বিক্রয় বৃদ্ধির কৌশল, নিয়ম এবং উপায় (বিস্তারিত)

বিক্রয় বৃদ্ধির কৌশল : বর্তমান সময়ে আমরা এমন অসংখ্য প্রতিযোগী কোম্পানিদেরকে দেখেছি। যাদের হাজার প্রতিযোগিতার মধ্যেও। মাত্র একটি বা দুইটি কোম্পানি সবসময় সেরা হয়ে রয়ে গেছে।

মূলত প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য হাজার একটা কৌশল থাকা সত্ত্বেও এ বিষয়টা যে, কোন ব্যবসার ক্ষেত্রে জাদুর মত কাজ করে, আর সেটি হচ্ছে কোম্পানির বিক্রয় / মার্কেটিং বৃদ্ধির কৌশল।

বিক্রয় বৃদ্ধির কৌশল, নিয়ম এবং উপায় (বিস্তারিত)
বিক্রয় বৃদ্ধির কৌশল, নিয়ম এবং উপায় (বিস্তারিত)

যেকোনো ব্যবসার সফলতার পেছনে রয়েছে গ্রাহক অর্জন করে নিজের পণ্য সার্ভিস বা তথ্য পরিমান মাত্রা বৃদ্ধি করা।

এছাড়া কোনো কোম্পানি কোনোদিন আশা করতে পারেনা যে, তাদের সার্ভিস বা অন্য হঠাৎ করে মানুষ কিনতে শুরু করবে।

সুতরাং ব্যবসা-বাণিজ্য তে বিক্রয় বৃদ্ধি আসলেই হচ্ছে, পরিকল্পিত এবং কার্যকরী চিন্তা শক্তি বিক্রয় কৌশল গুলোর ফল।

তার জন্য পরিকল্পিত বিক্রয় কৌশল যেকোনো ব্যবসাকে তাদেরকে বিক্রিয় অনস্বীকার্য  ভাবে, সহায়তা করে থাকে।

তাই আজ আমি এই আর্টিকেলে আপনাদের জানাতে যাচ্ছি। বিক্রয় / মার্কেটিং বৃদ্ধির কৌশল নিয়ম এবং উপায় সম্পর্কে।

আপনি যদি বিক্রয় বৃদ্ধির কৌশল সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে চান। তাহলে আমাদের আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।

ব্যবসাতে বিক্রয় বৃদ্ধির সেরা কৌশল

আপনার ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান এর বিক্রি বা লাভ বৃদ্ধি করার জন্য নিচের অংশে, সেরা কিছু কৌশল সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।

আপনারা সেই কৌশল গুলো অনুসরণ করে ব্যবসাতে বিক্রয় বৃদ্ধি করতে পারবেন।

তো বন্ধুরা আর কথা না বাড়িয়ে, চলুন ব্যবসাতে, বিক্রয় বৃদ্ধির সারাক কৌশল গুলো সম্পর্কে জেনে নেয়া যায়।

লিড বাড়িয়ে বিক্রি বৃদ্ধির কৌশল

নতুন লিড তৈরি করার মানে হচ্ছে সম্ভাব্য কাস্টমারের সংখ্যা বৃদ্ধি করার একটি আদর্শ কৌশল। শক্তিশালী লেড তৈরি করার জন্য আপনার ব্যবসায়িক যোগাযোগের দলকে, গ্রাহকের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন ধরনের সমীক্ষা এবং ডোমেস্টেশন এর ব্যবস্থা করতে বলবেন।

যার ফলে পণ্য বা সার্ভিস গুণগতমান ব্যবহার সবসময় জটিলতা সম্পর্কে, আরো গভীরভাবে গবেষণা চালানোর সম্ভব হবে।

আর এর থেকে আপনি আপনার পণ্য বা সার্ভিস গুলোর মানের উন্নতি সাধন করে নতুন করে। গ্রাহকদের কাছে সেটি তুলে ধরতে পারবেন।

এজন্য ব্যবসায়ী লিডার তাদের গ্রাহকদের বর্তমান উদ্দেশ্য গুলোর বিষয়ে অত্যন্ত প্রতিক্রিয়াশীল হতে হবে।

যার ফলে, কোম্পানিগুলো তার কাঙ্খিত অবস্থান ধরে রাখতে পারে, এবং বিক্রয় বৃদ্ধি করতে পারে।

প্রোডাক্ট টু মার্কেট ফিট চেক করুন

বর্তমান সময়ের যেকোনো গ্রাহক তখন আপনার সার্ভিসগুলো নিতে পছন্দ করবে। যখন সে দেখবে তার বাজেট এর মধ্যে, সেরা পণ্য গুলোর সুবিধা আপনার কোম্পানি থেকে পাওয়া যাচ্ছে।

তাই যে কোন ব্যবসায়ীদের উচিত তার পণ্য বা সার্ভিস গুলোর প্রোডাক্ট টু মার্কেটিং ফিট দেখে নেওয়া। মানে তারপরে বিনিময়ে বাজারে এসেছে।

সেটি তার পথে যদি কোম্পানিতে কেমন দাম এবং কেমন মানের বিক্রি হচ্ছে। সেই ক্ষেত্রে যদি আপনার প্রোডাক্টের অতিরিক্ত দাম বিভিন্ন সমস্যা থাকে।

তাহলে তার সমাধান করে আপনার প্রতিযোগী কোম্পানিগুলোর তুলনায় কম দাম এবং ভালো মানে বিক্রি করলে। সে ক্ষেত্রে আপনার বিক্রয় বৃদ্ধি হতে পারে।

পণ্যের অনন্য কে হাতিয়ার করুন

যে কোন কোম্পানির কাছে তার প্রোডাক্ট একটি অনন্য বিক্রয় বিন্দু বা ইউনিক সেলিং প্রপজিশন থাকাটা অনেক জরুরী। আপনার ব্যবসা যদি গ্রাহকদের নিখুঁত সার্ভিস এবং পণ্য প্রদান করতে পারে।

আর আপনার সমগোত্রীয় কোম্পানিগুলোর সেই একই ধরনের পণ্য দিতে থাকে। তাহলে সে ক্ষেত্রে বিক্রয় বাড়াটা কঠিন হয়ে।

পড়লেও আপনি যখন নিজের প্রোডাক্ট এর অনন্যতা এবং গুণমানের বিষয়ে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে চলবেন।

তখন আপনার গ্রাহকরা আপনার পণ্য এর প্রতি অনুগত থাকতে বাধ্য হবে।

সামঞ্জস্যপূর্ণ মার্কেটিং কৌশল

ব্যবসা ভালো পজিশনে রাখতে অবশ্যই একটি প্রফেশনাল মার্কেটিং দলের সাহায্য নিয়ে। সামাজিক সম্পন্ন মার্কেটিং কৌশল ব্যবহার করতে হবে।

এছাড়া নিজে নিজের ব্যবসার প্রচারণা চালাতে, শিখতে হবে। যথা আপনি নিজে নিজে পণ্য সম্পর্কে অর্গানিক ভিডিও তৈরি করতে পারেন।

এছাড়া নিজে নিজে ব্র্যান্ড সম্পর্কে লিখতে পারেন এবং বিভিন্ন জায়গাতে পাবলিশ করে মানুষদের মন জয় করার চেষ্টা করবেন।

নিত্য নতুন ভাবে পণ্যের মার্কেটিং করলে মানুষের মনে তা দাগ কেটে যায় যার ফলে আপনার বিক্রয় বৃদ্ধি হবে।

ঘনঘন ছাড় ও অফার দিয়ে ক্রয়ের পরিমাণ বৃদ্ধি করুন

ব্যবসার ক্ষেত্রে লয়াল কাস্টমার থাকা অনেক জরুরী। তাই আমরা জানি যে, নতুন গ্রাহকদের কাছে কোন প্রোডাক্ট বিক্রি করতে চাইলে।

বিদ্যমান গ্রাহকের কাছে সেটি বিক্রি করা। অনেকটাই সহজ তার জন্য প্রথমে কার্টের মান বাড়ান, আর দেখবেন আপনি কি ধরনের, কমপ্লিমেন্টারি কিংবা ফ্রি পণ্য বা সার্ভিস আপনার গ্রাহকদের দিতে পারেন।

এছাড়া ঘন ঘন অফার বা ছার চালাতে থাকতে হবে তা আপনার পণ্যের মাত্রা বাড়িয়ে নিতে পারে আপনার ব্যবসার উপর ভিত্তি করে আপনার গ্রাহকদেরকে ঘন ঘন ফিরিয়ে আনার জন্য দিতে পারেন তাহলে বেশি বেশি বিক্রয় বৃদ্ধি করতে পারবেন।

বিদ্যমান গ্রাহকদের উপর মনযোগ দিন

গ্রাহকদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু রাখতে হবে। তাদের ব্যক্তিগত এবং পেশাগত জীবন সম্পর্কে খবরাখবর নিতে হবে।

তাছাড়া আপনার পণ্যগুলোর মান বাড়ানোর উদ্দেশ্যে তাদের থেকে পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে। সর্বশেষে আপনার সার্ভিসের প্রয়োজন আছে।

এমন কেউ পরিচিত থাকলে, আপনার বিদ্যমান গ্রাহকের জিজ্ঞাসা করুন এবং আপনার রেফারেল প্রক্রিয়াকে একেবারে সহজ করে ফেলুন।

গ্রাহকদের ক্রয়ের কারণ গুলোর উপর নজর দিন

যেকোনো পণ্য বিক্রয়ের পেছনে একমাত্র প্রধান কারণ হচ্ছে গ্রাহকদের ক্রয়ের কারণ। গ্রাহক এর ক্রয়ের কোন কারণ থাকলে। তাহলে তারা আপনার পণ্য গ্রহণ করে থাকে।

তাই আপনার বিক্রয় বৃদ্ধির ক্ষেত্রে গ্রাহকদের ক্রয় এর কারণ গুলো ভালো ভাবে বিশ্লেষণ করতে হবে। আর তাদের কারণ গুলোকে হাতিয়ার করে, বিক্রয় বাড়াতে থাকুন।

অতিরিক্ত পণ্য কিনতে বাধ্য করুন

আপনার কাস্টমারদের অতিরিক্ত পণ্য কিনতে ফলাফল দেখান মনে করুন আপনার প্রসাধন সামগ্রীর ব্যবসার রয়েছে। এখন আপনার যে কোন কাস্টমার আপনার কাছে শ্যাম্পু কিনতে চায়।

কিন্তু আপনি তাকে, শ্যামপুর, সাবান, কন্ডিশনার, বডি ক্রিম এবং বিভিন্ন তেল এমন একটি লিমিটেড অফার সেট ক্রয়ের জন্য প্রলদ্ধ করলেন।

যাতে টাকা বাঁচানোর তাগিদে আপনার ক্রেতা সেই সমগ্র তার অনুমোদিত বাজেটের তুলনায়, বেশি টাকা দিয়ে কিনতে বাধ্য হন। আপনি যদি এই কৌশলটি কাজে লাগাতে পারেন তাহলে আপনার বিক্রয় বৃদ্ধি করতে পারবেন।

ভিডিও রি-ভিউয় করুন

বিক্রয় বৃদ্ধির কুশল হিসেবে বর্তমান সময় ভিডিও রিভিউগুলো অনেক বিসর্জন মাধ্যম হয়ে উঠেছে। যা আপনার কাস্টমারদের পণ্য ক্রয় করার জন্য আরো আগ্রহী করে তুলতে পারে।

আর বিদ্যমান বা পুরাতন কাস্টমারদের ভিডিও পর্যালোচনা আপনার সম্ভাব্য ক্রেতাদের প্রলুদ্ধ করতে পারে। তার জন্য পণ্য বিক্রয় করার পর অবশ্যই করে, আপনার কাস্টমারদের কাছে সেই সংক্রান্ত ভিডিও রিভিউ চান।

এরকম ভাবে আপনি সে, নির্দিষ্ট গ্রাহকদের পাশাপাশি সেই যোগাযোগের কাছেও ব্যবসায়িক সুনাম অর্জন করে,  নিতে পারবেন।

আপনারা চাইলে youtube চ্যানেল তৈরি করে সেখানে আপনার কোম্পানির ব্যবসায়িক পণ্যগুলো ভিডিও রিভিউ করতে পারেন।

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট কি? ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ব্যবসা করে আয় করার উপায়

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা আজ আমাদের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনাকে জানানো হলো বিক্রয়/ মার্কেটিং বৃদ্ধির কৌশল নিয়ম এবং উপায় গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত।

আপনার যদি একটি ব্যবসা থেকে থাকে, সে ব্যবসার পণ্য বা সার্ভিস গুলো গ্রাহকদের কাছে বিক্রি করতে চান। তাহলে আপনাকে উপরোক্ত কৌশল গুলো কাজে লাগাতে হবে।

আপনারা যখন ধীরে ধীরে সেই প্রক্রিয়া গুলো বা কৌশল গুলো অবলম্বন করতে পারবেন। তখনই আপনার ব্যবসায়ী পণ্য বা প্রোডাক্ট সহজেই বিক্রয় বৃদ্ধি করতে পারবেন।

তো বন্ধুরা আমরা আশা করে যে, আমাদের বিক্রয় বৃদ্ধির কৌশল নিয়ম এবং উপায় গুলো সম্পর্কে আপনি বিস্তারিত ভাবে জানতে পেরেছেন।

সেই লোকে আমাদের আর্টিকেলটি আপনার কাছে কেমন লাগলো অবশ্যই কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

আর বিশেষ করে এই আর্টিকেলটি আপনার বন্ধুদের জানাতে, একটি সোশ্যাল মিডিয়া শেয়ার করবেন ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap