বাংলা লিখে কত টাকা আয় করা যায় -বিস্তারিত জানুন!!

বাংলা লিখে আয় করা বর্তমানে অনলাইন আয়ের এক অন্যতম মাধ্যম। আর একেই কাজে লাগিয়ে বর্তমানে অনেকেই নিজের পার্ট টাইম ইনকামের পাশাপশি মূল ইনকাম হিসাবেও বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং বা বাংলা লিখে আয় করাকে বেছে নিচ্ছে। তবে এখানে মূল সমস্যা এটাই যে যারা নতুন হিসাবে এই বাংলা লেখা শুরু করতে চান তারা এসব সম্পর্কে তেমন কোনো জ্ঞান রাখেন না আর তাই তাদের অনেক  সমস্যায় পড়তে হয়।

আজ তাই আমরা একটি প্রাথমিক ধাপ নিয়ে কথা বলব। হ্যাঁ, বাংলা লিখে কত টাকা আয় করা যায় তা নিয়ে। বিস্তারিত জানত সাথেই থাকুন।

বাংলা লিখে কত টাকা আয় করা যায়
বাংলা লিখে কত টাকা আয় করা যায়

বাংলা লিখে আয় করার মাধ্যমগুলো কি কি?

প্রথমেই আমাদের জেনে নিতে হবে যে বাংলা লিখে যে আমরা আয় করব তার মাধ্যমগুলো কি । কেননা তা না হলে আমরা বুঝতে পারবো না আমাদের ইনকামটা কেমন হবে। সেক্ষেত্রে আপনি নিম্নোক্ত উপায়গুলো দেখিতে পারেন-

নিজের ব্লগ বা ওয়েবসাইটে বাংলা লিখে আয়, গেস্ট পোস্ট লিখে আয়, কন্টেন্ট রাইটিং বা বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং করে আয়, মূলত এ তিনটি উপায়েই আপনি বাংলা কন্টেন্ট বা বাংলা লিখে আয় করতে পারবেন।

তো এবার আসা যাক বাংলা লিখে কত টাকা আয়  করা যায় তা নিয়ে। সাথেই থাকুন বিষয়টি নিয়ে জানতে।

আরও পড়ুনঃ

বাংলা লিখে কত টাকা আয় করা যায় ?

বাংলা লিখে কত টাকা আয় করা যায় এটা এক্সাটভাবে কোনোদিনই বলা হয়তো সম্ভব হবে না। কারণ একেক জন বাংলা লিখে একেক রকম আয় করছেন। তবে মূল যে বিষয়টা যেটা তা নিয়েই আপনাকে বলব।

বাংলা লিখে আপনি কখনোই ইংরেজি কন্টেন্ট এর মতো স্যালারি বা সম্মানী আশা করতে পারবেন না।  এটা হলো প্রথম কথা । কারণ বাংলা লেখার কদর শুরু দু’বাংলা জুড়েই। আর ইংরেজি কন্টেন্ট তো সারা বিশ্ব জুড়ে সমাদৃত। তবে বাংলা কন্টেন্ট যে একেবারেই বিফলে যাচ্ছে, তা কিন্তু নয়। কারণ এই বাংলা দিয়েই এখন অনেকেই নিজের ক্যারিয়ারকে গড়ে নিয়েছে। তাই আপনিও পারবেন আশা করি।

আর সাধারণ কথা বলতে গেলে বাংলা কন্টেন্ট বা বাংলা লিখে আপনি প্রতিটি লেখার জন্য ১০০ টাকা থেকে শুরু করে ১০০০ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। এ বিষয়গুলো পুরোপুরি আপনার অভিজ্ঞতার সাথে সামানুপাতিক। অর্থাৎ আপনি যত বেশি অভিজ্ঞ হবেন আপনার ইনকামও তত বেশি হবে।

এবার একটু চলুন ক্যাটাগরি অনুযায়ী দেখে নেয়া যাক বাংলা লিখে কত টাকা আয় করা যায় । সাথেই থাকুন।

নিজের ব্লগ বা ওয়েবসাইটে বাংলা লিখে কত টাকা আয় করা যায় ?

প্রথমতই আমরা যে ভাগটি দেখেছিলাম তা ছিল নিজের ব্লগে বা ওয়েবসাইটে লিখে আয়। আর সবচেয়ে বেশি ইনকামও কিন্তু এতেই। একটি ব্লগ এখন আপনি নিজের ইচ্ছাতেও খুলতে পারেন আবার প্রোফেশন এর জন্যও। তবে এখান থেকে একটি হিউজ পরিমাণ প্যাসিভ ইনকাম আসতে পারে। বাংলার অন্যতম একটি ব্লগ “জে আইটি” এর অ্যাডমিন সম্প্রতি তার একটি আর্টিকেলে জানিয়েছে যে তিনি মাসে নাকি 5০০ ডলার ইনকাম করেন। ভাবতে পারেন এত টাকা কিভাবে আয় করে শুধু ব্লগিং করেই?

আপনার মনে হতে পারে ভুয়া তবে সত্য এটাই।

আরও পড়ুনঃ

বিশ্বের একটি পরিসংখ্যানে দেখা গেছে যে ২০% ব্লগ এমন রয়েছে যে তাদের  মালিকেরা দিব্যি তাদের সংসার চালাতে পারে এই ব্লগের টাকা দিয়েই। আবার এমনও দেখা গেছে যারা এর চেয়েও বেশি পরিমাণ ইনকাম করতে পারে। সুতরাং নিজের ব্লগ যদি খুলেনই তবে নিঃসন্দেহে আপনি এখান থেকে একটি বড় অ্যামাউন্ট এর টাকা অর্জন করতে পারবেন।

আর ব্লগ এর আর্টিকেলের পাশাপাশি আপনি তো স্পন্সর এর ব্যবস্থাও পাবেন। তো দেরি কেন আজই লেগে পড়ুন। দেখে নিন: কিভাবে বিনামূল্যে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করবেন।

গেস্ট পোস্ট লিখে আয়-

গেস্ট পোস্ট মূলত বোঝায় অন্যের ওয়েবসাইট বা ব্লগে লেখা। হ্যাঁ, অন্যের ব্লগে আপনি বাংলা লিখতে পারেন টাকার বিনিময়ে। আপনার বাংলা লেখার হাত হালকা ভালো থাকলেই আপনি এক্ষেত্রে কিছুদিনেই অনেকটা এগিয়ে যেতে পারবেন। জনপ্রিয় কিছু সাইট হলো- হতভাগা ডট কম, জে আইটি এবং টেকটিউন্স। এসব সাইট থেকে আপনি গেস্ট পোস্ট এর একটি ভালো অ্যামাউন্টই পেতে পারেন। আর মাসে এই গেস্ট পোস্ট থেকে আয়ও প্রায় ছাড়িয়ে যেতে পারে ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত।

তো দেরি কেন আজই লেগে পড়ুন । আশা করি কিছুদিনে সাফল্য পেয়ে যাবেন।

বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং করে আয়-

বাংলা লেখার অন্যতম একটি এবং সেরা একটি মাধ্যম হিসাবে আমি যাকে চিহ্নিত করব তা হলো বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং। হ্যাঁ এই বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং এর মাধ্যমে আপনি অনেক ভালো একটি অ্যামাউন্টের টাকা নিজের পকেটে পুড়ে ফেলতে পারবেন। বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং এখন এতটা জনপ্রিয়তা পেয়েছে যে আপনাকে আর কি বলি।

বর্তমানে বাংলাদেশ ও ভারতে অনেক প্রতিষ্ঠান রয়েছে  যারা এদেশের যুবকদের জন্য বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং এর ব্যবস্থা করেছে। এর ফলে সেখানে চাকরি করে মাসে মাসে একজন যুবক 10 থেকে 20 হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবে। আপনি কি ভাবতে পারেন শুধুমাত্র বাংলা লিখে এমনটা আয় করার কথা?

আরও পড়ুনঃ

না ভাবতে পারলেও এখন ভাবতে হবে। কারণ এটাই এখন বাস্তবতা। আর তাই আপনাকে বাস্তবতাকে মেনে নিয়েই সামনে আগাতে হবে।

বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং এ কিছু প্রতিবন্ধকতা-

বাংলা লিখে আয় করা যায় ঠিকই তবে ইংরেজি এর মতো এতটা সুযোগ সুবিধা না থাকায় , বাংলা লিখে তেমনটা করা যায় না যতটা যায় ইংরেজিতে। আর এই সীমিত সম্মানী এর মধ্যেও রয়েছে হাজার সীমাবদ্ধতা। যাই হোক এ পর্যায়ে আমরা দেখব বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং এর পিছনে আপনার প্রতিবন্ধকতা কি হতে পারে তা। সাথেই থাকুন।

ভালোভাবে রিসার্চ না করা-

বাংলা লিখে আয় করতে না পারার বা বাংলা কন্টেন্ট এত সমৃদ্ধ না হওয়ার অন্যতম একটি কারণ রিসার্চ না করে কাজ করা । হ্যাঁ , বাংলা কন্টেন্ট এর বেশিরভাগই দেখা যায় ইংরেজি এর অনুবাদ। আবার এই অনুবাদে পুরো বিষয়টিও কভার করা হয় না। যার ফলে দেখা যায় বাংলা লেখা ততটা সমৃদ্ধ হয় না। আর বাংলা কন্টেন্ট বা লেখা সমৃদ্ধ না হওয়ার কারণেই তাতে সম্মানীও এতটাই কম।

সম্প্রতি আরো একটি বিষয় পরিলক্ষিত হচ্ছে যে বাংলা কন্টেন্ট বা বাংলা লেখাকেই আরেক লেখা থেকে কপি করা হচ্ছে। যার ফলে আগের হালের চেয়েও বেহাল দশা হচ্ছে।

আরও পড়ুনঃ

সঠিক এবং সহজ ভাষা ব্যবহার না করা-

বাংলা ভাষা অত্যন্তই সমৃদ্ধ তবে বাংলা ওয়েব কন্টেন্ট এর দিকে তাকালে যেন অন্য এক বাংলা ভাষাকে দেখা যায়। আর সে কারণেই হয়তো পাঠক সমাজ বাংলা কন্টেন্টকে বাদ ইংরেজিকে বেশি প্রাধান্য দেন। এক্ষেত্রে দোষটা কিন্তু আমাদেরই কারণ আমরা ঠিক মতো কন্টেন্ট দিতে পারছি না ভিজিটর এর কাছে। ফলে তারা আর সাইট এর প্রতি আস্থা পাচ্ছে না। ফলে কিছু হচ্ছে? আমাদের পুরো ইনকামটাই কমে যাচ্ছে।

এই প্রতিবন্ধকতাটা এড়াতে যে বিষয়টা করা যেতে পারে তা হলো বাংলা ভাষার বানান ঠিক রাখা। সেই সাথে সঠিক রীতি অনুসারে বাক্য গঠন। আশা করি এসব বিষয় মানলেই সব সমস্যার সমাধান ঘটবে।

পরিশেষে-

বাংলা লিখে আপনি দিব্যি নিজের পকেট মানি বা মাসের আয়টা চালিয়ে দিতে পারবেন। এতে করে আপনার কোনো সমস্যায় হবে না। তবে ইংরেজি এর মতো এতটা রিচ ল্যাংগুয়েজ বা ভাষা না হওয়ায় কষ্ট আপনাকে একটু বেশি করতেই হবে। তবে একবার যদি আপনি এই কষ্টের সাথেই আপোষ করে নিতে পারেন তাহলে নিজের আয়ের দরজা খুলতে পারবেন। আশা করি বুঝতে পেরেছেন। ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap