জব না করেই অনলাইন ইনকাম করার ১৫টি সহজ উপায়

কোনরকম জব ছাড়াও ইনকাম করার অনেক উপায় আছে।  অনলাইনে অসংখ্য সাইট আছে যেখান থেকে লোকজন জরিপ পূরণ করে, অথবা মার্কেটিং রিসার্চ করে আয় করা যায় । আরো অনেক উপায় আছে, যেগুলো ব্যবহার করে অনলাইন থেকে আর্নিং করা যায়। যদি এসব উপায় সম্বন্ধে ভালো বিস্তারিত জ্ঞান নিতে চান তাহলে সম্পূর্ণ ব্লগটি পড়বেন ।

আজকে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করবো জব না করেই টাকা ইনকাম করার টি  উপায়

কাজ না করেই অনলাইনে আয়ের সহজ উপায়
কাজ না করেই অনলাইনে আয়ের সহজ উপায়

জব না করে ইনকাম করার উপায় সমূহ

1. ওয়েবসাইট পরীক্ষা করে আয় করুন

জব না করে টাকা আয় করার আরেকটা অপশন হলো ওয়েবসাইট টেস্ট করা বা পরীক্ষা করা । দুনিয়ায় হাজার হাজার ওয়েবসাইট আছে । অন্যান্য দেশের মতো আপনাকেও ওয়েবসাইট টেস্টিং করতে হবে। একদম কঠিন কোন ব্যাপার না। বিভিন্ন রিভিউ লিখে, সাইটের সম্পর্কে ক্লায়েন্টকে ভালো রিভিউ দিয়ে আপনি ওয়েবসাইট টেস্ট করতে পারেন।  এভাবে আয় করতে পারবেন।

যেকোনো ওয়েবসাইটের মালিক বিভিন্ন ভিজিটর বা ওয়েবসাইটে ভিজিটর বাড়াতে  নিজের ওয়েবসাইটকে বিভিন্ন সাইটে সাবমিট করে টেস্ট করবার জন্য। সেখানে যত ইউজার আছে তারা যদি ওয়েবসাইটটি সম্বন্ধে ভালো টেস্ট করে রেজাল্ট দেখায়, তাহলে এর পরিবর্তে তাকে ইনকাম দেয়া হয়।

ওয়েবসাইট যারা পরীক্ষা করে, তার একটি ওয়েবসাইটকে ঠিকমতো ব্রাউজ করে। সাইটের ডিজাইনগুলো দেখে, কতটা মোবাইল ফ্রেন্ডলি অথবা কতটা ইউজার ফ্রেন্ডলি সেগুলো একে একে বের করে। এবং এ সম্বন্ধে একটা রিপোর্ট দেয়। কোন একটি ওয়েবসাইট টেস্ট করে অনায়াসে 10 ডলার আয় করতে পারেন। এই শুধুমাত্র কিছু সময় নিবে মাত্র।.

প্রতিদিনের পেমেন্ট আপনারা ক্রেডিট কার্ড ,ডেবিট কার্ড অথবা পেপালের মাধ্যমে নিতে পাররেন। এখন পেপাল কিভাবে তৈরি করবেন সে সম্বন্ধে কোন জ্ঞান না থাকলে আমি অলরেডি ব্লগ সাবমিট করেছি। কিভাবে বিজনেস একাউন্ট খুলবেন? লাইভ প্রুফ যেখানে আমি নিজের একাউন্ট খুলেছি।  পড়তে এখানে ক্লিক করুন

আরও পড়ুন:

2। জরিপ পূরণ করুনঃ

অনেক আগেই জরিপ পূরণ করার কথাটি বলেছি। এর কারণ আমার কাছে মনে হয়েছে জরিপ পূরণ করাই সবচেয়ে সাশ্রয়ী।  উন্নত বিশ্বের আইপি অ্যাড্রেস সংগ্রহ করে সেখানে জরিপ পূরণ করে দিনে 20 থেকে 30 ডলার আয় করা যায়।

