বর্তমানে ওয়েবসাইট বা অনলাইন ঘাটলে দেখা যায় প্রত্যেকটা সেক্টরেই রয়েছে পাসওয়ার্ড। পাসওয়ার্ডটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় যেটার উপর নির্ভর করে আপনার ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটের বা আপনার একাউন্ট এর সকল তথ্য অনেক মূল্যবান ইনফর্মেশন। তাই পাসওয়ার্ডটা সুরক্ষা রাখা একান্ত জরুরি একটা বিষয়। আজকে এখানে আলোচনা করব কিভাবে আপনার পাসওয়ার্ড সুরক্ষিত রাখবেন এবং পাসওয়ার্ডটি সুরক্ষিত রাখতে আপনার যে করণীয়। তার আগে আমাদের জেনে নেয়া উচিত কোথায় কোথায় আমাদের পাসওয়ার্ড প্রয়োজন।

PASSWORD
PASSWORD

স্টেপ বাই স্টেপ টিউটরিয়াল

পাসওয়ার্ড কিঃ

পাসওয়ার্ড হল এমন একটি পদ্ধতি যেখানে আপনার বিপুলসংখ্যক তথ্য বা ডাটা থাকবে সেখানে আপনি কয়েকটি ডিজিট বা অক্ষর দিয়ে সেই ডাটাগুলোকে লক করে রাখতে পারবেন। এবং যখনি আপনি ওই নির্দিষ্ট ওয়ার্ড বা অক্ষরগুলি প্রবেশ করাবেন তখনই আপনি সে সকল ডাটাগুলো দেখতে পাবেন। পাসওয়ার্ডের মাধ্যমে আপনার বিপুলসংখ্যক ডাটা এবং অনেক প্রয়োজনীয় তথ্য কোন ভার্চুয়াল বা ইলেকট্রিক ডিভাইসের মাধ্যমে সুরক্ষিত রাখা যায়।

দেখুনঃ পড়ালেখার পাশাপাশি অনলাইনে আয়।

পাসওয়ার্ড কোথায় ব্যবহার করা হয়ঃ

বর্তমানে অনলাইন জগতের সকল ক্ষেত্রেই প্রায় পাসওয়ার্ড এর প্রয়োজন হয়। যদি আপনার একটি ওয়েবসাইট থাকে সেই ওয়েবসাইটটিকে কন্ট্রোল করতে হলে আপনার একটি পাসওয়ার্ড এর প্রয়োজন। আপনার যদি একটি ফেসবুক একাউন্ট থাকে বা টুইটার একাউন্ট থাকে সেখানেও পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনাকে সুরক্ষা অবলম্বন করতে হয়। এমনকি ইমেইল, আপনার পার্সোনাল কম্পিউটার, আপনার মোবাইল ফোন এবং অন্যান্য এসমস্ত প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র পাসওয়ার্ড দিয়ে বন্ধ করে রাখা যায়। যেগুলো ওই নির্দিষ্ট পাসওয়ার্ড ছাড়া অন্য কেউ আপনার ডিভাইসটি বা আপনার তথ্যগুলো বা আপনার ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারবে না।

পাসওয়ার্ড কেন ব্যবহার করা হয়ঃ

এ কারণে পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা হয় যাতে আপনার কোন তথ্য অন্য কেউ না জানতে পারে। মনে করুন আপনার মোবাইল রয়েছে সেখানে আপনার অনেক ব্যক্তিগত তথ্য রয়েছে যেগুলো অন্য কোন লোকে দেখলে আপনার সমস্যা বা ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। যেমন আপনার ব্যাংক হিসাব আপনার একাউন্ট বা আপনার টাকা-পয়সার লেনদেন হিসাব পত্র আপনার মোবাইলে রয়েছে আপনি চাচ্ছেন সেগুলো অন্য কাউকে দেখাবেন না। অথবা আপনার মোবাইল ফোনে আপনার পারিবারিক অনেক ফটো রয়েছে আপনি যাচ্ছেন যেগুলো অন্য কাউকে দেখাবেন না সেক্ষেত্রে আপনি যদি পাসওয়ার্ড দিয়ে লক করে রাখেন তাহলে আপনার সেই তথ্যগুলো অন্য কোন ব্যক্তি জানতে পারবে না। যতক্ষণ না পর্যন্ত আপনি ওই পাসওয়ার্ডটা থাকে না দেবেন।

দেখুনঃ Graphics Design শিখে অনলাইনে ঘরে বসে আয় করুন।

অথবা মনে করুন আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট রয়েছে সেখানে আপনি পাসওয়ার্ড দিয়ে বন্ধ করা থাকে যদি আপনার পাসওয়ার্ডটি অন্য কোন ব্যক্তি জেনে যায় তাহলে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ওপেন করে সেখানে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটানো সম্ভাবনা থাকে। আর যদি কখনো এমন কোন ঘটনা হয়ে যায় তখন সকল দায়ভার আপনার উপর বর্তাবে কেননা অ্যাকাউন্টে আপনার নামে।

বর্তমানে এরকম ঘটনা ঘটে আসছে তাই পাসওয়ার্ডটি সুরক্ষিত রাখা আমাদের একান্তই প্রয়োজন।

পাসওয়ার্ড কেন সুরক্ষিত হওয়া প্রয়োজনঃ

পাসওয়ার্ড সুরক্ষা রাখার প্রয়োজন হয় এ কারণেইঃ

  • যাতে আপনার ফেসবুক একাউন্টে কেউ প্রবেশ করে আপনার কোন তথ্য উলটপালট বা বিভ্রান্তিকর কোন তথ্য আপলোড করতে না পারে।
  • আপনার ওয়েবসাইটের তথ্য যাতে অন্য কেউ না পরিবর্তন করতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রেখে আপনার পাসওয়ার্ডটি কে শক্ত করে দেওয়া প্রয়োজন।
  • অথবা আপনার মোবাইল ফোনে অনেক প্রয়োজনীয় ডাটা থাকে আপনি চাচ্ছেন সেই টাকাগুলো অন্য কাউকে দেখাবেন না সেজন্য আপনার পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা উচিত।
  • এছাড়াও এরকম আরও নানাবিধ প্রয়োজনে আপনার পাসওয়ার্ডের প্রয়োজন হয় এবং পাসওয়ার্ডটি যাতে অন্য কোন দ্বিতীয় পক্ষ হ্যাক বা জানতে না পারে বা আবিষ্কার করতে না পারে এই জন্য কঠিন এবং নিরাপদ পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা প্রয়োজন।

পাসওয়ার্ড নির্ধারণের ক্ষেত্রে বেশ কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা জরুরি।

একটি পাসওয়ার্ড এর জন্য এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই কিছু সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে কেননা এ পাসওয়ার্ড এর মাধ্যমে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো গোপন করে রাখছেন।

পাসওয়ার্ডে নিজের নাম ব্যবহার করাঃ

অনেকে পাসওয়ার্ড দেওয়ার সময় নিজের নাম ব্যবহার করে থাকেন এবং নামের আশেপাশে বিভিন্ন ক্যারেক্টার বা সংখ্যা বা কোন অংক বসে থাকেন এটা কোনোভাবেই উচিত নয় কেননা একজন হ্যাকার প্রথমে আপনার পাসওয়ার্ড কি হ্যাক করতে হলে প্রথমে টার্গেট করবে আপনার নাম জন্মতারিখ বা এই ধরনের ডাটা এন্ট্রি করব।

আপনার পাসওয়ার্ডের যদি আপনার নাম ব্যবহার করেন সে ক্ষেত্রে কোন ব্যক্তির সেটাকে আবিষ্কার করার অনেক ক্ষেত্রে সহজ হয়ে যাবে।

পাসওয়ার্ডে জন্মসাল ব্যবহার করাঃ

আমার মতে আপনার পাসওয়ার্ড এর জন্ম সাল ব্যবহার করা মোটেও উচিত নয়। কেননা বিভিন্ন মাধ্যমে আপনার জন্ম জন্ম তারিখ খুব সহজে কেউ জেনে নিতে পারবে। এবং আপনার কোনো পাসওয়ার্ড যদি আপনার জন্ম সাল দিয়ে রাখা হয় সে ক্ষেত্রে খুব সহজেই তারা কিন্তু আপনার সেই পাসওয়ার্ড থেকে হ্যাক করে ফেলতে পারবে এবং কি হ্যাক করে আপনার ডাটা তথ্য এমনকি অ্যাকাউন্ট অ্যামাউন্ট পর্যন্ত  চুরি করে নিতে পারে।

পাসওয়ার্ডে মোবাইল নম্বর ব্যবহার করাঃ

বর্তমানে অনেক অপারেটরই তাদের পাসওয়ার্ড হিসেবে তাদের মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করাকে একটি নিরাপদ ও সুরক্ষিত মাধ্যম মনে করে থাকেন। কিন্তু এটা মোটেই ঠিক নয়। কেননা আপনার মোবাইল নাম্বার যে কেউই সংরক্ষণ করে রাখতে পারে বাজে কাউকে দেওয়া হতে পারে। একবার মনে করুন যদি কেউ ইচ্ছা করে আপনার অ্যাকাউন্ট টা কে সে একসেপ্ট নেবে আর আপনার মোবাইল নাম্বার যদি পাসওয়ার্ড হয় তাহলে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করা তাঁর পক্ষে কতটা সহজ হয়ে যাবে।

দেখুনঃ যেসব কাজ করে অনলাইন থেকে আয় করা যায়

সিরিয়াল নাম্বার ব্যবহার করাঃ

আপনি যদি পাসওয়ার্ড এ কোন সিরিয়াল নাম্বার ব্যবহার করেন যেমন, abcd, 12345, wxys তাহলে কিন্তু আপনার পাসওয়ার্ড এর অনেকটাই ঝুঁকি রয়েছে। বর্তমানে বিশ্বে সবচেয়ে বেশি সহজ পাসওয়ার্ড হিসেবে আখ্যায়িত হয়েছে 1434। তাই বুঝতে পারছেন পাসওয়ার্ড কখনোই সিরিয়াল অনুযায়ী দেওয়া উচিত নয়।

পাসওয়ার্ডে পরিচিত শব্দ ব্যবহার করাঃ

পাসওয়ার্ড ব্যবহারের ক্ষেত্রে পরিচিত শব্দগুলো ব্যবহার না করাই উচিত যেমন, book, pen, windows, গ্রামের নাম, এলাকার নাম, বন্ধুর নাম, উপজেলার নাম, বিশেষ কোন কোড, এলাকা কোড, পরীক্ষার রোল/রেজি নম্বর, ইত্যাদি

দেখুনঃ ঘরে বসে আয় করুন Freelancer থেকে ।

একই পাসওয়ার্ড একাধিক একাউন্টে ব্যবহারঃ

অনেকে একই পাসওয়ার্ড একাধিক অ্যাকাউন্ট এবার সকল অ্যাকাউন্ট একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে থাকেন। এটা আসলে আপনার পাসওয়ার্ড শক্তিশালী হয় তাহলে কোন সমস্যা নেই আবার একটি সমস্যা হল যদি কেউ আপনার একটি পাসওয়ার্ড জেনে যায় তাহলে সে পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার সকল একাউন্টের এক্সেস তিনি পেয়ে যাচ্ছেন। এদিকে বিবেচনায় একই পাসওয়ার্ড একাধিক একাউন্টে ব্যবহার করা উচিত নয়। আপনার মনে রাখার সুবিধার্থে এটাই সবচেয়ে সহজ উপায়। তাই পাসওয়ার্ড সিকিউর রাখতে আপনার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা একান্ত প্রয়োজন।

পাসওয়ার্ড লিখে রাখাঃ

আমাদের মধ্যে অনেক কিভাবে পাসওয়ার্ড লিখে রাখার প্রবণতা রয়েছে। অনেকেই পাসওয়ার্ড মনে রাখতে পারে না সে জন্য তাদের পাসওয়ার্ড টাকে বিভিন্ন খাতা মোবাইল বা ফোন বুকে লিখে রাখছেন। এটা কখনই উচিত নয় এটা অনিরাপদ একটি পদ্ধতি। আপনার পাসওয়ার্ড কে অবশ্যই আপনার মনে রাখতে হবে এটা কখনো কোথাও কোন ইনডেক্স বা ফোনবুকে লিখে রাখা যাবে না।

দেখুনঃ প্রতিদিন 1000+ টাকা আয় করুন Fiverr থেকে ঘরে বসে।

পাসওয়ার্ড মনে রাখতে কোন অ্যাপস ব্যাবহার করাঃ

পাসওয়ার্ড মনে রাখার জন্য বিভিন্ন অ্যাপস এর মাধ্যমে সাইন ইন করা বিভিন্ন অ্যাপস এর পাসওয়ার্ড লিখে রাখা। এমন কোন অ্যাপস ইনস্টল করা যেটা আপনার লাস্ট পাসওয়ার্ড মনে রাখে এটা মোটেও উচিত নয়। কেননা যখনই আপনার কোন সফটওয়্যার আপনার পাসওয়ার্ড রিড করবে তখন তার আশেপাশে সম্পর্কে জানবে।

অপরিচিত কোন ওয়েব এপলিকেশনে পাসওয়ার্ড দিয়ে এক্সেস করাঃ

অপরিচিত কোন এপ্লিকেশন বা কোন অ্যাপস আপনার পাসওয়ার্ড দিয়ে অ্যাক্সেস করা এটা বোকামি। কেননা আপনার পাসওয়ার্ডটি মূল্যবান আর অপরিচিত অ্যাপ্লিকেশনটি হতে পারে আপনার পাসওয়ার্ড চুরি করার একটি ফর্মুলা। তাই অপরিচিত কোন অ্যাপস বা এপ্লিকেশন করার আগে অবশ্যই ভালোভাবে সেই অ্যাপ্লিকেশন সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে।

পাসওয়ার্ডকে শক্তিশালী করতে যা যা করা উচিৎঃ

  • পাসওয়ার্ড 12 ডিজিট এ উপরে নেওয়া।
  • পাসওয়ার্ড এ upper case Letter ব্যবহার করা
  • পাসওয়ার্ড lower case letter ব্যবহার করা
  • পাসওয়ার্ড  special character ব্যবহার করা
  • পাসওয়ার্ড number ব্যবহার করা

যেমন: #xy549Ra[email protected]#&!*

একই পাসওয়ার্ড দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহারঃ

পাসওয়ার্ড চুরি বা হ্যাক হওয়ার ভয় থেকে বাঁচার জন্য একই পাসওয়ার্ড দীর্ঘদিন ব্যবহার না করাটাই উচিত। আপনার যখন সন্দেহ হবে যে আপনার পাসওয়ার্ডটা সম্ভবত কোন দ্বিতীয় ব্যক্তির নিকট চলে গেছে সেক্ষেত্রে আপনার পাসওয়ার্ড দিন যত দ্রুত সম্ভব পরিবর্তন করে ফেলুন এটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

সর্বোপরিঃ একটি পাসওয়ার্ড হল আপনার কোন সম্পদ বা আপনার কোন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বা ডাটা কে গোপন করে রাখার একটি সবচেয়ে উত্তম পন্থা। তাই এটাকে সব সময় গোপনীয়তা বজায় রেখে সতর্কতার সাথে রাখাটাই উত্তম। পাসওয়ার্ড এর ব্যাপারে উপরোক্ত বিষয়গুলো ভালভাবে বিবেচনা করলে আপনি পাসওয়ার্ড হ্যাক এর হাত থেকে শতভাগ বেঁচে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

লেখাটি ভালো লাগলে শেয়ার করে বন্ধুদেরকে জানান সুযোগ করে দিন আর কোনো তথ্য বা কোনো পরামর্শ প্রয়োজন হলে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here