পড়ালেখার পাশাপাশি অনলাইনে আয়।

যেসমস্ত ছাত্রছাত্রীরা পড়ালেখার পাশাপাশি অনলাইন থেকে আয় করতে চান আজকে এই আর্টিকেলটি শুধুমাত্র তাদের জন্য। আজ থেকে পাঁচ বছর আগে অনলাইনে আর কথা শুনলে মাথার ভিতরে অনেক প্রশ্ন কাজ করতো। অনলাইনে ইনকাম করা সম্ভব? অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা সম্ভব? আমি কি অনলাইনে আয় করতে পারবো? এরকম নানান প্রশ্ন মাথার ভিতরে এসে ভিড় জমাতে। কিন্তু বর্তমানে কেউ অনলাইনে আর কথা বললে মাথার ভিতরে তেমন কোনো প্রশ্নই জায়গা না কেননা, বর্তমানে প্রচুর ছাত্র-ছাত্রী এবং প্রচুর ফ্রিল্যান্সার অনলাইন থেকে প্রচুর পরিমাণে ইনকাম করছেন।

অনলাইনে কি আয় করা যায়?

অনলাইনে প্রতি মাসে ভালো পরিমাণে ইনকাম করছেন এরকম ফ্রিল্যান্স ব্লগার আপনার হাতের নাগালে অনেক দেখতে পাবেন। আমার দেখা মতে অনেক ছেলেমেয়েরা অনলাইন থেকে 20 হাজার থেকে শুরু করে দু লক্ষ টাকার উপরে ইনকাম করে আসছেন প্রতিমাসে। আর এই কথাটা আপনার অবিশ্বাস হওয়ার মত না কেননা আপনি যদি আপনার আশেপাশে একটু খোজ খবর নিয়ে দেখেন দেখতে পাবেন আপনার পরিচিত মুখের ভিতর অনেকেই রয়েছেন যারা অনলাইন থেকে ভালো পরিমাণে ইনকাম করেন।

পড়ালেখার পাশাপাশি অনলাইনে আয়
পড়ালেখার পাশাপাশি অনলাইনে আয়

যাইহোক কথা না বাড়িয়ে আজকে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব কিভাবে পড়ালেখার পাশাপাশি অনলাইন থেকে ইনকাম করা সম্ভব। যারা আমার এই ব্লগ টির আগে বিভিন্ন পোস্ট পড়েছেন তারা অবশ্যই জানেন আমি ব্লগিং করি এবং গুগল এডসেন্স নিয়ে কাজ করি। আর যারা না জানেন আমি তাদেরকে বলছি আমি ব্লগিং করি এবং ব্লগিং থেকে প্রতিমাসে এমনটাই করে থাকি।

এখন প্রশ্ন হল আপনি যদি ইনকাম করতে চান তাহলে আপনাকে কি কি কাজ করতে হবে? অনলাইনে ইনকাম করার মত অসংখ্য কাজ রয়েছে যেগুলো আপনি করতে পারেন। আমি অলরেডি এর আগে আলোচনা করেছি 2020 সালে অনলাইনে আয় করার কিছু সহজ মাধ্যম। এবং আলোচনা করেছি ছাত্র-ছাত্রীদের অনলাইনে আয় করার সবচেয়ে সহজ উপায়। আপনি চাইলে উপরের দুইটি আর্টিকেল পড়ে আসতে পারেন।

এমনকি আপনি চাইলে প্রতিমাসে আর্টিকেল লিখে অনেক আয় করতে পারেন।

অনলাইনে আয় করতে কি লাগে?

  • অনলাইন আয় করতে হলে আপনার যে প্রস্তুতি গুলো প্রয়োজন হবে তা হলোঃ
  • আপনার একটি ল্যাপটপ বা কম্পিউটার
  • ইন্টারনেট সংযোগ
  • কম্পিউটারে লেখালেখি এবং ইন্টারনেট ব্রাউজিং করার মত কিছু প্রাথমিক ধারণা
  • ইউটিউব সম্পর্কে ধারনা
  • গুগল সম্পর্কে ধারনা

আপনি যখনই অনলাইনে ইনকাম করার জন্য প্রস্তুতি নিবেন বা অনলাইনে ইনকাম করার জন্য কাজ করতে থাকবেন উপরের বিষয় গুলো আপনার প্রয়োজন হবে।

আপনার যদি কম্পিউটার না থাকে তবে স্মার্টফোন তো অবশ্যই আছে। তাইনা? আপনি যদি মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে আয় করতে চান তবে আপনি এই আর্টিক্যালটি পড়ুন=> মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে আয়।

যখন আপনার উপরের এই প্রয়োজনীয় ডিভাইস থাকবে এবং বিষয়বস্তু গুলো জানা থাকবে তখন তখন আপনি নিম্নে উল্লেখিত মাধ্যমগুলোর মাধ্যমে অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন।

অনলাইনে আয় করার মত বিভিন্ন মাধ্যম রয়েছে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেঃ

এফিলিয়েট মার্কেটিং, ই-কমার্স, গুগল এডসেন্স ব্লগিং, গুগল এডসেন্স ইউটিউব, এস.ই.ও, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, আর্টিকেল রাইটিং, এছাড়া অনেক মাধ্যম রয়েছে।

আপনি কোনটি করবেন?

আমি আমার এই ব্লগে মাধ্যমগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি এখন আপনাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আপনি কি বিষয় নিয়ে কাজ করবেন। সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে আপনাদের অবশ্যই জানা উচিত কোন বিষয়টি কিভাবে ইনকাম করা যায় এবং কিভাবে প্রসেসিং করতে হয় । সে বিষয়গুলো জানতে হলে অবশ্যই আমার এই ব্লগে নিম্নের 18 গুলো পড়ুন তারপর সিদ্ধান্ত নিন কিভাবে আপনি অনলাইন থেকে আয় করবেন।

ব্লগিং করে আয়।

অনলাইনে আয় করার জনপ্রিয় মাধ্যম গুলোর মধ্যে ব্লগিং হচ্ছে অন্যতম একটি জনপ্রিয় মাধ্যম। যে কেউ চাইলে একটি ওয়েবসাইট বানিয়ে সেখানে বিভিন্ন ধরনের ইনফরমেশন দিয়ে সেখান থেকে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আয় করতে পারে প্রতি মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা।

ব্লগিং করে আয় করতে চাইলে মাধ্যমগুলোর মাধ্যমে আয় হবে সেগুলো হলোঃ 

গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে আয়, এফিলিয়েট মার্কেটিং, ই-কমার্স ওয়েবসাইট, সার্ভিস বিক্রয় এছাড়াও আরও অনেক মাধ্যম রয়েছে যেগুলো অবলম্বন করে একটি ব্লগ থেকে আয় করা সম্ভব।

আর্টিক্যাল লিখে আয়।

বর্তমান যুগের ডিজিটাল মার্কেটিং একটি জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম। যে কোন ব্যবসা বা সার্ভিস অনলাইনে প্রচার করতে গেলে কোন কাজ করতে গেলে অবশ্যই কন্ট্যাক্ট বা আর্টিকেল এর প্রয়োজন হয়। তাই বর্তমান আর্টিকেল রাইটিং এর তুলনা অন্য কোন দেশে হয় না।

আপনি যদি ভাল আর্টিকেল লিখতে পারেন তাহলে আপনি চাইলে ফ্রিল্যান্সিং করে অথবা নিজে একটি ব্লগ বানিয়ে সেখানে আর্টিকেল লিখে বিভিন্ন মাধ্যমে এপ্লাই করে কিন্তু ঘরে বসে প্রচুর পরিমানে আয় করতে পারবেন। এটি একটি এভারগ্রীন বা long-term আয় করার পদ্ধতি।

বর্তমানে অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে আর্টিকেল রাইটার এর অনেক মূল্য রয়েছে।

গুগল এডসেন্স থেকে আয়।

যারা অনলাইন থেকে আয় করার কথা ভাবছেন বা আয় করছেন তাদের বড় একটি অংশ আয় করছেন গুগল এডসেন্স থেকে। গুগল এডসেন্স হলো গুগোল এর একটি প্রোডাক্ট। এটি খুবই জনপ্রিয় একটি মাধ্যম। এটি মূলত একটি বিজ্ঞাপন প্ল্যাটফর্ম। আপনার যদি একটি ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেল থাকে তাহলে আপনি চাইলেই সেখানে গুগল এডসেন্স এর বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে প্রতিমাসে আনলিমিটেড ইনকাম করতে পারবেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইন থেকে আয়।

বর্তমানে ডিজিটাল যুগে গ্রাফিক্স ডিজাইনের তুলনা অন্যদের সাথে হয়না। বর্তমানে যে যত ক্রিয়েটিভ বা সৃজনশীল ডিজাইন করতে পারবেন তার মূল্য মার্কেটে অনেক বেশি। বিভিন্ন অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনে রয়েছে অনেক চাহিদা। সুতরাং আপনি চাইলেই গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস থেকে বিপুল পরিমানে আয় করতে পারবেন। এটি ভবিষ্যতের একটি অগ্রগতি সম্ভাবনা। গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে চান তাহলে আপনি এখানে দেখতে পারেন। এখানে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর খুঁটিনাটি।

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়।

বর্তমানে অনলাইনে আয় করার জনপ্রিয় আরো একটি মাধ্যম হচ্ছে এফিলিয়েট মার্কেটিং।

এফিলিয়েট মার্কেটিং মূলত অন্য কোন কোম্পানি বা অন্য কোন ব্র্যান্ডের কোন পণ্য বা সেবা বিক্রয় করে সেখান থেকে কমিশন অর্জন করা। ভালো কোন ব্র্যান্ডের পণ্য বিক্রয় করতে পারেন তাহলে খুব ভালো পরিমাণে মুনাফা পেতে পারবেন। এর জন্য প্রয়োজন হবে আপনার একটি ভালো মানের ওয়েব সাইট অথবা ইউটিউব চ্যানেল হতে পারে ফেসবুক বা সোশ্যাল মিডিয়ার কোন ভাল কমিউনিটি। যেখানে আপনি চাইলেই যে কোন পণ্য খুব সহজেই করতে পারবেন। আর এফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে যত বিক্রয় তত আয়।

ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয়।

সবশেষে আপনি যখন উপরের এই বিষয়গুলো সম্পর্কে একটি প্রাথমিক ধারণা নেবেন তারপর আপনার অটোমেটিক্যালি মাথার ভিতরে একটি বিষয় কাজ করবে যে আপনি কোন বিষয়টি ভালো এবং কম্ফোর্টেবল ফিল করেন আপনি সেই বিষয়টি নিয়ে শুরু করুন। শুরু করুন, এবং আজও শুরু করুন। আর যদি আপনার কোন সমস্যা থাকে বা কোন কিছু বুঝতে অসুবিধা হয় তবে অবশ্যই কমেন্ট করবেন।  সাধ্যের মধ্যে সহযোগিতা করার চেষ্টা করব।

লেখাটি ভালো লাগলে  অবশ্যই শেয়ার করবেন।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন।

You May Like