শুধুমাত্র 15 থেকে 20 মিনিট সময় ব্যয় করতে হবে। আপনি যদি জব ছাড়া আয় করতে চান্‌, তাহলে আপনাকে কিছু সময় তো জরিপ পূরণের জন্য ব্যয় করতেই হয়। আবার অনেক জনপ্রিয় অনলাইন জরিপ সাইট আছে, Earnably, Survey Junkie, National Consumer Panel, Swagbucks Surveys, Pinecone

3. ভিডিও গেম খেলে ইনকাম করুন

আপনাকে কেউ যদি বলে যে ভিডিও গেম খেলে অথবা ভিডিও দেখে আয় করা যায়, তাহলে হয়তো আপনার কাছে  স্বপ্ন মনে হতে পারে। অথবা স্ক্যামিং মনে হতে পারে। কিন্তু এটা আসলে সম্ভব। এমন কিছু পিটিসি সাইট বলতে পারেন ,যেগুলো আছে। যেখানে গেমস খেলে অথবা ভিডিও গেম, ভিডিও দেখেও আয় করা যায়। এবং বিনামূল্যে আয় করা সম্ভব।

তার মধ্যে আছে InboxDollars,  Cascrate সহ নানা ধরনের পিটিসি সাইট। যেখানে আপনি কোন নির্দিষ্ট ভিডিও দেখে বা গেম খেলে আয় করতে পারবেন। তারা আপনার নিজস্ব ভিডিও গেম খেলার অভ্যাসটি মনিটর করতে পারে। আপনি কতটুক গেম খেলেন সেই গেম খেলার উপর নির্ভর আপনাকে ইনকাম দিবে।

4. অ্যাপ অথবা ওয়েবসাইট রেফার করে আয়

এ ধারণাটি অনেক পুরনো। কনসেপ্টটি খুব পুরনো। রেফার করে আয় অনেক আগে থেকে শুরু হয়েছে। তারপরও কিছু কিছু অ্যাপ্লিকেশন বা ওয়েবসাইটের বিশেষ ফিচার আছে, যেগুলো রেফার করার সুবিধা দিবে। অন্যান্য ওয়েবসাইট থেকে অনেক বেশী। সে সম্বন্ধে একটু ধারনা নেয়া যাক।

ধরুন আপনি অনেক অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করেন অনলাইন আর্নিং এর জন্য। অনেকে অ্যাপ্লিকেশন একাউন্ট খুলেছেন,  একাউন্টের প্রোমো কোড গুলো জমিয়ে রাখতে পারেন। অথবা কোন একটি ওয়েবসাইটে ও ব্লগের মাধ্যমে প্রমোকোড প্রকাশ করেন, তাহলে সেখান থেকে আপনারা ইনকাম করতে পারেন। কারণ ইন্টারনেট এমন অনেক ইউজার আছে, যারা কোন একটি অ্যাপ্লিকেশনের প্রমো কোড্‌, রেফার কোড খুঁজে। কারণ হচ্ছে রেফার কোড ব্যবহার করলে তারও কিছু ডিসকাউন্ট পায় অথবা সেও কিছু আর্নিং পায়।

5. রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগঃ

হয়তো কথাটি আপনাদের কাছে পাগলামো লাগতে পারে। কারণ রিয়েল এস্টেটে তো ধনীরাই বিনিয়োগ করে। তবে এটা সত্যি যে, রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগ অনেক লাভজনক। কোনো জব ছাড়াই আয় করার সিদ্ধান্ত নিলে বিনিয়োগের খাতে একটু-আধটু অর্থ ব্যয় করে দেখতে পারেন।

তাহলে আপনি কি রিয়েল এস্টেটে কোনো রকম রিস্ক এবং কম পয়সা নিয়ে ইনভেস্ট করবার নয় প্রস্তুত?

তার আগে আসল কথাই বলা হলো না। রিয়েল এস্টেট এমেরিকার বিনিয়োগ করার সংস্থা। আর যদি বিনিয়োগের মাধ্যমে ইনকাম  করতে চান, তাহলে আমি এদেশীয় বিনিয়োগ থেকে বিদেশে অল্প টাকায় বিনিয়োগ করার জন্য বলবো। সেখানে একই সাথে ডলার-টাকা মানে কারেন্সীর ব্যবসাও করতে পারেন।

Fundrise Starter Portfolio নামক আরো একটি এমেরিকান ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানি আছে। ব্যাংক থেকে ডলার এক্সচেঞ্জ করে তা নিয়ে বুদ্ধিমত্তা লাগিয়ে ভালো ট্রেডিং করলেই অবশ্যই সফল হবেন। এখানে মিনিমাম ৫০০ ডলার নিয়ে বিনিয়োগ শুরু করা লাগে।

6. নিজের মতামত শেয়ার করে আয় করুন

আজকের দিনে সোশ্যাল মিডিয়া সাইট গুলো আপনাকে মতামত শেয়ার করার সুযোগ করে দেয়। কিন্তু এমন কিছু প্ল্যাটফর্ম আছে, যেখানে আপনাকে আপনার মতামত ব্যক্ত করার জন্য বলা হয়। যেখনে কোনো জব না করে সাদামাটা কাজ করে ইনকাম করা যায়। মার্কেট রিসার্চ কিংবা সার্ভে পুলে অংশ নিয়ে হাজার হাজার টাকাও আয় করা যায়।

এই সকল প্ল্যাটফর্ম মার্কেটিং রিসার্চের বিনিময়ে একাউন্টে পয়েন্ট দেয়, যেগুলোকে টাকায় কনভার্ট করা যায়। পরবর্তীতে আপনারা চাইলে গুগল প্লে গিফট কার্ড নিয়ে টাকা তুলতে পারেন।

যদি আপনি আরো ইনকাম করতে চান তাহলে এসব সাইটে রেজিস্ট্রার করে রাখুন। অথবা বন্ধুদের রেফার করার মাধ্যমে অতিরিক্ত আয় করুন। এর মধ্যে কতগুলো সাইট হলো

MyPoints,

VIP Voice,

OpinionOutpost, etc.

আরও পড়ুন:

7. নিজের ফটোগ্রাফ বিক্রি করুনঃ

যদি আপনারও শখ থাকে ভালো ফটোগ্রাফিং এর এবং সবকিছুরই স্ন্যাও তোলার জন্য সদা প্রস্তুত থাকেন, তাহলে এসব ফটোগ্রাফ বিক্রি করেও ইনকাম করা যায়।

ফটো আপলোড করে কোনো স্টক কোম্পানীর কছে বিক্রি করলেই, প্রতিটি ফটোর জন্য পাবেন মিনিমাম ১০ ডলার। এখানে রাতারাতি নিজের তোলা ছবি বিক্রি করে বড়লোক হওয়া যায় না। কিন্তু প্রতিদিন নির্দিষ্ট ইনকাম করতে পারবেন।

মাঝে মধ্যেই কোনো কোনো সাইট, যেমনঃ Shutterstock, Photoshelter, Fotolia, DreamsTime, Foam,  এসব সার্ভিসিং দেয়। কিভাবে ফটো বিক্রি করে আয় করবেন, তা নিয়ে পূর্বের ব্লগ “ইনস্ট্রাগ্রামে মার্কেটিং করুন” ডিটেইলস বলেছিলাম। তাই আর বলতে চাছি না।

8. Amazon Fulfilment এ আপনার যাবতীয় সামগ্রী বিক্রি করুন

যদি আপনার কাছে খেলনা সামগ্রীর পুরো একটি স্টক থাকে, তাহলে তা এমাজন ফুলফিল্মেন্ট প্রোগ্রামে সেল করে দিতে পারেন। এখানে আপনাকে কোনো রকম সমস্যা ছাড়াই বাড়তি ইনকাম মিলবে।

অথবা যেকোনো সামগ্রী এমাজন থেকে ক্যাটাগরী সিলেক্ট করে সেখানে সেল করতে পারেন। যেকোনো পুরনো কালেকশন যদি আকর্ষনীয় হয়, তাহলেও সেটি এমাজনে সেল করতে পারেন।

9. কিছু ব্যাতিক্রমি করুন

মনে করুন, আপনি জরিপ পূরণ কিংবা ভিডিও দেখে আয় করার প্রতই একটুও আগ্রহী নন।  তারপরো কোনো জব বা চাকরী না করে আয় করতে চাচ্ছেন। তাহলে আছে TaskRabbit, Zaarly, Field Agent, Gigwalk Android এর মতো ভালো ভালো সাইট।

এই এপ গুলো থেকে গিগ পোস্ট করা হয়ে থাকে। এছাড়া এখানে লোকজন ছোটো ছোটো টাস্ক পূরণ করার জন্য লোকজন খুজে। এসব টাস্ক ফিল আপ করলেই সাথে সাথে পেমেন্ট নিতে পারবেন।

এখানে অনেক ধরনের টাস্ক থাকতে পারে, যেগুলোতে অনলাইনে একটি সহজ কাজ করা যেতে পারে। সেখান থেকে ভালো রকমের প্রফিট ইনকাম করতে পারেন।এর জন্য আপনাকে এখানে সাইন আপ করে নিতে হবে। তারপর যেকোনো গিগস সিলেক্ট করে তা পূরণ করে নিতে হবে। তারপরে সেখান থেকে অর্থোপার্জন করতে পারবেন।

10. পুরনো কাপড় বিক্রি করুনঃ

Poshmark, ThredUp, eBay, Tradesy, এসব সাইটে নিজের পুরনো কাপড় বিক্রি করতে পারেন । অথবা বাংলাদেশেও এমন অনেক দোকান আছে, বা গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠান আছে যেখানে পুরনো কাপড় বিক্রি হয়। সেগুলো বিক্রি করে অতিরিক্ত অর্থোপার্জন করে নিতে পারেন।

11. ইউটিউবে ভিডিও আপলোডিং এর মাধ্যমে আয়

যদি কাউকে দ্রুত ইম্প্রেস করে নিতে পারেন, অথবা ভালো গান গাইতে জানেন তাহলে সেটা ইউটিউবে আপলোড দিয়ে দেখুন। মন-পছন্দের হলে অবশ্যই সেটা আপনার টাকা ইনকামের সহজ রাস্তা হবে।

এখানে কাজ করা খুবই সহজ। আপনাকে শুধুমাত্র নতুন নতুন আইডিয়া খুজে সেগুলো ইউটিউব ও অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করতে হবে। তারপর , আপনার ভিডিওতে ভিও এর উপর নির্ভর করে ভিডিওতে এডভার্টাইজিং করার সুবিধা পাবেন। তারপর সেখান থেকে যেরকম আয় হয় আর কি। ভালো ভিও, সাবস্ক্রিপশন এবং শেয়ার এর উপর ভিত্তি করে আপনি ইউটিউব থেকে ডিরেক্টলি ইনকাম করতে পারেবেন।

আরও পড়ুন:

12. এপ ডাউনলো করে ইনকাম করুনঃ

বিভিন্ন এপ, যেগুলো মোবাইল থেকে ডাটা কালেক্ট করে। পরবর্তীতে তা থার্ড পার্টি এপ বা ওয়েবসাইটের কাছে বিক্রি করে প্রফিট লাভ করে। কিছু সংখ্যক কোম্পানী স্মার্ট ফোনে এপ্লিকেশন ডাউনলোডিং এর জন্য পেমেন্ট করে থাকে।

এর পরবর্তীতে তারা আপনার স্মার্টফোন থেকে বিভিন্ন তথ্য কালেক্ট করে। যেমনঃ আপনি কখন ওয়েব ব্রাউজ করেন? এরকম । Nielsen Panel, MobileXpressions এসব এপ্লিকেশন ডাউনলোড করে অর্থোপার্জন করতে পারেন।

13. আপনার ফোনকে মনিটাইজ করতে দিন

এমন কখনোই হয় না যে, আমাদের পিতা-মাতা বা শিক্ষকেরা সেল ফোন অতিরিক্ত ব্যবহারের জন্য নিন্দা করে না। কিন্তু আপনি জানলে অবাক হবেন যে, আপনার ফোন মনিটাইজেশনে রেখেও বার্ষিক ৫০০০ টাকার মতো আয় করতে পারবেন। সংখ্যাটা প্রচুর কম। কিন্তু এতে করেও আমরা ফোন চালিয়েই অনলাইনে আয় করতে পারি।

Slidejoy বিভিন্ন প্রোডাক্ট বা এপের বিজ্ঞাপনের জন্য আপনার ফোন মনিটাইজ করবে। যখন আপনি ফোনটিতে বামদিকে পরপর ২ বার সুইপ করবেন্, সাথে সাথে ইন্টারনেট কানেকশন অন থাকলেই মোবাইল স্ক্রীনে বিজ্ঞাপন দেখানো শুরু হবে। খুব যে বেশি এবড়ে থেবড়ো বিজ্ঞাপন থাকে তা কিন্তু না। আবার আপনি যখন ফোনটিতে ডান দিকে দুই বার সুইপ করবেন, সাথে সাথে বিজ্ঞাপন আসা বন্ধ হয়ে যাবে।

14. ফোরামে পোস্ট করে আয়

বর্তমান অনলাইন ফোরাম গুলো সাইটের রেপুটেশন ধরে রাখার জন্য লেখক ভাড়াকরে। সেখানে ফোরামে পোস্ট লিখে আয় করা যায়। PaidForumPosting.co. হলো এমন একটি প্ল্যাটফর্ম, যেখানে আপনি চাইলেই লেখালেখি করে ভালো আয় করতে পারবেন।

15. ক্যাশের জ্ন্য অফার পূরণ করুন

বিভিন্ন স্পন্সর করা অফার আছে, যেখান থেকে যেকোনো অফার পূরণ করেই ভালো মাফিক আয় করা যায় । স্পন্সর করা অফার গুলো আপনারা বিভিন্ন পিটিসি সাইট থেকে জেনে নিতে পারেন। যেমনঃ BuxInside, OfferNation,Scarletclix

আজকের পর্বে এ কয়টি উপায় আলোভচনা করা হলো। যেখানে আমি দেখালাম, অনলাইনে আয় করার অনেক উপায় আছে। যেগুলো থেকে ভালো রকমের প্রফিট  সুবিধা নিতে পারবেন।পরবর্তী পর্বে আরো উপায় সম্বন্ধে আলোচনা করবো। যেখানে এভাবে জব না করেই আয় করার সহজ উপায় নিয়ে আলোচনা করবো। ব্লগের কোনো তথ্য মিথ্যে বা স্ক্যাম মনে হলে, কমেন্ট করে বলবেন। এতে আমরা এ ব্যাপারে আরো সচেতন হবো।

আরও পড়ুন

1 thought on “জব না করেই অনলাইন ইনকাম করার ১৫টি সহজ উপায়”

  1. খুব সুন্দর উপস্থাপনা আপনার.. ধন্যবাদ আমাদের সাথে সুন্দর একটি বিষয় শেয়ার করার জন্য। ঘরে বসে অনলাইনে টাকা ইনকাম করুন।

    Reply

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap