম : আপনি যদি পাসপোর্ট করে থাকেন। এবং সে পাসপোর্টে কোন ধরনের ভুল থাকে, সে ক্ষেত্রে আপনাদের অবশ্যই পাসপোর্ট সংশোধন করতে হবে।

আর বর্তমান সময়ে লোকেরা পাসপোর্টে ভুল থাকলে। সবার আগে, অনলাইনে জানার চেষ্টা করে যে, কিভাবে পাসপোর্ট সংশোধন করা যায়।

এছাড়া পাসপোর্ট সংশোধন করতে কি কি লাগবে, এবং কিভাবে আবেদন করতে হবে।

পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম ২০২৩
পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম ২০২৩

তাই আমি আপনাদের কথা চিন্তা করে, আজ এই পোষ্টের মাধ্যমে পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম ২০২৩ সম্পর্কে, বিস্তারিত ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করব।

তো বন্ধুরা আপনারা যারা পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম জানতে চান? তারা আমাদের আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত, মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

গত ১৩ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ তারিখে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এর সুরক্ষা সেবা বিভাগ পাসপোর্ট সংশোধন নোটিশ প্রকাশ করেছেন।

উক্ত নোটিশ এর মাধ্যমে বাংলাদেশে এবং বিদেশে নতুন পাসপোর্ট প্রদান এবং সংশোধনে কোন কোন নিয়ম মানতে হবে, সেটি সুস্পষ্ট করেছে।

তো আপনারা যারা নতুন পাসপোর্ট করবেন বা পাসপোর্ট রিনিউ করবেন। তাদের জন্য এ বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নেওয়া অত্যন্ত জরুরি।

তাই আমি আপনাদের এ বিষয়টি পরিষ্কার করার জন্য বর্তমানে, দেওয়া সর্বশেষ প্রজ্ঞাপন এবং পরিপত্রের বিষয় গুলো নিয়ে, আলোচনা করতে যাচ্ছি।

পাসপোর্ট সংশোধন সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রজ্ঞাপন

তো বন্ধুরা আমরা প্রথমে, আপনাকে জানাবো। পাসপোর্ট সংশোধন সংক্রান্ত সর্বশেষ নোটিশে কি বলা হয়েছে।

যেমন-

বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ও বিদেশে বসবাসরত বাংলাদেশী নাগরিকদের জাতীয় পরিচয় পত্র/ ভোটার আইডি কার্ড এবং পাসপোর্ট এর তথ্য গরমিল হলে জাতীয় পরিচয় পত্রের প্রদত্ত তথ্য, যেমন-

  • নাম।
  • পিতা এবং মাতার নাম।
  • বয়স।

প্রথম বিষয়গুলো অনুযায়ী পাসপোর্ট রি ইস্যু করতে হবে। কিন্তু অপ্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন এর সনদ বিবেচনা করতে হবে। প্রয়োজন পড়লে-

  • জেএসসি/ জেডিসি।
  • এসএসসি/ দাখিল/ কারিগরি।
  • উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এবং সনদপত্র।

উক্ত তথ্য গুলোর মধ্যে যে কোন একটি বিবেচনা করা যেতে পারে।

পাসপোর্ট সংশোধনের ক্ষেত্রে লিখিত আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্র এর সাথে অধিদপ্তর এর ওয়েবসাইট সংশ্লিষ্ট পাসপোর্ট অফিসের প্রদর্শিত নমুনা অনুযায়ী আবেদনকারীকে, একটি অঙ্গীকারনামা যথাযথ ভাবে সম্পূর্ণ করে, স্বাক্ষর পূর্বক সাবমিট করতে হবে।

এছাড়া সুরক্ষা বিভাগ হতে 28-04-2021, 09-12-2021 ও 03-11-2022 তারিখের জারিকৃত পরিপত্র সমূহ বাতিল করা হয়েছে।

তাছাড়া যথাযথ কর্তৃপক্ষে অনুমোদন কমে জারিগে তো এই আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে বলে জানিয়েছেন। আপনারা পাসপোর্ট সংশোধন সংক্রান্ত সর্বশেষ নোটিশ অফিশিয়াল ভাবে জানতে চাইলে।

নিচের ছবিটি অনুসরণ করুন। তাহলে বিস্তারিত তথ্য পেয়ে যাবেন।

পাসপোর্ট সংশোধন

পাসপোর্ট সংশোধন করতে কি কি লাগে ?

আপনাদের পাসপোর্টে কোন ভুল থাকলে সেই পাসপোর্ট সংশোধন করতে যা যা লাগবে।

সেগুলো হলো-

  • জাতীয় পরিচয় পত্র বা শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট লাগবে।
  • যাদের শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ নেই তাদের জন্ম নিবন্ধন লাগবে।
  • বিদেশে দূতাবাসে আবেদন করা হলে, Student ID Card,  Job ID Card, Driving License ইত্যাদি লাগবে।
  • লিখিত আবেদন এবং অঙ্গীকার নামা লাগবে।
  • আগের পুরাতন পাসপোর্ট এর কপি এবং পাসপোর্ট লাগবে।

উক্ত পাসপোর্ট সংশোধন এর জন্য প্র্রয়োজনে স্পেশাল ব্রাঞ্চ এবং অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যম এ প্রদত্ত তথ্য যাচাই করবে।

পাসপোর্ট সংশোধন (জন্ম তারিখ)

পাসপোর্ট জন্ম তারিখ সংশোধন এর জন্য সর্বচ্চ 5 বছর পর্যন্ত বিবেচনা করা হয়।

কিন্তু সংশোধন এর জন্য অবশ্যই জাতীয় পরিচয় পত্র/ শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ।

যেমন-

  • জেএসসি,
  • জেডিসি,
  • এসএসসি,
  • দাখিল,
  • এইচএসসি,
  • কারিগরি,
  • উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় ও সমমানের সার্টিফিকেট প্রদর্শন করতে হবে।

এক্ষেত্রে, অপ্রাপ্ত বয়স্ক ও যাদের কোন শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ নেই। তাদের ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন সাবমিট করতে হবে। তাহলে আপনাদের পাসপোর্টে জন্ম তারিখ সংশোধন করতে পারবেন।

পাসপোর্টে সংশোধন (নাম)

পাসপোর্ট এ নিজের নাম এবং পিতা ও মাতার নাম সংশোধন করা যাবে। পাসপোর্ট এ নাম সংশোধন করার জন্যে জাতীয় পরিচয় পত্র এবং শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট প্রদর্শন করতে হবে।

এক্ষেত্রে, অপ্রাপ্ত বয়স্ক এবং যাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা এবং ভোটার আইডি কার্ড নাই তাদের ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রদর্শন করতে হবে।

পাসপোর্ট সংশোধন করতে কত টাকা লাগে ?

পাসপোর্ট সংশোধন করতে, পাসপোর্ট ফি 4,025/- (চার হাজার পচিশ) টাকা থেকে সর্বোচ্চ 10,350/- (দশ হাজার তিনশত পঞ্চাশ) টাকা লাগবে।

পাসপোর্ট সংশোধন এর জন্য আলাদা আর কোন ফি নেই

পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম

পাসপোর্ট সংশোধন করার জন্য আপনাকে ই-পাসপোর্ট রিনিউ এর জন্য আবেদেন করতে হবে। ই-পাসেপার্ট আবেদনে আপনার সকল প্রকার তথ্য জাতীয় পরিচয় পত্র/ ভোটার আইডি কার্ড অনুযায়ী দিতে হবে।

তো পাসপোর্ট সংশোধন বা রিনিউ এর আবেদন, আইডি ডকুমেন্ট অপশন থেকে পুরাতন পাসপোর্ট এর তথ্য যুক্ত করবেন। এবং আবেদন সাবমিট করবেন।

আপনারা পাসপোস্ট সংশোধন করতে চাইলে, প্রথমে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র/ এনআইডি কার্ড এর সঠিক তথ্য থাকতে হবে। এরপরে নিচে দেওয়া পদক্ষেপ গুলো অনুসরণ করতে হবে।

যেমন-

  • পাসপোর্ট সংশোধন করতে এই লিংকে ক্লিক করুন- epassport.gov.bd/landing.
  • সঠিক তথ্য এর স্ব-পক্ষে প্রমান সংগ্রহ- এই ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয় পত্র প্রয়োজন পড়বে। তাছাড়া, শিক্ষাগত যোগ্যতা, জন্ম নিবন্ধন সনদ, বিদেশে দূতাবাসে আবেদন করলে Student ID Card, Job ID Card, Driving License এর কপি সংগ্রহ করতে হবে।
  • তারপরে, অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করুন
  • তারপরে, এ-চালান এর মাধ্যমে পাসপোর্ট ফি পরিশোধ করবেন।
  • পাসপোর্ট সংশোধন এর জন্য লিখিত আবেদন করতে হবে।
  • তারপরে, অঙ্গীকার নাম বানাতে হবে। পাসপোর্ট অধিদপ্তর এর ওয়েবসাইট বা পাসপোর্ট অফিসে প্রদর্শিত নমুন অনুসারে, পাসপোর্ট সংশোধন এর অঙ্গীকার নামা যথা যথ ভাবে পূরণ এবং স্বাক্ষর করে, পাসপোর্ট এর আবেদনের সঙ্গে জমা দিতে হবে। আপনারা অনলাইন থেকে পাসপোর্ট এর জন্য অঙ্গীকার নামা ডাউনলোড করুন।
  • উক্ত সকল ডকুমেন্ট সংগ্রহ করার পরে আবেদন সাবমিট করুন।

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা আজ আমাদের এই আইডি কেন আপনাকে জানিয়ে দেয়া হলো পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম সম্পর্কে। আপনি যদি পাসপোর্ট ধারী হয়ে থাকেন।

সেক্ষেত্রে আপনার পাসপোর্ট এর কোন প্রকার ভুল থেকে থাকে। সে ক্ষেত্রে আপনারা পাসপোর্ট সংশোধন করতে পারবেন। খুব সহজে আর আমরা সে সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে জানানোর চেষ্টা করেছি।

তো আমাদের আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়ার পর আপনার কাছে কেমন লাগলো অবশ্যই কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

আর বিশেষ করে পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম সম্পর্কে আপনার বন্ধুদের নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়াতে একটি শেয়ার করে দিবেন।

এছাড়া আমাদের ওয়েবসাইট থেকে পাসপোর্ট সংক্রান্ত আরো নতুন নতুন খবর জানতে, নিয়মিত ভিজিট করুন ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap