পিন্টারেস্ট মার্কেটিং কি? কেন? কিভাবে শুরু করবেন (A2Z) গাইড

পিনটারেস্ট মার্কেটিং কি? আমরা সাধারণত বর্তমানে যে যুগে বসবাস করছি এ সময়ে ব্যবসা বানিজ্য করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া মাধ্যম গুলো বিরাট একটি প্ল্যাটফর্ম হিাবে কাজ করে। আর এর দ্বারা একদিকে যেমন নিজের ব্যবসার মার্কেট অবস্থান বোঝা যায় তেমনি বাজারে কোন পণ্যের কেমন চাহিদা সেটাও ভালোভাবে বোঝা যায়।

তাছাড়া সামাজিক যোগাযোগ/Social Media মাধ্যমের ফলে নিজের পণ্যের বাজার সম্পর্কে ধারণা হয় এবং ক্রেতারা কোনো ধরনের পণ্য পছন্দ করছে সেটা খুব সহজে জানা যায়। তাছাড়া বর্তমান বিশ্বে আপনাকে যদি ব্যবসা করে টিকে থাকতে হয় তাহলে অবশ্যই আপনার ব্যবসায় আধুনিকায়ন আনতে হবে।

বর্তমানে যদি ব্যবসা ক্ষেত্রে উন্নতি করতে হয় তাহলে আপনাকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ওগুলোর সাহায্য নিতেই হবে। বর্তমান যুগে Social Media Marketing ব্যবসাকে উন্নতির শিখরে নিয়ে গিয়েছে। যার মাধ্যমে সাধারভাবে বিভিন্ন মানুষ ব্যবসা করছেন এবং তারা বুঝতে পারছেন যে সোশ্যাল মিডিয়ার গুরুত্ব কতটা তাদের ব্যবসার মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে।

বর্তমান বিশ্বে যত জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম রয়েছে তার মধ্যে পিন্টারেস্ট কিন্তু খুবই জনপ্রিয় একটি সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট। পিন্টারেস্ট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে মার্কেটিং করে লাভবান হচ্ছেন অনেক ব্যবসায়ী। আজকে এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব কিভাবে আপনারা পিন্টারেস্ট মার্কেটিং করে নিজের ব্যবসাকে প্রতিষ্ঠা করবেন।

তাহলে চলুন দেরী না করে জেনে নেওয়া যাক পিন্টারেস্ট মার্কেটিং কী? কেন পিন্টারেস্ট ব্যবহার করা হয় এবং কিভাবে পিন্টারেস্ট মার্কেটিং শুরু করবেন?

পিন্টারেস্ট মার্কেটিং
পিন্টারেস্ট মার্কেটিং

পিন্টারেস্ট মার্কেটিং কি?

পিন্টারেস্ট হলো একটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যার মাধ্যমে সাধারণত ইউজাররা তাদের ব্যবসায়িক পণ্য এবং বিভিন্ন ধরনের বিনোদনমূলক ভিজুয়াল সামগ্রী সবার মাঝে খুব সহজেই শেয়ার করতে পারেন।

আর আপনি যদি পিন্টারেস্ট ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন তাহলে আপনি খুব সহজেই আপনার ব্যবসার পণ্যকে বা  সাইটকে একটি সাধারণ টেমপ্লেট সহ অনুযায়ী সংযুক্ত করে পিন করতে পারবেন। এর মাধ্যমে অন্যান্য ইউজার রা তাদের আগ্রহের বিষয়টি আপনার বোর্ড বা পিন থেকে পেয়ে যাবে।

আপনি যদি এখনও পিন্টারেস্ট একাউন্টের না তৈরি করে থাকেন তাহলে এখনি সময় আপনার  অ্যাকাউন্ট খোলে ফেলুন। আপনি পিন্টারেস্ট একাউন্ট খোলার মাধ্যমে খুব সহজেই আপনার নিজের পণ্য অন্যদের কাছে পৌছে দিতে পারবেন। আর এই ক্ষেত্রে পিন্টারেস্ট হল সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।

আপনি মোবাইল এবং কম্পিউটারের মাধ্যমে আপনার পণ্য পিন্টারেস্টে আপলোড করতে পারবেন এবং সেগুলো পিন করে রাখতে পারবেন। তারপর যেকোন Pinterest ব্যবহারকারী কোন কাস্টমার আপনার ওই পিন্টারেস্ট বাটুনটি ব্যবহার করে আপনার তথ্য খুজে পাবে।

পিন্টারেস্ট মার্কেটিং এর নিয়ম হল আপনি আপনার বন্ধু বা পরিচিতদের বোর্ড গুলো ফলো করতে থাকুন। লাইক করতে থাকুন এবং অন্যের পিন গুলোতে মন্তব্য করতে থাকুন। তারপর প্রতিনিয়ত পিন করতে থাকুন এবং পণ্য ও সেবা সম্পর্কে আপনার পিন গুলোতে আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগের লিঙ্ক গুলো সংযুক্ত করতে থাকুন এবং তা পিন্টারেস্টে শেয়ার করুন।

Pinterest- এ ব্যক্তিগত এবং ব্যবসায়িক দুই ধরনের অ্যাকাউন্ট রয়েছে। একটি ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট তৈরি করার মাধ্যমে আপনাকে পিন্টারেস্ট এনালাইটিক্স ও বেসিক বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনাকে জানতে হবে।

সবচেয়ে বড় কথা হল আপনি যদি একটি নেটিভ ভিডিও প্লেয়ার তৈরি করেন তাহলে পিন্টারেস্ট বিজ্ঞাপনগুলো চালানোর পার্মিশন সহ অন্যান্য বৈশিষ্ট্য গুলো তে এক্সেস পাওয়ার অনুমতি আপনাকে দিবে। তাহলে চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক পিন্টারেস্ট মার্কেটিং কি।

সাধারণত আপনার ব্যবসার প্রসার করতে হলে যত ধরনের টেকনিক বা উপায় অবলম্বন করতে হয় তা Pinterest marketing এর মাধ্যমে করতে পারেবেন।।

Pinterest মার্কেটিং শুধুমাত্র ব্লগারদের জন্য নয়। এটা সকল ব্যবসায়ীদের জন্য সমান গুরুত্বপূর্ণ । কেননা এর মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যবসার জন্য কাঙ্খিত কাস্টমার পেয়ে যাবেন।

আরও সহজ ভাবে বলতে গেলে– পিন্টারেস্ট এর মাধ্যমে আপনার পন্য বা ব্যবসার প্রচার বা প্রসার করতে পারবেন। আশাকরি পিন্টারেস্ট মার্কেটিং কি আপনার এতক্ষনে বুঝে গিয়েছেন।

আমরা কেন পিন্টারেস্ট ব্যবহার করবো?

বর্তমান সময়ে আপনাকে যদি প্রতিযোগিতার এই বিশ্বের অন্যান্য ব্যবসায়ীদের সাথে তাল মিলিয়ে টিকে থাকতে হলে অবশ্যই অনলাইনে মার্কেটিং করতে হবে। অনলাইনে marketing বলতে এর বিশাল জায়গা জুরে রয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং।

মনে করুন- আপনার একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে সেখানে অনেক ভাল মানের পণ্য রয়েছে। কিন্তু মানুষ এটা জানে না তাহলে কিন্তু আপনার পণ্য কাঙ্খিত পরিমাণে বিক্রি হবে না। আপনি যদি আপনার প্রতিষ্ঠানটির প্রচার প্রচারনা করতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসা সম্পর্কে অনেক মানুষ জানতে পারবে এবং আপনার পণ্য সম্পর্কেও ধারনা পাবে। যার মাধ্যমে আপনার পণ্য বিক্রির হার অনেকাংশে বেড়ে যাবে।

আর আপনি এই ক্ষেত্রে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্য জনপ্রিয় একটি মাধ্যম। আপনি pinterest কে টার্গেট করতে কাজ পারেন। কেননা এখানে রয়েছে হাজার হাজার ইউজার। এখানে যদি আপনি বিজ্ঞাপন দিতে পারেন তাহলে অনেক মানুষ আপনার ব্যবসা এবং সম্পর্কে ধারনা পাবে। এবং আপনার ব্যবসার পরিধি ও আস্তে আস্তে বাড়তে থাকবে।

আরও পড়ুন: ফেসবুক থেকে কিভাকে টাকা আয় করা যায়- বিস্তারিত উপায়

তাহলে এতক্ষনে হয়তো বুঝে গিয়েছেন পিন্টারেস্ট মার্কেটিং কি এবং কেন করতে হয় ।

পিন্টারেস্ট মার্কেটিং তুলনামুলক সহজ এবং সহজেই করতে পারবেন। বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় Social Media Marketing এর মর্ধে একটি।  এই জন্য প্রথমে আপনাকে জানতে হবে কিভাবে পিন্টারেস্ট মার্কেটিং করতে হয় এবং এর জন্য কোন কোন বিষয়গুলোতে গুরুত্ব দিতে হবে। আমাদের এই আর্টিকেলটি যদি আপনি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়েন, তাহলে আপনি পিন্টারেস্ট মার্কেটিং কি এবং কিভাবে করবেন সম্পূর্ণ গাইড লাইন পেয়ে যাবেন।

আপনি যদি মনে করেন যে- আপনার পিন্টারেস্ট মার্কেটিং করা প্রয়োজন তাহলে অবশ্যই নিচের বিষয়গুলি মাথায় রাখতে হবে।

যেমনঃ

১. আপনাকে আপনার পণ্যের ছবি বা ভিডিও প্রকাশ করতে হবে বা আপনাকে কনটেন্ট প্রকাশ করতে হবে।

২. প্রতিটি বিষয়ে আপনাকে আলাদা আলাদা বোর্ড তৈরি করতে হবে এবং সেগুলো পিন করতে হবে।

৩. সবার সাথে আপনার বোর্ড ও পিন সম্পর্কে নিয়মিত মার্কেটিং চালিয়ে যেতে হবে।

৪. ওয়েবসাইট এ ট্রাফিক বাড়ানোর বা আপনার অনলাইনে পণ্য বিক্রির পার্সেন্টেজ বাড়াতে বেশি বেশি পিন করতে হবে।

আপনি এই ক্ষেত্রে যত বেশি পিন করতে পারবেন তত আপনার পন্যের সাথে পরিচিতি বৃদ্ধি পাবে ।  তা তো আপনি আপনার ওয়েবসাইটের জন্যে ট্রাফিক বা পণ্য বিক্রির হার বাড়াতে পারবেন। আপনি চাইলে বিভিন্ন ধরনের বোর্ড তৈরি করে পিন্টারেস্ট মার্কেটিং করতে পারেন।

যারা সাধারণত ওয়েবসাইট নিয়ে কাজ করে থাকেন তারা জানেন যে ট্রাফিকের মূল্য কতটা। আর সেটা যদি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসে তাহলে সেটার মূল্য অনেক গুণ হয়ে যায়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মানুষের কাছে ৮৩ শতাংশ ইন্টারেস্ট এর পোস্ট গুলো পৌছায় যা সাধারণত টুইটারইনস্টাগ্রামের মতো সাইটগুলোর পোস্ট ও হয় না।

পিন্টারেস্ট পিনগুলো একটি ফেসবুক পোস্ট এর চেয়ে প্রায় ১৬শ গুণ বেশি সময় স্থায়ী হয়ে থাকে। সাধারণত যারা পিন্টারেস্ট ব্যবহার করে থাকেন তারা অনেকে  জানেন যে, যেকোন ব্যবসার পণ্য যদি পিন্টারেস্টে প্রচার করা হয় সেটা ক্রেতারা সেটা কেনার আগ্রহ বেশি দেখিয়ে থাকেন।

তাহলে আপনি এতক্ষণে ঠিক ই বুঝতে পেরেছেন যে পিন্টারেস্ট ব্যবহার করলে আপনার কেমন লাভ হবে। তাছাড়াও ইন্টারেস্টে থেকে খুব সহজেই  সাবলীল ভাবে আপনার পণ্য বা আপনার ব্যবসার জন্য গ্রাহক পেয়ে যাবেন। আপনার ওয়েবসাইটটিকে যদি বেশি পরিমাণে রিস করতে হয় তাহলে সবথেকে জনপ্রিয় উপায় হলো পিন্টারেস্ট মার্কেটিং এর ওপর জোড় দেয়া।

পিন্টারেস্ট একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে?

Pinterest Marketing – এর জন্য আমাদের প্রয়োজন হয়ে থাকে একটি ইমেইল আইডি। যার মাধ্যমে আপনি পিন্টারেস্টে আপনার একাউন্টটি ওপেন করবেন। আপনি ইমেইল আইডির মাধ্যমে পিন্টারেস্টে একটি বিজনেস বা ব্যবসায়িক একাউন্ট খুলে খুব ভালোভাবেই আপনার ব্যবসার প্রসার করতে পারবেন।

আপনার অ্যাকাউন্ট তৈরি হয়ে গেলে আপনার সাইটের লোগো বা আপনার একাউন্টে কিছু ইনফরমেশন দিয়ে সাজাতে হবে। আপনার অ্যাকাউন্টটি কে আপনার প্রফেশনাল করে তুলতে হবে।

তারপর থেকে আপনি আপনার ব্যবসার বা পণ্যের প্রচার-প্রসার শুরু করতে পারবেন। আপনি চাইলে প্রতিদিন একটি বা একাধিক বোর্ড তৈরি করতে পারেন এবং সেগুলো কে পিন করে মানুষের কাছে শেয়ার করতে পারেন।

পিন্টারেস্ট মার্কেটিং করার আগে কিছু বিষয় অবশ্যই আপনার মাথায় রাখাতে হবে। এ সকল বিষয়গুলো মাথায় রেখে যদি আপনি পিন্টারেস্টে মার্কেটিং কতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসা বা পণ্যের প্রচার খুবই দ্রুত করা সম্ভব হবে।

তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক পিন্টারেস্ট মার্কেটিং করার আগে গুরুত্বপূর্ণ ৭ টি টিপসঃ

আরও পড়ুন:

আকর্ষণীয় পণ্যের প্রচার করতে হবেঃ

Pinterest ভিজুয়াল কে বলা হয়ে থাকে ভলিউম। পিন্টারেস্ট সম্পর্কে গবেষনা করে দেখা গিয়েছে পিন্টারেস্টে ৮৫ শতাংশ স্পিনার রাইটিং কনটেন্টের থেকে ভিজুয়াল কনটেন্টকে বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকে।

আমি এর মানে কিন্তু আপনাদের এটা বুঝাতে চাইনি যে- আপনি আরেকজনের কাছ থেকে কনটেন্ট নিবেন। আপনার পিন গুলোকে সুন্দর ডিজাইনে আনার জন্য অবশ্যই ইউনিক ডিজাইন করা উচিত।

আকর্ষণীয় ছবির ব্যবহারঃ বর্তমানে ৮৫% পিন্টারেস্ট ব্যবহারকারীরাই মোবাইলের মাধ্যমে পিন্টারেস্ট ব্যবহার করে থাকে। তাই এমন ভাবে ছবি তৈরি করতে হবে ছবির মোবাইলে ভালোভাবে দেখা যায়। ছবি তৈরি করার আগে দেখে নিতে হবে ছবির প্রতিটি দিক যেন স্পষ্ট দেখায় এবং আকর্শণীয় হয়।

বর্ণনামূলক কনটেন্টঃ আপনি যে বিষয় নিয়ে লিখুন না কেন প্রতিটি বিষয় নিয়েই আপনি খুব সুন্দর ভাবে  বর্ণনা করতে হবে। আপনি যদি ভিডিওর মাধ্যমে প্রচার করে থাকেন তাহলে আপনি ভিডিওতে বিভিন্ন ধরনের লেখা এবং কন্টেন্ট যুক্ত করে সেখানে লিংক দিতে পারেন।

আকর্ষণীয় হেডলাইনঃ আপনার বিষয়টিকে আকর্ষণীয় করার জন্য একটি সুন্দর হেডলাইন খুবই জরুরী। তাই এমন একটি হেডলাইন দিতে হবে যেটি আপনার কনটেন্ট কে শক্তিশালী করে তুলবে।

ব্র্যান্ডিং কে গুরুত্ব দেয়াঃ আপনার লোগোতে সব সময় ছবি হোক বা ভিডিও হোক যে কোন একটি বিষয় যোগ করতে হবে। এর মাধ্যমে আপনার ব্রান্ডকে সবাই সহজেই চিনবে।

ভালো ও আকর্ষণীয় গল্প বলাঃ আপনার ব্র্যান্ড বা সাইটটিকে মার্কেটিং করতে হলে আপনার দরকার হবে ভালো মানের কন্টেন্ট । আপনি যদি আপনার ব্র্যান্ড কে নিয়ে ভালো কন্টেন্ট লিখতে পারেন তাহলে মানুষের মনে আপনার ব্র্যান্ড একদম গেঁথে যাবে।

স্বয়ং পিন্টারেস্ট ব্যবহারকারীদের প্রতিদিন একবার করে পিন করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। একটি বোর্ড একবারে তৈরি করার চেয়ে এটি বেশি কার্যকরী। নিয়মিত ক্লিন করার মাধ্যমে আপনার কনটেন্ট এর তথ্য ভিজিটরদের কাছে খুব সহজেই পৌঁছাবে এবং তারা সেটা নিয়মিত দেখবে।

আপনি চাইলে আপনার পিনগুলো গ্রুপ করে রাখতে পারেন এবং যে সময় বেশি ভিজিটর অনলাইনে থাকবে সেই সময়টাকে আপনি নির্বাচন করতে পারেন।

আপনার ব্যবসা বা পণ্য সম্পকে আপনি টিউটোরিয়াল এর মাধ্যমে একটি সিরিজ তৈরি করতে পারেন।

কেননা আপনি যদি ভাল কোন বোর্ড তৈরি না করেন তাহলে পিনার রা আপনার পিন রেগুলার দেখবে না । এক্ষেত্রে আপনার শুধু পিন্টারেস্ট মার্কেটিং এ সময় দেওয়া ছাড়া কাজের কাজ আর কিছু হবে না।

প্রতিটি ক্যাটাগরি নিয়ে আপনাকে বোর্ড তৈরি করতে হবে । একসাথে প্রতিটি বিষয়ে একটি বোর্ডে যুক্ত করে বোর্ড তৈরি করবেন না। বর্তমানে পিন্টারেস্ট নতুন বোর্ডের পিন করা পদ্ধতি যোগ করা হয়েছে। যার মাধ্যমে আপনি গ্রুপ সদস্যদের সাথে শেয়ার করা পোস্টগুলোতে খুব সহজেই আপনি আপনার একটিভিটি সম্পর্কে জানাতে পারবেন।

আরও পড়ুন:

সাধারণত পিন্টারেস্ট হল একটি ভিজুয়াল সার্চ ইঞ্জিন। যেকোনো সার্চ ইঞ্জিনের মত আপনি যদি পিন গুলো পিন্টারেস্ট যোগ করেন তাহলে রাঙ্কিং করা সম্ভব। এ কারণে সাধারণত কিওয়ার্ড বা আপনার সাইট নাম এর সাথে মিলিয়ে ব্যবসায়ীক বোর্ড বা পিন এর নাম তৈরি করা।  সমস্ত জায়গায় কিওয়ার্ডগুলো ব্যবহার করা উচিত। হ্যাশট্যাগ গুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ এখানে পিনাররা তাদের আগ্রহের বিষয়গুলো প্রকাশ করে থাকে। তাই হ্যাস ট্যাগ ব্যবহার করতে পারেন।

তাই আপনি আপনার পোস্টগুলোতে কিওয়ার্ড ব্যবহার করতে পারেন। আপনার ওয়েবসাইট থেকে রাইটিং কনটেন্ট পিনিং থেকে শুরু করে নিয়মিত পর্ব/সিরিজ অনুযায়ী আপনি এখানে বোর্ড তৈরি করতে পারেন।

পিন্টারেস্ট মার্কেটিং করে আয় করার উপায়ঃ

পিন্টারেস্ট মার্কেটিং থেকে আয় করার অন্যতম উপায় হল বিজ্ঞাপন। পিন্টারেস্ট বিজ্ঞাপনদাতাদের কিওয়ার্ড, বয়স, আগ্রহ, আরো অন্যান্য বিষয়ের উপর বিজ্ঞাপনদাতাদের টার্গেট করে টার্গেট করতে হবে।

তাছাড়া ভিজিটরদের লক্ষ্য বস্তুর উপর মার্কেটারদের বিজ্ঞাপন করা প্রয়োজন। এবং ভিজিটরদের আগ্রহ তৈরি করতে হবে।

যেমন-

  • ভিজিটর দের জন্য নিউজলেটার এর ব্যবস্থা করা।
  • আপনার ওয়েবসাইটটি সাধারণত যারা ভিজিট করছে তাদের জন্য আকর্ষণীয় অফার এর ব্যবস্থা করা।
  • আপনার পিনগুলো যারা যুক্ত করেছে বা লাইক করে তাদের পর্যবেক্ষন করা।
  • বিষয়গুলো বেশি পছন্দ করে বা কোন বিষয়গুলো সব থেকে বেশি জনপ্রিয় সেদিকে লক্ষ্য রাখা।
  • পিনার্স এর জন্য শপিং এর লিংক তৈরি করতে হবে।

আপনার ওয়েবসাইটটি যদি কোন পণ্য রিলেটেড হয় তাহলে আপনি চাইলে পিন্টারেস্ট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের পণ্যগুলো বিক্রয় করতে পারেন।

পিন্টারেস্ট বর্তমানে শপ নামে একটি এবং তৈরি করেছে। যে কোন ওয়েব সাইটের এডমিন অথবা কোন ই-কমার্স ওয়েবসাইট এর পণ্য বিক্রয় করার জন্য পিন্টারেস্ট এর শপ অপশনটি ব্যবহার করতে পারে। এর দ্বারা একটি ওয়েবসাইট এর পণ্য বিক্রি বহুগুণ বেড়ে যাবে।

আপনার ওয়েবসাইটে ট্রাফিক বাড়াতে হলে অবশ্যই আপনাকে কিছু কাজ করতে হবে। আপনি কোন কাজ না করে আপনার ওয়েবসাইটের জন্যে ট্রাফিক নিতে পারবেন না । আপনি যদি এই কাজগুলো করতে পারেন তাহলে আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক বাড়াবে। ওয়েবসাইটের ট্রাফিক বাড়ানোর জন্য নিচে কিছু টিপস শেয়ার করলামঃ

  • প্রতিদিন অন্তত একটি করে পোস্ট পিন্টারেস্টে পিন করতে হবে। আপনি যদি এই ক্ষেত্রে প্রতিদিন দশটি করে পোস্ট পিন করতে পারেন তাহলে তো খুবই ভালো হয়।
  • পিন্টারেস্ট সাধারণত ভিজুয়াল কনটেন্ট বেশি চলে। আপনি এই ক্ষেত্রে একটি আকর্ষণীয় থাম্বনেইল ব্যবহার করে সেখানে আপনি লিঙ্ক যুক্ত করে সেটা পিন করে রাখতে পারেন।
  • তাছাড়া আপনি চাইলে আরেকটা কাজ করতে পারেন আপনি অন্যদের পিনে লাইক করতে পারেন, অন্যদের বোর্ড ফলো করতে পারেন। চেষ্টা করবেন সকল সময়ই নিজের আলাদা আলাদা বিষয়ের জন্য আলাদা আলাদা বোর্ড তৈরি করতে। আর আপনি যদি অন্যদের পিনে লাইক করেন তাহলে তারা এর মাধ্যমে আগ্রহ নিয়ে আপনার পিন টাও ঘুরে দেখবে।
  • পিন্টারেস্ট যদি আপনার একাউন্ট না থাকে তাহলে আজই আপনি আপনার একাউন্ট পিন্টারেস্টে করে ফেলুন। কেননা পিন্টারেস্টে যদি আপনার অ্যাকাউন্ট করা থাকে এর মাধ্যমে আপনি বিভিন্ন সুফল পাবেন।

আপনি একটি পিন্টারেস্ট একাউন্টের মাধ্যমে যেমন আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক আনতে পারবেন তেমনি আপনি আপনার পণ্য এবং ব্যবসার প্রসার করতে পারবেন খুব সহজে।

আপনি এর মাধ্যমে ইমেইল মার্কেটিং, সিপিএ মার্কেটিং যত ধরনের মার্কেটিং আছে এসএমএস মার্কেটিং সহ সব ধরনের মার্কেটিং এ খুব সহজে করতে পারবেন। সহজভাবে যদি বলা যায় পিন্টারেস্ট হচ্ছে মার্কেটিং করার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি প্লাটফর্ম।

আরও পড়ুন:

পিন্টারেস্ট একাউন্ট তৈরী করতে যা যা দরকার

  • প্রথমে আপনাকে একটি ব্যবসায়িক অ্যাকাউন্টের জন্য সাইন আপ করতে হবে ।
  • তারপর আপনাকে আপনার সাইটের বাপ ব্যবসার বিভাগ অনুযায়ী একটি সুন্দর টপিক নির্বাচন করে নিতে হবে।
  • প্রোফাইল পিক বা ভিডিও সেট করতে হব।
  • কিওয়ার্ড নির্ধারণ করতে হবে এবং আপনার প্রোফাইলে হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করতে হবে।
  • অন্যান্য সামাজিক যেসব ওয়েবসাইট গুলো রয়েছে সেসব ওয়েবসাইটে আপনার পিন্টারেস্ট একাউন্টটি শেয়ার করতে হবে ।
  • পিন্টারেস্ট অন্যসব ব্যবহারকারীদের প্রোফাইল নিয়মিত ফলো করতে হবে।

কিভাবে পিন্টারেস্ট এ ভালো ফলাফল পাবেনঃ

আপনি একটি বিষয় নজর রাখবেন, সকল সময় পিন্টারেস্টে সেটি হচ্ছে বর্তমানে কোন বোর্ডগুলো বেশি জনপ্রিয় এবং অল্প কিছু সময়ের মধ্যে কোন বোর্ড আরো বেশি জনপ্রিয় হতে পার। আপনি চাইলে সে সমস্ত টপিকগুলো নিয়ে আপনি সেম হেডলাইন দিয়ে একটি বোর্ড তৈরি করতে পারেন ।

অবশ্যই একই হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করতে হবে যাতে ভিজিটরদের কাছে আপনার সম্পূর্ণ তথ্য পৌঁছায়। আর এক্ষেত্রে তারা আপনাকে ফলো করবে এবং আপনি যদি কোন নতুন পণ্য পোস্ট করেন আপনার একাউন্টে তাহলে সবার আগে তাদের কাছে সেই পোষ্টটি পৌঁছাবে। তাই অবশ্যই নিজের প্রোফাইলে বা আপনার বোর্ডে ফলো বাটনটি অ্যাড করে নিন।

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক এর সাথে যুক্ত থাকার চেষ্টা করুন

Pinterest ব্যবহার করার সময় অন্যান্য সামাজিক প্লাটফর্মে একটিভ থাকুন। পারলে আপনার পিন্টারেস্ট একাউন্ট বর আপনার প্রোডাক্টের লিঙ্কগুলি  শেয়ার করুন। আপনাকে যদি পিন্টারেস্ট মার্কেটিং করে সফল হতে হয় তাহলে অবশ্যই আপনাকে ভিজিটরদের পছন্দটা খেয়াল রাখতে হবে। এবং নতুন নতুন ট্রেন্ড সম্পর্কে ধারনা রাখতে হবে। বর্তমানে কোন ট্রেড সবচেয়ে বেশি চলছে সেটি ধরে কাজ করতে হবে।

প্রতিনিয়ত প্রচার করতে হবে এবং আপনার একাউন্টে ভালো ভালো প্রোডাক্ট বা কনটেন্ট দিতে হবে। সাধারণত এর মাধ্যমে একজন ইউজার বারবার আপনার ওয়েবসাইটে আসবে কিছু নতুনত্ব খুঁজে পাওয়ার জন্য। একজন ভিজিটর একই জিনিস বারবার দেখতে পছন্দ করে না। তাই আপনাকে সবসময় চেষ্টা করতে হবে ক্রিয়েটিভ বা নতুন কিছু নিয়ে কাজ করা।

আপনি যে পোস্টটি পিন করতে চান সেই পোষ্টের যদি আপনার ওয়েবসাইটের লিংক না দেন। তাহলে কিন্তু কোনভাবেই আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর পাবেন না।

তাই আপনি যেটাকে পিন করতে চান সেটা ছবি হোক বা কোন ভিডিও হোক অবশ্যই এর ডিস্ক্রিপশন এ আপনার ওয়েবসাইটের লিংক দিতে হবে। তাহলে এর মাধ্যমে আপনি কাঙ্খিত ভিজিটর পেয়ে যাবেন এবং আপনার ওয়েবসাইটটি অনেক মানুষের কাছে পৌছাবে।

আপনার প্রিন্টারেস্ট অ্যাকাউন্টটি অবশ্যই বোর্ডের ক্যাটাগরি অনুযায়ী নির্ধারণ করতে হবে। আপনি যে টপিক নিয়ে কাজ করতে চান সে টপিকের ওপর আপনি বোর্ডের নাম দিবেন। হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করলে যে টপিক নিয়ে কাজ করছেন সেটা দিবেন।

এর মাধ্যমে সাধারণত পিন্টারেস্ট মার্কেটিং এর একটি সাফল্য ধরে রাখা যায়। এবং মার্কেটিং করাটাও অনেক সহজ হয়ে যায়। আর পিন্টারেস্ট মার্কেটিং করার ক্ষেত্রে ক্যাটাগরি বিষয়টা অনেক গুরুত্বপূর্ণ তাই অবশ্যই আপনাকে এই বিষয়টা সবার আগে মাথায় নিতে হবে।

পিন্টারেস্ট এর বিভিন্ন সদস্যদের দেখবেন অনেক ধরনের বোর্ড আছে যে বোর্ডগুলো অনেক বেশি জনপ্রিয়। আবার জনপ্রিয় কিছু টপিক এর বোর্ড রয়েছে যেখানে তাদের লিংক এবং কাজগুলো কন্ট্রিবিউট করে থাকে। আপনি চাইলে তাদের ভোট গুলোতে কন্ট্রিবিউট করতে পারেন এতে করে আপনার সাইটের মার্কেটিং হয়ে যাবে।

সাধারণত ফেসবুক টুইটার এবং ইনস্টাগ্রামে আপনার পোস্টে কেউ কমেন্ট করলে সেই প্রশ্নের জবাব দেন তেমনি আপনি পিন্টারেস্ট কেউ যদি আপনার পোস্টে কমেন্ট করে সেই কমেন্টগুলোতে আপনাকে নিয়মিত উত্তর দিতে হবে। তাদের মন্তব্যের জবাব দিয়ে আপনি তাদের সাথে সহজেই যুক্ত থাকতে পারেন।

আপনি চাইলে সরাসরি তাদের নাম যোগ করে মন্তব্য করতে পারেন। এতে করে সাধারণত ফলোয়ার রা আপনার প্রোডাক্ট এর আরো কাছে চলে আসবে এবং আপনার সাথে আরো অনেক কিছু শেয়ার করবে। আপনার পোস্টগুলো নিয়মিত দেখা শুরু করবে। আর তারা নিয়মিত আপনার অ্যাকাউন্টটি দেখতে থাকবে।

বর্তমানে মার্কেটিং করার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি মাধ্যম হলো Pinterest। পিন্টারেস্ট এর মাধ্যমে মার্কেটিং করে অনেক ব্যবসায়ী সফল হয়েছেন। তাছাড়া পিন্টারেস্ট এ কয়েক মিলিয়ন ইউজার। যেখান থেকে আপনি সহজেই আপনার ব্যবসার জন্য কাঙ্খিত কাস্টমার/ভিজিটর পেয়ে যাবেন।

তাছাড়া পিন্টারেস্টে মার্কেটিং করা অনেক সহজ বলে অনেক ব্যবসায়ী পিন্টারেস্ট কে বেছে নিয়েছেন মার্কেটিং করার জন্য। সময়ের সাথে সাথে পিন্টারেস্ট এর জনপ্রিয়তা আরো বেড়ে চলেছে। আর এই কারনেই ব্যবসায়ীদের অন্যতম একটি পছন্দের মার্কেটপ্লেস হল পিন্টারেস্ট।

পিন্টারেস্ট ওয়েবসাইটে আপনি আপনার পন্য বা প্রোডাক্ট গুলো খুব সহজেই প্রেম করতে পারবেন এবং এর মাধ্যমে আপনার কাস্টমাররা আপনার প্রোডাক্ট গুলো খুব সহজেই কিনতে পারবে। তাছাড়া পিন্টারেস্ট এর মাধ্যমে আপনি চাইলে আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক বৃদ্ধি করতে পারবেন সেখান থেকেও এড এর মাধ্যমে আয় করা সম্ভব।

এছাড়াও পিন্টারেস্ট মার্কেটিং আরো অনেক কারণে জনপ্রিয় এবং বর্তমানে অনলাইনে ব্যবসায়ী বা ডিজিটাল মার্কেটারদের ব্যপক পছন্দ। যার কারণে হাজার হাজার অনলাইন ব্যবসায়ী বেছে নিচ্ছে তাদের অনলাইনে ব্যবসা প্রচার করার জন্য এই পিন্টারেস্টকে। তাই বলা যেতেই পারে ব্যবসা করার জন্য অনলাইনে পিন্টারেস্ট মার্কেটিং এর গুরুত্ব অপরিসিম।

সর্বপরি আমাদের পরামর্শঃ

পিন্টারেস্ট মার্কেটিং একটি যুগোপযোগী ডিজিটাল মার্কেটিং পদ্ধতি। এদিকে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর একটি অংশ বলা যেতে পারে। আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চান সে ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই পিন্টারেস্ট মার্কেটিং এর দিকে নজর দিতে হবে। কেননা পিন্টারেস্ট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে যে কোন ওয়েবসাইটে ভিজিটর এবং কাস্টমার জেনারেট করা যায় খুব সহজেই।

ইতিমধ্যে আপনারা আমার এই আর্টিকেলের মাধ্যমে পিন্টারেস্ট মার্কেটিং সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা পেয়ে গিয়েছেন। এছাড়াও যদি আপনাদের পিন্টারেস্ট মার্কেটিং সম্পর্কে কোন তথ্য জানতে চান তাহলে আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন।

আর যদি আপনার কোন মতামত বা পরামর্শ থাকে তাহলেও আপনি আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করতে পারেন। আমাদের এই লেখাটি আপনার বন্ধু বান্ধবদের সাথে শেয়ার করে তাদের জানার সুযোগ করে দিন। ধন্যবাদ

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap