মার্কেটিং কাকে বলে? মার্কেটিং এর জনক কে? (বিস্তারিত)

মার্কেটিং কাকে বলেঃ আমাদের এই পোস্টে আপনার সাথে শেয়ার করব, মার্কেটিং কাকে বলে এবং মার্কেটিং এর জনক কে। আপনি যদি উক্ত বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানতে চান। তাহলে আমাদের দেওয়া আর্টিকেল শেষ পর্যন্ত মনযোগ দিয়ে পড়ুন।

বর্তমান সময়ে মার্কেটিং শব্দটি অনেক পরিচিত। যদিও মার্কেটিং সম্পর্কে আমাদের এখনো বিস্তারিত ধারণা নাই। তার জন্য আজ এখানে মার্কেটিং সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করব।

আপনি মনে হয় জানেন যে, মার্কেটিং ছাড়া কোন ছোট ব্যবসা বা বড় ব্যবসা সঠিক ভাবে চালানো সম্ভব না। ব্যবসায় সফলতা অর্জন করার জন্য মুল মন্ত্র হিসেবে মার্কেটিং বেছে নিতে হবে।

মার্কেটিং এর কথা শুনে আপনি মনে হয় ভাবছেন যে, আপনিতো মার্কেটিং সম্পর্কে জানেন। নতুন করে আর মার্কেটিং জানার কি আছে। বন্ধুরা, মার্কেটিং সম্পর্কে হালকা কোন বিষয় জানা থাকলে কাজ হবে না। তাই মার্কেটিং কাকে বলে বিস্তারিত তথ্য জানতে পারলে আপনি সহজ ভাবে যে কোন ব্যবসা মার্কেটিং এর আওতায় নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারবেন।

মনে করুন, আপনি যদি মার্কেটিং মানে একজন মানুষ এর কাছে কিছু পণ্য বিক্রি করার কৌশল না। মার্কেটিং মানে পণ্য বিক্রি করার প্রক্রিয়াকে বুঝায় না। এক্ষেত্রে মনে রাখবেন মার্কেটিং এর মানে সম্পূর্ণ আলাদা বিষয়। তাই উক্ত বিষয়ে সঠিক ভাবে জেনে নেওয়াটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

মার্কেটিং কাকে বলে? মার্কেটিং এর জনক কে? (বিস্তারিত)
মার্কেটিং কাকে বলে? মার্কেটিং এর জনক কে? (বিস্তারিত)

তাহলে আপনাকে শুরুতে মার্কেটিং কি এই বিষয়ে জেনে নিতে হবে। তো চলুন বিস্তারিত আলোচনায় ফিরে যাওয়া যাক।

আমরা প্রথমেই বলে রাখি মার্কেটিং হলো এমন একটি ব্র্যান্ড, ব্যবসা যা জনগরের কাছে এবং মার্কেটে প্রচার করা ও সে গুলোর ডিমান্ড বাড়ানোর উদ্দেশ্যে একটি প্রক্রিয়া।

উক্ত প্রক্রিয়াতে বিভিন্ন প্রকার মার্কেটিং কৌশল ব্যবহার করা যায়। ছোব বা বড় সকল প্রকার কোম্পানি বা ব্যবসায়ীদের তাদের পণ্য গুলো মার্কেটিং করতে হয়।

আর উক্ত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সাধারণ জনগণ এর কাছে তাদের পণ্য গুলোর ব্যাপারে জানিয়ে দিতে সক্ষম হয়। বর্তমান সময়ে মার্কেটিং কৌশল ছাড়া একটি ব্যবসায় কোন ভাবে সফল হওয়া যায় না।

আরো পড়ুনঃ

মার্কেটিং কি? (What is marketing)

মার্কেটিং হচ্ছে কোন পন্য, সেবা ব্যবসার প্রচার ও প্রসার করার কাজে ব্যবহার করা একটি মাধ্যম। মার্কেটিং এর মুল উদ্দেশ্য হচ্ছে সাধারণ জনগণের কাছে নির্দিষ্ট পণ্য ও প্রডাক্ট গুলোর ভ্যালু বৃদ্ধি করা।

মার্কেটি হলো এমন একটি ব্যবস্থাপনা যার মাধ্যমে যে কোন সার্ভিস একটি ধারণার মধ্যে দিয়ে পণ্য গুলো গ্রহকের কাচে চলে যায়।

এক্ষেত্রে বলা যায় মার্কেটিং এমন একটি ব্যবসা প্রসেস যেখানে সাধারণ গ্রাহকদের চাহিদা পূরণ করার জন্য প্রয়োজনীয় পণ্য বা প্রডাক্ট গুলো খুজে বের করে সঠিক সার্ভিস প্রদান করা।

মার্কেটিং এমন একটি মাধ্যম বা কৌশল যার ফলে ব্যবসার সার্ভিস এর প্রতি সম্ভাব্য সাধারণ গ্রহকদের আকর্ষণ বা আগ্রহী করে তোলে। আর এটিই হলো মার্কেটিং এর সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপায়।

মার্কেটিং কাকে বলে ?

বর্তমান সময়ে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান গুলো যখন মুনাফা লাভের আশায় এবং লক্ষ্য অর্জন করে বিনিয়োগ সৃষ্টির পরিকল্পনা করে প্রচার, মূল্যায়ন, পণ্য ও প্রডাক্ট গুলো বন্টন করার প্রক্রিয়া করে থাকে তাহলে তাকেই মার্কেটিং বলা হয়।

এই সময়ে মার্কেটিং কে আবার অনেক সময় বাজারজাতকরণ করা বলা হয। সহজ ভাষায় বলতে গেলে, মার্কেটিং হচ্ছে- কোন পণ্য বা সার্ভিস প্রচার করে বিক্রি করার মতো কাজ, বাজার গবেষণা এবং বিজ্ঞাপন প্রচারের সংশ্লিষ্ট একটি সহজ কার্যক্রম।

অনেকের মতে, মার্কেটিং হলো- একটি বিনিময় কম টাকার ব্যবসার আইডিয়া জেনে ব্যবসা শুরু করার উপায়। যার মাধ্যমে কাস্টমার/ গ্রাহক এর চাহিদা পূরণ করা হয় সন্তষ্টুটির সাথে।

মার্কেটিং এর জনক কে?

বর্তমান সময়ে অনেক লোক আছে, যারা বিভিন্ন সময় প্রশ্ন করে যে, মার্কেটিং এর জনক কে? আপনার উত্তরে বলব, মার্কেটিং এর জনক হলো ফিরিপ কোটলার। তিনি আমেরিকা’র শিকাগো শহরে বসবাস করে।

আরো পড়ুনঃ

মার্কেটিং কত প্রকার?

বর্তমান সময়ে অনেক ধরণের মার্কেটিং আছে। ধরুন আপনি লোকজন সমৃদ্ধ বাজারে কোন বস্তুর ভালো দিক সম্পর্কে উচ্চ আওয়াজ করে লোক সমাগম করেছেন।

এখন বাজের উপস্থিত লোকজন সেই বস্তুর ভালো দিক গুলো জেনে নিতে সেই প্রস্তুর প্রতি আকর্ষীত হয়েচে। তার মধ্যে অনেক লোক কিন্তু সেই বস্তুটি ক্রয় করার জন্য আগ্রহী হবে। আর এই প্রক্রিয়ায় পণ্য বা প্রডাক্ট বিক্রি করার নামই হলো মার্কেটিং

কিন্তু আমাদের জানামতে মার্কেটিং হলো দুই প্রকার। যেমন-

তো চলুন উক্ত দুইটি প্রকার সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে নেওয়া যাক।

গতানুগতিক মার্কেটিং কি?

আমরা প্রতি দিন কোন না কোন ভাবে গতানুগতিক মার্কেটিং এর আওতায় চলে থাকি। এই জন্য আমরা সকলেই গতানুগতিক মার্কেটিং এর সাথে পরিচিত আছি।

উক্ত মার্কেটিং লোকদের দেখতে সহজ হয় ও বুঝতেও সহজ হয়। যুগের পর যুগ আমরা উক্ত গতানুগতিক মার্কেটিং এর সাথে চলে আসছি।

উক্ত গতানুগতিক মার্কেটিং এর মাধ্যমে নিজের ব্র্যান্ড ও পন্য গুলো সহজেই লোকদের সামনে প্রচার করে বিক্রি করার সুযোগ পেয়ে থাকি।

তো চলুন জেনে নেওয়া যাক গতানুগতিক মার্কেটি কিসের উপর নির্ভর থাকে। যেমন-

  • ম্যাগাজিন বিজ্ঞাপন
  • টিভি বিজ্ঞাপন
  • ব্যানার বিজ্ঞাপন
  • নিউজ পেপার বিজ্ঞাপন
  • ব্রশিউর বিজ্ঞাপন
  • রেডিও বিজ্ঞাপন ইত্যাদি।

উক্ত বিজ্ঞান গুলোর মাধ্যমে আপনার পণ্য বা সার্ভিস মিলিয়ন মিলিয়ন লোকদের কাচে পৌছাতে পাবেন। মানুষ সহজ ভাবে আপনার পণ্য ও সেবা গুলোর বিষয়ে জানতে পারবে।

আপনার বিজ্ঞাপন গুলো যখন কোন নিউজ পেপার, টিভি বিজ্ঞাপন ইত্যাদি জায়গায় প্রচার হবে তখন সকল বয়সের এবং সকল পেশার লোকেরা দেখতে পারবে।

যার ফলে আপনার প্রচার করা  পণ্য ও সার্ভিস গুলো বিক্রির হার বৃদ্ধি পাবে। তার জন্য আপনার নিজের ব্যবসার প্রচার জন্য উক্ত গতানুগতিক মার্কেটিং শুরু করে দিতে পারেন। উক্ত পদ্ধতির মাধ্যমে দেশে এবং বিদেশে আপনার পণ্য ও সেবা গুলো পরিচিত লাভ করবে।

ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

বর্তমান সময়ে আমাদের অধিকাংশ লোকের কাছে অনলাইন বিষয়টি অনেক জনপ্রিয়। রাতে ও দিনে সকল সময় লোকেরা ওয়েব ব্রাউজারে এবং সোশ্যাল মিডিয়াতে সময় দিয়ে থাকে।

এখন /রোকেরা কোন কিছু জানতে চাইলে প্রথমেই গুগলে বা ইউটিউবে সার্চ করে তথ্য জানতে আগ্রহী থাকে। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে আপনার বিভিন্ন পন্য ও সেবা গুলো প্রচার করার জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারবেন।

উক্ত ডিজিটাল মার্কেটিং কিংবা ইন্টারনেট/ অনলাইন মার্কেটিং করার জন্যে হাজার হাজার প্লাটফর্ম আছে। উক্ত জনপ্রিয় মাধ্যম গুলোর মাধ্যমে আপনি পণ্য ও সার্ভিস গুলো প্রচার করার জন্য ব্যবহার করার সুযোগ পাবেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং করার জন্য আপনি নিম্নোক্ত উপায় গুলো ব্যবহার করতে পারেন। যেমন-

  • গুগল বিজ্ঞাপন
  • ইউটিউব বিজ্ঞাপন
  • এফিলিয়েট মার্কেটিং
  • ওয়েবসাইট মার্কেটিং
  • মোবাইল মার্কেটিং
  • কন্টেন্ট মার্কেটিং ইত্যাদি।

আপনি উক্ত মাধ্যম গুলো ব্যবহার করে আপনার ব্যবসায়ী সকল পণ্য ও সেবা গুলো ডিজিটাল মার্কেটিং হিসেবে প্রচার ও প্রসার করে বিক্রি করার সুযোগ পেয়ে যাবেন।

বর্তমান সময়ে অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা উক্ত মাধ্যমে তাদের ব্যবসা ডিজিটাল মাধ্যমে প্রচার করে যাচ্ছে এবং অনেক ভালো বিক্রি করার সুযোগ পাচ্ছে।

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা, আজ আমাদের এই পোস্টে আপনাকে জানানো হলো- মার্কেটিং কাকে বলে এবং মার্কেটিং এর জনক কে। আপনি যদি উক্ত আলোচনা মনযোগ দিয়ে পড়েন। তাহলে আপনিও উক্ত বিষয় গুলো সঠিক ভাবে বুঝতে পারছেন।

আর মার্কেটিং সম্পর্কে আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন। আমাদের এই ওয়েবসাইটে মার্কেটিং এর বিষয়ে অনেক প্রকার পোস্ট প্রকাশ করা আছে। আপনি চাইলে সেগুলো ‍অনুসরণ করতে পারেন।

আমাদের এই পোস্টের সাথে শেষ পর্যন্ত সময় দেওয়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। আমাদের সাথেই থাকুন।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap