বিটকয়েন মাইনিং কি ? কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায়

বিটকয়েন মাইনিং কি : বর্তমান সময়ে অনেকের মনে প্রশ্ন হয় যে, বিটকয়েন মাইনিং কি, কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায় এছাড়া বিটকয়েন মাইনিং করার জন্য কি কি প্রয়োজন হয়।

আপনি যদি বিটকয়েন মাইনিং সম্পর্কে সকল বিষয় সম্পর্কে জানতে চান। তবে আপনি একদম সঠিক ওয়েবসাইটে প্রবেশ করেছেন। কারণ এই পোস্টে আপনাকে জানাব বিটকয়েন ও বিটকয়েন মাইনিং সম্পর্কিত যাবতীয় বিষয়কে স্পষ্ট করে বলার চেষ্টা করব।

তাই আপনি যদি সঠিক বিষয় জানতে চান। তাহলে নিচে দেওয়া তথ্য গুলো সঠিক ভাবে অনুসরণ করুন।

বিটকয়েন মাইনিং কি ? কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায়
বিটকয়েন মাইনিং কি ? কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায়

বিটকয়েন কি?  (What is Bitcoin)

বিটকয়েন হচ্ছে এক প্রকার ডিজিটাল ক্রিপ্টোকারেন্সি। যা বর্তমান সময়ে বিশ্বের প্রতিটা দেশের নিজস্ব কারেনন্সি আছে। যেমন- বাংলাদেশের টাকার মাধ্যমে লেনদেন করা হয়। তবে যখন আপনি ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহার করবেন। সেই সময় আপনার কোন প্রকার হ্যান্ড ক্যাশ দরকার হবে না।

আপনি অনলাইন একাউন্ট এর মাধ্যমে এই সকল কারেন্সি গুলোকে জমা করে রাখতে পারবেন। আপনি যেভাবে টাকার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরণের পণ্য ক্রয় করেন ঠিক সেরকম ভাবে আপনার কাছে যদি ক্রিপ্টোকারেন্সি থাকে।

তবে আপনি ক্রিপ্টোকারেন্সি একাউন্ট এর মাধ্যমৈ আপনার বিটকয়েনের সাহায্যে অনলাইনে যে, কোন প্রকার পণ্য ক্রয় করতে পারবেন। যা মূলত এই সকল ডিজিটাল কারেন্সি যা একেবারে অদৃশ্য। মূলত এই সকল ডিজিটাল কারেন্সিকে বলা হয় বিটকয়েন।

আরো দেখুনঃ

বিটকয়েন মাইনিং কি? (What is Bitcoin Mining)

এখন আপনাকে সবার আগে জানতে হবে বিটকয়েন মাইনিং কি? উক্ত বিষয়টি আসলে সম্পূর্ণ ভিন্ন বিষয়। আপনি যদি বিটকয়েন মাইনিং করতে আগ্রহী থাকেন। তবে আপনার আগে থেকে বিশেষ ভাবে এই বিটকয়েন মাইনিং সম্পর্কিত ধারণা থাকতে হবে।

আরো সহজ করে বলতে গেলে মনে করুন আমাদের ব্যবহার করা টাকার পরিমাণ বাড়িয়ে নিতে পারব তেমন ভাবে আপনি আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি একাউন্ট থাকা বিটকয়েনের পরিমাণ বাড়িয়ে নিতে পারবেন।

তবে আপনি যখন উক্ত বিটকয়েনের পরিমাণ বাড়িয়ে নেওয়ার জন্য মাইনিং করবেন সেই সময় বিটকয়েন আয় করার পদ্ধতিকে বলা হয় বিটকয়েন মাইনিং।

কিন্তু আপনি যখন আপনার বিটকয়েন ইনকাম করার করার জন্য মাইনিং করবেন তখন আপনি আরো অনেক কিছু মাইনিং করার পদ্ধতি সম্পর্কে জেনে নিতে পারবেন।

তাই সবার আগে আপনাকে এই বিষয়ে জেনে নিতে হবে। বিটকয়েন মাইনিং করার জন্য আপনার নিকট অনেক ভালো একটি কম্পিউটার থাকতে হবে।

কারণ মাইনিং করার সময় একটি ডিভাইসে অনেক বড় বড় সফটওয়্যার ইনস্টল করার দরকার হয়।

বিটকয়েন মাইনিং এর পদ্ধতি কি?

উপরিউক্ত আলোচনা থেকে বিকটয়েন কি এবং বিটকয়েন কাকে বলে এই বিষয়ে জানতে পারলেন। এখন আপনাকে জানাব বিটকয়েন মাইনিং এর পদ্ধতি কি।

বিটকয়েন মাইনিং পদ্ধতি গুলো কি কি একজন ব্যক্তির অবশ্যই বিটকয়েন মাইনিং করার আগে জেনে নিতে হবে। আপনি যদি বিটকয়েন মাইনিং করতে চান। তবে শুরুতে আপনার নিকট একটি ভালো কম্পিউটার থাকতে হবে। তারপরে আপনাকে অনেক সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে। যে কম্পিউটার সফটওয়্যার গুলো দিযে আপনি বিটকয়েন মাইনিং করতে পারবেন।

এই সকল বিটকয়েন মাইনিং করার সফটওয়্যার গুলো আপনি গুগলে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন। আপনি যখন আপনার কম্পিউটার ডিভাইস এ বিটকয়েন মাইনিং সফটওয়্যার ইনস্টল করবেন। সেই সময় আপনি উক্ত সফটওয়্যার গুলোর মাধ্যমে বিটকয়েন ইনকাম করতে পারবেন।

কিন্তু এখন জানার বিষয় হচ্ছে শুধু সফটওয়্যার ইনস্টল করলেই কিন্তু বিটকয়েন ইনকাম করা সম্ভব হবে না। তো চলুন এই বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

যারা বিটকয়েন মাইনিং বলতে শুধু মাত্র কিছু সফটওয়্যার কম্পিউটারে ইনস্টল করলেই বিটকয়েন বাড়বে এমনটা কিন্তু না।কারণ বিটকয়েন আয় করার জন্যে আপনাকে অনেক কিছু কাজ করতে হবে।

আপনি যখন সেই কাজ গুলো সঠিক ভাবে করতে পারবেন। সেই সময় আপনি কম্পিউটার ডিভাইস থেকে বিটকয়েন মাইনিং করে বিটকয়েন আয় করতে পারবেন।

আরো দেখুনঃ

এছাড়া আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি একাউন্ট থেকে যত ইচ্ছা তত লেনদেন করতে পারবেন। আপনার সেই লেনদেন বিটকয়েন মাইনিং এর জন্য অনেক বেশি সুবিধা হবে। কারণ আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি একাউন্ট এ বিটকয়েনের পরিমাণ তখন বেশি হবে যখন আপনার একাউন্ট দিয়ে বিটকয়েন ট্রানজেকশন করবেন।

আপনি শুধু মাত্র ট্রানজেকশন করার বিনিময়ে বিটকয়েন আয় করতে পারবেন। আপনি যদি উক্ত বিষয়টি অনুসরণ করেন তাহলে বিটকয়েন মাইনিং করার পদ্ধতি বুঝতে পারছেন।

বিটকয়েন মাইনিং কি বাংলাদেশে বৈধ ?

এখন অনেকের প্রশ্ন হতে পারে যে বাংলাদেশে কি বিটকয়েন মাইনিং বৈধ। কারণ বিটকয়েন মাইনিং করার পূর্বে অবশ্যই উক্ত বিষয়টি পরিষ্কার ধারণা রাখতে হবে।

আপনি যদি বিটকয়েন মাইনিং করতে আগ্রহী থাকেন। তাহলে আপনাকে প্রথমে একটি কথা বলে রাখি। আপনি বাংলাদেশের ক্ষেত্রে বিটকয়েনের লেনদেন করতে পারবেন না। কারণ এটি বাংলঅদেশে অবৈধ।

তবে আপনি লক্ষ্য করলে দেখতে পারবেন যে, বাংলাদেশ থেকে বিটকয়েন মাইনিং ও বিটকয়েন জাতীয় লেনদেন অবৈধ্য হলেও এমন অনেক লোক আছে যারা মূলত দীর্ঘদিন যাবত বিটকয়েন মাইনং করে আসছে। এখন আপনি যদি রিস্ক নিতে চান। তাহলে আপনিও আপনার কম্পিউটার দিয়ে বিটকয়েন মাইনিং করতে পারবেন।

কিন্তু কেউ যদি আমাদের আর্টিকেল দেখে বিটকয়েন মাইনিং করতে চান। তাহলে তাদের উদ্দেশ্যে সরাসরি মেসেজ দেব আমাদের বাংলাদেশে যে সকল অবৈধ সেগুলো ব্যবহার করা উচিত না। কারণ বিটকয়েন কে কোন না কোন সমস্যার জন্য অবৈধ বলে ঘোষণা করেছে।

এখন আপনি যদি অবৈধ কাজ করেন তাহলে এটি একান্ত ভাবে নিজ দায়িত্বে এই ধরণের বিটকয়েন মাইনিং করবেন।

বিটকয়েন মাইনিং এর জন্য কি কি লাগবে?

আমরা শুরু থেকে বিটকয়েন সম্পর্কে অনেক কিছু বলেছি আপনি যদি বিটকয়েন মাইনিং করতে চান। তাহলে অবশ্যই আপনার নিকট একটি ভালো কম্পিউটার থাকা আবশ্যক। মোট কথা বিটকয়েন মাইনিং করার জন্য অনেক ক্ষমতা সম্পন্ন সফটওয়্যার ব্যবহার করার দরকার হয়।

উক্ত সফটওয়্যার গুলো সঠিক ভাবে পরিচালনা করার জন্য আপনার কাছে লক্ষ টাকার উপরে একটি কম্পিউটার থাকতে হবে। এখন হয়তো অনেকের প্রশ্ন হতে পারে যে, এত টাকা দিয়ে কম্পিউটার এর মধ্যে কোন কোন বিষয় গুলোকে আরও উন্নত করতে হবে।

আপনি যদি একান্ত ভাবে বিটকয়েন মাইনিং করার জন্য কম্পিউটার ক্রয় করার চিন্তা করে থাকেন। তবে আপনাকে নিম্নোক্ত বিষয় গুলো খেয়াল করতে হবে যেমন-

একটি কম্পিউটরে আপনার উক্ত যন্ত্রাংশ গুলো অনেক ভালো কোয়ালিটির হতে হবে। তাহলেই আপনি বিটকয়েন মাইনিং করে ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

বিটকয়েন কিভাবে তৈরি হয়?

আপনি যখন আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি একাউন্ট থেকে বিটকয়েন লেনদেন করবেন তখন এই সকল ট্রানসলেশন গুলো বিটকয়েন মাইনিং এর সাহায্য ভেরিফাই করা হয়ে থাকে।

তারপলে ভার্চুয়াল একটি বিটকয়েন ব্লক তৈরি হয় এবং এই ভাবে একটি ব্লক এর সাথে অন্য একটি ব্লক চেনের মতো করে সংযুক্ত থাকে। যাকে বল হয় বিটকয়েন ব্লক চেইন। এই বিটকয়েন মাইনিং এর মাধ্যমেই পুনরায় বিটকয়েন তৈরি হয়।

বিকটয়েন এর নির্দিষ্ট কোন দাম দেওয়া থাকে না। মানে এটি সর্বদা পরিবর্তনশী। কারণ বর্তমান সময়ে আপনি বিকটয়েন এর যে দাম দেখতে পারবেন।

আজ থেকে এক সপ্তাহ পরে এই বিটকয়েন এর দাম এর ক্ষেত্রে অনেক পরিবর্তন লক্ষ্য করতে পারবেন। যেমন এক বিটকয়েন বাংলাদেশে টাকায় 1,930,918 টাকা।

আরও পড়ুনঃ

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা আজ আমাদের এই পোস্টে আপনাকে জানানো হলো বিটকয়েন মাইনিং কি?  কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায় সেই সম্পর্কে। আপনি যদি বিটকয়েন মাইনিং করতে চান। তাহলে উক্ত নিয়ে করতে পারেন।

আর আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে বিটকয়েন মাইনিং করে আয় করতে চান। তাহলে এক বিটকয়েন আয় করে আপনি লক্ষপতি হয়ে যাবেন। কারণ আপনি বাংলাদেশে থেকে বিটকয়েন মাইনিং করতে পারবেন না। কারণে বাংলাদেশে বিটকয়েন পুরোপুরি ভাবে অবৈধ।

ট্যাগঃ বিটকয়েন মাইনিং কি ? কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায় বিটকয়েন মাইনিং কি ? কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায় বিটকয়েন মাইনিং কি ? কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায়

বিটকয়েন মাইনিং কি ? কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায় বিটকয়েন মাইনিং কি ? কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায় বিটকয়েন মাইনিং কি ? কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করা যায়

আপনি যদি লোভ সামাল না দিতে পারেন সেক্ষেত্রে আপনি নিজ দায়িত্বে বিটকয়েন মাইনিং শূরু করতে পারেন। আমাদের দেওয়া আর্টিকেল আপনার কাছে কেমন লাগলো অবশ্যই একটি কমেন্ট করে জানাবেন।

আর আমাদের এই ওয়েবসাইট থেকে নিয়মিত নতুন আর্টিকেল পড়তে চাইলে ভিজিট করুন ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap